ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

বখাটের ৫ স্ত্রীর পালিয়েছে ৪, নির্যাতনে নিহত ১

শেখ মহিউদ্দিন আহাম্মদ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০১-০৬ ১২:২৪:৫৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০১-০৬ ১২:২৪:৫৩ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহ পৌরসভার চরপাড়া কপিক্ষেত এলাকায় এক বখাটের বিরুদ্ধে তার স্ত্রীকে নির্যাতনে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। তবে নিহত নারী ওই বখাটের প্রথম স্ত্রী নন। তিনি ছিলেন পঞ্চম স্ত্রী। ওই বখাটের আগের চার স্ত্রী তাকে ছেড়ে বাপের বাড়ি পালিয়ে গেছেন।

কপিক্ষেত এলাকার বস্তিতে বসবাসকারী ওই বখাটের নাম সাগর হোসেন (২৫)। আর তার নিহত স্ত্রীর নাম নাম সাফিয়া আক্তার (২০)। স্ত্রী হত্যার অভিযোগে বখাটে সাগরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার দিবাগত মধ্যরাতে ঝগড়ার এক পর্যায়ে সাফিয়াকে প্রচণ্ড মারধর করেন সাগর। অসুস্থ হয়ে পড়লে সাফিয়াকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী পুলিশকে খবর দেয়। সাফিয়াকে হত্যার বিচার দাবিতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে স্থানীয়রা।

স্থানীয়দের অভিযোগ, এর আগেও বখাটে সাগর চারটি বিয়ে করেন এবং নির্যাতনের কারণে চার স্ত্রীই বাপের বাড়ি পালিয়ে যেতে বাধ্য হন।

গত চার মাস আগে ময়মনসিংহ সদরের পরানগঞ্জ মীরকান্দাপাড়া গ্রামের নওয়াব আলীর কন্যা সাফিয়া আক্তারের সঙ্গে চরপাড়া কপিক্ষেত বস্তির আবুল হোসেনের বখাটে পুত্র সাগর হোসেনের বিয়ে হয়। বিয়ের ১৫ দিনের মাথায় সাফিয়া অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। এই নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মাঝে দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। এরই জেরে চলতি মাসের ১ জানুয়ারি সাগর জোরপূর্বক সাড়ে তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্র্রী সাফিয়াকে স্থানীয় ক্লিনিকে নিয়ে গর্ভপাত ঘটান। এই ঘটনা জানাজানি হলে স্বামী-স্ত্রীর মাঝে দ্বন্দ্ব ঘনীভূত হয়। শুক্রবার দিবাগত মধ্যরাতে এ বিষয়ে স্বামী-স্ত্রীর মাঝে তুমুল ঝগড়া বাঁধে। এক পর্যায়ে সাগর সাফিয়াকে প্রচণ্ড মারধর করেন। অসুস্থ হয়ে পড়লে সকালে হাসপাতালে নেওয়ার পর সাফিয়া মারা যান।

সাফিয়ার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন পুলিশকে খবর দিয়ে বাড়ি ঘেরাও করে সাগরকে আটকে রেখে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। স্থানীয়দের অভিযোগ, সাগর নির্যাতন করে সাফিয়াকে হত্যা করেছেন।

খবর পেয়ে ময়মনসিংহ কোতোয়ালী মডেল থানা পুলিশ সাগরকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

সাফিয়ার পিতা নওয়াব আলী বলেন, ‘সাগর এর আগে চারটি বিয়ে করেছে, আমরা সে বিষয়ে জানতাম না। বিয়ের পর থেকেই সাফিয়াকে নির্যাতন করে আসছিল সাগর। গত রাতেও নির্যাতন করে সাগর আমার মেয়েকে হত্যা করেছে।’

কন্যা সাফিয়া হত্যার বিচার দাবি করেছেন পিতা নওয়াব আলী।

কোতোয়ালী মডেল থানার পরিদর্শক মনির হোসেন জানান, সাগরকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সাফিয়ার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।



রাইজিংবিডি/ময়মনসিংহ/৬ জানুয়ারি ২০১৮/শেখ মহিউদ্দিন আহাম্মদ/সাইফুল

Walton Laptop
 
     
Marcel
Walton AC