ঢাকা, বুধবার, ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২২ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

মাগুরা জেলা পরিষদের স্থগিত ওয়ার্ডে নির্বাচন ২৩ মে

মো. আনোয়ার হোসেন শাহীন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৫-১৯ ১:০১:০০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৫-১৯ ১:০১:০০ পিএম

মাগুরা প্রতিনিধি : উচ্চ আদালতের নির্দেশে স্থগিত হওয়া মাগুরা জেলা পরিষদের ১১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য পদে নির্বাচন ২৩ মে। একই সঙ্গে ৪ নম্বর ওয়ার্ডে স্থগিত হওয়া সংরক্ষিত নারী সদস্য পদেরও ওই দিন ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

সকল প্রস্ততি সম্পন্ন করার পরও ২৭ ডিসেম্বর রাতে উচ্চ আদালতের রিটের কারণে শুধু এই ওয়ার্ডটিতে ভোট গ্রহণ স্থগিত হয়ে যায়। পর দিন সকালে ভোটারদের অনেকেই কেন্দ্রে এসে জানতে পারেন ভোট হচ্ছে না। তবে ২৮ ডিসেম্বর বাকি সব ওয়ার্ডে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা নির্বাচন অফিস জানা যায়, নবগঠিত মহম্মদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের ভোটাধিকার প্রয়োগের পক্ষে-বিপক্ষে প্রার্থীরা উচ্চ আদালতে রিট দায়ের করেন। এতে নির্বাচন স্থগিত করেন আদালত। রিটের নিষ্পত্তি হওয়ায় নির্বাচন কমিশন ভোট গ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করেন।

মাগুরা জেলা পরিষদের ১৫টি ওয়ার্ডের মধ্যে মহম্মদপুর সদর ও বালিদিয়া ইউনিয়ন নিয়ে ১১ নম্বর ওয়ার্ড গঠিত। এই ওয়ার্ডে ভোটার ২৯ জন।

এই ওয়ার্ডে একটি সদস্য পদের জন্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন পাঁচজন প্রার্থী। তারা হচ্ছেন মো. হাবিবুর রহমান (তালা), কাজী মাহাবুবুর রহমান মেহেবুল (হাতি), আব্দুল মান্নান (নলকূপ), সাজেদুল আলম সুজা (বৈদ্যুতিক পাখা) ও তানজির রহমান সোহাগ (ঘুড়ি)।

উপজেলার তিনটি ওয়ার্ডে একজন সংরক্ষিত নারী সদস্য নির্বাচিত হবেন। দুইটি ওয়ার্ডে ভোট গ্রহণ হলেও ১১ নম্বর ওয়ার্ডে ভোট না হওয়ায় এই পদে ফল ঝুলে আছে। এই পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন নাজনীন রব্বানী (ফুটবল) ও তাসলিমা নাসরিন সাথী (হরিণ)। দুটি ওয়ার্ডের নির্বাচনে নাজনিন পেয়েছেন ৪২ ও তাসলিমা পেয়েছেন ৩৬ ভোট। এই ওয়ার্ডের ভোটে তাদের জয়পরাজয় নির্ধারিত হবে।

ভোটের জন্য এসব প্রার্থী রাত-দিন কাজ করছেন। পোস্টার-বানারে ছেয়ে গেছে পুরো এলাকায়। ভোটের জন্য প্রার্থীর বড় অঙ্কের টাকা দেনদেন করছেন বলে একজন প্রার্থী অভিযোগ করেন।

মাগুরা জেলা নির্বাচন অফিসার আহমেদ আলী জানান,‌ নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।



রাইজিংবিডি/মাগুরা/১৯ মে ২০১৭/মো. আনোয়ার হোসেন শাহীন/এসএন

Walton