ঢাকা, বুধবার, ২৯ কার্তিক ১৪২৫, ১৪ নভেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

নির্বাচনে এরশাদ স্বজনদের প্রার্থী হতে পারেন যারা

নজরুল মৃধা : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-১১-০৭ ১:৫৫:৪৮ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-১১-০৭ ৫:৫৮:৪৪ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের পরিবার থেকে অংশ নিচ্ছেন কতজন? এ নিয়ে দলের নেতাকর্মী ও ভোটারদের মাঝে আলোচনা এবং সমীকরণ শুরু হয়েছে।

আলোচনায় এরশাদের স্ত্রী রওশন এরশাদ, ছোট ভাই জিএম কাদের ছাড়াও নাম উঠে এসেছে ৫ জনের। এরা হলেন এরশাদ পুত্র সাদ এরশাদ, ভাতিজা আসিফ শাহরিয়ার, মামাতো ভাইয়ের ছেলে  দলের প্রেসেডিয়াম সদস্য ও এরশাদের ব্যক্তিগত সহকারি মেজর (অব.) খালেদ আক্তার,  বোন মেরিনা রহমান এবং তার ছেলে  আদেলুর রহমান আদেল।

বিগত সময়ে রংপুর-১ গঙ্গাচড়া আসনের এমপি ছিলেন এরশাদের ভাতিজা আসিফ শাহরিয়ার। এই আসনে বর্তমান এমপি জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙা। রাঙা এই আসন থেকে নির্বাচন করবেন বিষয়টি একরকম নিশ্চিত হলেও আসিফ দাবি করছেন তিনি এবার ওই আসন থেকে নির্বাচন করবেন। যদি আসিফ গঙ্গাচড়া থেকে নির্বাচন করেন তা হলে মসিউর রহমান রাঙাকে লালমনিরহাট-২ (কালিগঞ্জ-আদিতমারি) আসনে দেওয়া হতে পারে বলে অনেকে মনে করছেন। তবে কালিগঞ্জ- অদিতমারীর আসনের এমপি আওয়ামী লীগের  সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী নুরুজ্জামান। এক্ষেত্রে জাতীয় পার্টিকে শক্ত মোকাবেলা পড়তে হবে। তাই গঙ্গাচড়া আসনে রাঙাকে রাখাই যুক্তিযুক্ত মনে করছেন দলের নেতাকর্মীরা।

এরশাদের আরেক আত্মীয় মেজর (অবঃ) খালেদ আক্তার নির্বাচন করবেন লালমনিরহাট-১ (হাতিবান্ধা-পাটগ্রাম) আসন থেকে। ওই আসনে বর্তমানে আওয়ামী লীগের এমপি রয়েছেন মোতাহার হোসেন। মেজর খালেদ ইতিমধ্যে নির্বাচনী প্রচারণাও শুরু করেছেন।

এরশাদের ভাগ্নে আদেলুর রহমান আদেল নীলফামারী-৪ (সৈয়দপুর-কিশোরগঞ্জ) আসন থেকে নির্বাচনের  প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে দলীয় সূত্র দাবি করেছে। তিনি ব্যাপক নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। ওই আসনে বর্তমান এমপি জাপার শওকত চৌধুরী ।

অন্যদিকে দলীয় নেতাকর্মীদের  মাঝে বেশ গুঞ্জন চলছে, দলের চেয়ারম্যান এরশাদের ছেলে শাদকে কুড়িগ্রাম সদর আসনে মনোনয়ন দেওয়া হতে পারে। বর্তমানের এই আসনটি জাতীয় পার্টির দখলে। এরশাদের পুত্রকে মনোনয়ন দেওয়া হলে তিনি বিজয়ী হবেন বলে দলের নেতাকর্মীরা  মনে করছেন।

এরশাদের ভাই জিএম কাদের লালমনিরহাট-৩ (সদর) থেকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে শোনা যাচ্ছে। তিনি এর আগে ওই আসনের এমপি এবং সরকারের মন্ত্রী ছিলেন। বর্তমানে ওই আসনটি আওয়ামী লীগের দখলে।

এ ছাড়া বেশ কয়েকবারের সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি এরশাদের বোন মেরিনা রহমান প্রার্থী হতে পারেন বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

অপরদিকে রওশন এরশাদ এবার নির্বাচন করবেন তার বাবার বাড়ি ময়মনসিংহ-৪ আসন থেকে। ২০১৪ সালেও তিনি এই আসন থেকে এমপি নির্বাচিত হন।

এ ছাড়া দলের চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ নিজে রংপুর-৩ (সদর) ও ঢাকা-১৭ আসনে প্রার্থী হবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে দলের প্রেস এ্যান্ড পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভ রায় জানান,  পরিবার থেকে কাকে কাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে এটা দলের চেয়ারম্যানের বিষয়। এছাড়া এটি একটি পারিবারিক বিষয়। এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে চাইনা।

তবে মেজর (অব.) খালেদ আক্তার দলের চেয়ারম্যানের পুত্র সাদ এরশাদের নির্বাচনের অংশগ্রহণ করা প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমরা শুনেছি সাদ এবার নির্বাচন করবেন। কিন্তু এরশাদ স্যার রাজি হচ্ছেনা না। স্যার রাজি হলে হয়তো সাদ নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমি লালমনিরহাট -১ আসন থেকে নির্বাচন করবো। এ লক্ষ্যে প্রস্তুতি গ্রহণ করেছি।’

এরশাদের ভাতিজা আসিফ শাহরিয়ার বলেন, ‘আমি ইতিপূর্বে রংপুর-১ আসনের এমপি ছিলাম।  আমার আমলে এলাকায় ব্যপক উন্নয়ন হয়েছে। আমার নির্বাচনের প্রস্তুতি রয়েছে। দল আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি বিজয়ী হবো।’

তিনি এরশাদের পুত্র সাদ এর নির্বাচনে অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে বলেন, ‘সাদ ব্যবসা বাণিজ্য নিয়ে ব্যস্ত। তিনি নির্বাচনে অংশ গ্রহণ নাও করতে পারেন। তবে সব কিছু নির্ভর করছে দলের চেয়ারম্যানের ওপর।’

আদেলুর রহমান আদেলের চাচাত ভাই রায়হানুল আহসান বলেন, ‘ভাই নীলফামারী-৪ আসন থেকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়েছেন।  আমরা প্রচারণাও শুরু করে দিয়েছি। আশা করি তিনি এবার এই আসনে মনোনয়ন পাবেন।’

 

 

 

রাইজিংবিডি/ রংপুর/৭ নভেম্বর ২০১৮/নজরুল মৃধা/টিপু

Walton Laptop
 
     
Marcel