ঢাকা, রবিবার, ৬ ফাল্গুন ১৪২৪, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮
Risingbd
অমর একুশে
সর্বশেষ:

রাঙামাটির এসপি-ওসিকে প্রত্যাহারে ছাত্রলীগের আল্টিমেটাম

রেজাউল করিম : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৮-০২-১৩ ৮:৪২:০০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০২-১৩ ৮:৪২:০০ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম : রাঙামাটির পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপারসহ এবং কোতোয়ালি থানার ওসিকে প্রত্যাহার করতে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে রাঙামাটি জেলা ছাত্রলীগ।

দিনব্যাপী হরতাল পালন শেষে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাঙামাটি সদরে প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে এই আল্টিমেটাম ঘোষণা করে ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ।

সন্ধ্যায় রাঙামাটি বনরূপা বিএম মার্কেট প্রাঙ্গণে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে ছাত্রলীগ নেতারা অভিযোগ করেন, ছাত্রলীগসহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর একের পর এক হামলার শিকার হয়ে মৃত্যুবরণসহ গুরুতর আহত হলেও পুলিশ এসব ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার করছে না।বরং তাদের সঙ্গে আঁতাত করে সরকার দলীয় ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীদের ওপর নির্বিচারে গুলি-টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করেছে। এ ধরনের হামলার সঙ্গে রাঙামাটির পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপারসহ কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জের প্রত্যক্ষ ইন্ধন রয়েছে। তাদের নেতৃত্বেই শহরে সোমবার রাতে বিক্ষোভরত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ওপর বর্বর হামলা চালানো হয়। তাই ওই তিন পুলিশ কর্মকর্তাকে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রাঙামাটি থেকে প্রত্যাহার করে নিয়ে যেতে হবে। অন্যথায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দীপংকর তালুকদার ও সাধারণ সম্পাদক মূছা মাতব্বরের অনুমতিক্রমে রাঙামাটি জেলায় হরতাল-অবরোধসহ কঠোর কর্মসূচির মাধ্যমে পুরো জেলা অচল করে দেওয়া হবে বলে হুশিয়ারি দেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল জব্বার সুজন।

উল্লেখ্য, গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় রাঙামাটি জেলা ছাত্রলীগ নেতা সুপায়ন চাকমার ওপর সন্ত্রাসীদের হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে শহরে অরাজক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এ সময় ছাত্রলীগ-পুলিশ সংঘর্ষে ১০ পুলিশসহ প্রায় ২০/২৫ জন আহত হয়। এ ঘটনার প্রতিবাদে ছাত্রলীগ মঙ্গলবার রাঙামাটিতে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল কর্মসূচি পালন করে।

এদিকে রাঙামাটি কোতোয়ালি থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই লিমন বোস জানান, সোমবার রাতে পুলিশের ওপর হামলাসহ কর্তব্যকাজে বাধাদানের ঘটনায় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ৪ থেকে ৫ শতাধিক অজ্ঞাতনামাকে আসামি করে পুলিশের পক্ষ থেকে সোমবার রাতেই একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। একই থানার এসআই শিবু প্রসাদ দাশ বাদি হয়ে এই মামলা দায়ের করেন।

কোতোয়ালি থানার ওসি সত্যজিৎ বড়ুয়া জানান, কোনো প্রকার অনুমতি ছাড়া বেআইনিভাবে সড়ক অবরোধ করে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করে সমাবেশ, রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টিসহ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতিসহ বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনায় পুলিশের পক্ষ থেকে এই মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলার আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।



রাইজিংবিডি/চট্টগ্রাম/১৩ ফেব্রুয়রি ২০১৮/রেজাউল করিম/মুশফিক

Walton
 
   
Marcel