ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ আষাঢ় ১৪২৬, ২৫ জুন ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

বুড়িগঙ্গা নদী থেকে জবি শিক্ষার্থী আরিফের মরদেহ উদ্ধার

আশরাফুল ইসলাম আকাশ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৭-৩১ ৭:৩০:২৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৮-০৯ ১০:০৩:০৪ এএম
Walton AC 10% Discount

জবি প্রতিনিধি : জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) নিখোঁজ শিক্ষার্থী মো. আরিফুল ইসলামের মরদেহ বুড়িগঙ্গা নদী থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার বিকাল পাঁচটার দিকে নৌপরিবহন (বিআইডব্লিউটিএ) কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা তার মরদেহ উদ্ধার করেন।

আরিফুল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের (১০ম ব্যাচ) ৮ম সেমিস্টারের মেধাবী শিক্ষার্থী ছিলেন।

জানা যায়, আরিফুল ইসলাম দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জে মেসে থাকতেন। সোমবার সকালে দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ এলাকা থেকে বুড়িগঙ্গা নদী পার হয়ে লক্ষীবাজারের দিকে আসার সময় তিনি নিখোঁজ হন। পরে বুড়িগঙ্গা নদীতে তার ব্যাগ ও অন্যান্য ব্যবহার্য্য উপকরণ পাওয়া গেলেও তাঁর কোনো অনুসন্ধান পাওয়া যাচ্ছিল না।
এ ব্যাপারে দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ থানায় তাঁর ভাই রাশেদুল ইসলাম একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। ডায়েরি নম্বর- ১২৭৯। আরিফুলের বাবার নাম মইনুদ্দিন, মাতার নাম শাহীদা খাতুন এবং তার গ্রামের বাড়ি চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর থানাধীন মারুফদহ গ্রামে। তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মিডফোর্ড মেডিক্যালে মর্গে নেওয়া হয়েছে। এরপর মরদেহ তার গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হবে। তবে এ ঘটনায় পেছনের কারণ উদঘাটন করতে পারেনি কেউ। এখনো কাউকে আটকও করা হয়নি। সহপাঠির মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। শিক্ষক-শিক্ষার্থী সবাই শোকাহত।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর নূর মোহাম্মদ বলেন, ‘গতকাল আরিফুল ইসলাম নিখোঁজ হয়। এরপর আজ বিকালে বুড়িগঙ্গা নদী থেকে তাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে পুলিশ প্রশাসনকে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। পুলিশ সুপারের কাছেও শিক্ষার্থীরা জড়িতদের শাস্তির জন্য স্মারকলিপি দিয়েছে।’

সহকারী প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল মরদেহ উদ্ধারের পর থেকে ঘটনাস্থলে রয়েছেন। তিনি বলেন, ‘ময়না তদন্ত করার পর মামলা করা হবে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তার মরদেহ গ্রামের বাড়িতে পাঠানোর ব্যবস্থা করছে।’



রাইজিংবিডি/ঢাকা/৩১ জুলাই ২০১৮/আশরাফুল/শাহনেওয়াজ

Walton AC
     
Walton AC
Marcel Fridge