ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩০ আশ্বিন ১৪২৫, ১৬ অক্টোবর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

আগুনে দগ্ধ গৃহবধূর মৃত্যু: মামলা দায়ের, ননদ গ্রেপ্তার

রফিক সরকার : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-১০-১২ ৫:৪৬:৩৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-১০-১২ ৫:৪৬:৩৪ পিএম

কালীগঞ্জ (গাজীপুর) সংবাদদাতা : গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলায় পারিবারিক কলহের জেরে শাশুড়ি এবং ননদদের ধরিয়ে দেওয়া আগুনে দগ্ধ হয়ে গৃহবধূ খাদিজা বেগমের নিহতের ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শাশুড়ি ও দুই ননদকে আসামি করে নিহতের ছোট ভাই আমির হোসেন বাদী হয়ে কালীগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে শুক্রবার সকালে মামলা দায়ের করেছেন।

এ মামলায় বিকেলে ননদ সাফিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মামলা ও গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আবুবকর মিয়া।

শাশুড়ি মনোয়ারা বেগম (৫৫), ননদ সাফিয়া বেগম (৩৭) এবং আরেফা (২৫) মিলে ঘরে বেঁধে তিন সন্তানের জননী খাদিজা বেগমের (৩০) গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে টানা সাত দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে বৃহস্পতিবার মারা যায় খাদিজা। 

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, খাদিজার স্বামী উপজেলার বক্তারপুর ইউনিয়নের উত্তর খৈকড়া গ্রামের মৃত মনরউদ্দিনের ছেলে নবীন প্রধান পেশায় রিকসা চালক। ১৬ বছর আগে পলাশ উপজেলার ঘোড়াশাল করতেতুল গ্রামের মৃত সিরাজ উদ্দিনের মেয়ে খাদিজা বেগমের সঙ্গে পারিবারিকভাবে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে নানা বিষয় নিয়ে শাশুড়ি এবং দুই ননদ মিলে খাদিজাকে নির্যাতন করতেন।

গত ৫ অক্টোবর দুপুরে খাদিজা সঙ্গে শাশুড়ি ও দুই ননদের ঝগড়া হয়। ঝগড়ার এক পর্যায়ে তারা খাদিজাকে ঘরের মধ্যে বেঁধে শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দরজা বন্ধ করে দেয়। প্রতিবেশীরা এসে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে, তারপর সেখান থেকে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে। সেখানে টানা সাত দিন মৃত্যু যন্ত্রণা ভোগ করে তিনি মারা যান।

কালীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আবুবকর মিয়া জানান, নিহতের ভাই সকালে অভিযোগ করেছেন। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা নেওয়া হয়েছে। ওই মামলায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।




রাইজিংবিডি/কালীগঞ্জ/১২ অক্টোবর ২০১৮/রফিক সরকার/বকুল

Walton Laptop
 
     
Walton