ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

‘পাগলার’ অসামান্য কীর্তি

ইয়াসিন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৪-০২ ১:৪২:৪৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৪-০৩ ৩:৫০:১২ পিএম

ইয়াসিন হাসান :  

খুব জোরে বল করছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। উন্মুখ চাঁদ প্রায় তখন সেঞ্চুরির পথে। ফতুল্লায় আবাহনীর শিবিরে অস্থিরতা। নার্ভাস নাইন্টিজে থেকেও চাঁদ স্লগ সুইপে ছক্কা মেরেছেন নাসিরকে। নিশ্চিত তিন অঙ্ক ছোঁয়ার পর আরও আগ্রাসন দেখাবেন চাঁদ। কিন্তু সেঞ্চুরি তোলার পর থেমে গেলেন। মাশরাফির থ্রি কোয়ার্টার ডেলিভারীতে পুল করতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দিলেন চাঁদ। পরের বলে জিয়াউর রহমানকে বাউন্সার। বলে চোখ রেখে পুল করলেন। ডিপ মিড উইকেটে বল উঠল। গ্যালারির দর্শকদের অভিনন্দনের জবাব দিতে থাকা মিরাজ অপ্রস্তুত। বল বুঝলেন না। হাতের কাছ ঘেঁষে বল বাউন্ডারির বাইরে। তাতেই ক্ষিপ্ত মাশরাফি। দর্শকদের সাথে এতো কি? পরের বলে স্লোয়ারে জিয়াউর ক্যাচ দিলেন উইকেটের পিছনে। মাশরাফির এক ওভারেদুই উইকেটে ম্যাচে ফিরল আবাহনী। প্রাইম ব্যাংককে আটকে রাখলেন অল্প রানে।


ইনিংসের শেষ ওভারের আগের ওভার। মাশরাফির করা প্রথম বলে মিড অন দিয়ে বাউন্ডারিতে পাঠালেন ইলিয়াস সানী। কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে রইলেন ২২ গজের ক্রিজে। ফিরে গেলেন। বাউন্ডারি রোপের কাছে  বসা খালেদ মাহমুদ সুজন বললেন,‘দেখলেন একটা চার খাইলো। কিন্তু কতটুকু অনুতপ্ত। আর বাকিগুলোর অবস্থা দেখেন! চার তো খাইতেই পারে। কিন্তু নিবেদনটা দেখছেন।’ পরের পাঁচ বল এমনভাবে করলেন যে ব্যাটসম্যানরা বড় শটের কথা চিন্তাও করতে পারলেন না।


‘ওর বোলিং নিয়ে আমার কোনো কথা নেই। ও তো পাগলা। ’-মাশরাফিকে নিয়ে সুজন। যিনি আবাহনীর কোচ।  ‘পাগলার বোলিং নিয়ে আর কি বলবো। একটা জিনিস আপনারাই মিলিয়ে দেখেন। ও এই লিগে কত উইকেট পাইছে। আর কোনো বোলার ওর ধারের কাছেও আছে। কোনো বোলার ওকে চ্যালেঞ্জ করছে? কিংবা এমন কোনো বোলার ওর কাছাকাছি কিছু করছে। এখন তো অনেক মিডিয়া। খুব অল্পতেই হাইলাইট হয়ে যায়। বাকিরাতাহলে কি করছে বুঝুন। এখনও যদি ৩৫-৩৬ বছরের মাশরাফি যদি টপে থাকে তাহলে বুঝতে হবে ওকে বিট করার কেউ নেই।’
 



প্রাইম ব্যাংকের ইনিংস শেষে ফিরছিলেন মাশরাফি। সানীর ওই বাউন্ডারি নিয়ে ব্যাখ্যা দিলেন কোচের কাছে,‘একটু স্লোয়ার পড়ে গিয়েছিল। আর আমিও বোকার মতো। প্রথম বলে স্লোয়ার দিছি। তারপর আবার মিড অফ ওপরে। ও জোরে মারছে চার হইছে। আস্তে মারলে তো দুই হতো। ’ কোচ,‘দেখলেন একটা বল নিয়ে কতটা চিন্তা। এই বয়সে যদি এগুলো ভাবে...আরেকজনকে তো দেখলেন। মিড অফ উপরে রেখে বল করছে পায়ের উপরে। থার্ড ম্যানও উপরে। এখনও এটা বুঝে না যে ১০ ওভার উইকেট না পেয়ে যদি ৩০ রান দেওয়া যায় তাহলে ওটা ইকোনমি বোলিং। উইকেট পেতেই হবে। দেইখেন এতো চেষ্টার পরওওই পাগলাই লিগের হাইয়েস্ট উইকেট টেকার হবে।’
 



মাশরাফি এখন টপ অব দ্য টেবিলে। নড়াইল এক্সপ্রেসের ধারেকাছেও কেউ নেই। ওয়ালটন ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ১৫ ম্যাচে ৩৮ উইকেট পেয়েছেন মাশরাফি। সোমবার মিরপুরে খেলাঘরের বিপক্ষে পেয়েছেন ৩ উইকেট। রবিউল ইসলাম রবিকে সাজঘরে ফিরিয়ে ‘পাগলা’ গড়েছেন অসাধারণ, অসামান্য এক কীর্তি।  ঢাকা লিগ লিস্ট ‘এ’ মর্যাদা পাওয়ার পর এক মৌসুমে সর্বোচ্চ ৩৫ উইকেট নেওয়ার রেকর্ড গড়েছিলেন পেসার আবু হায়দার রনি। বাঁহাতি এই পেসার গত মৌসুমে গড়েছিলেন এ কীর্তি। এক মৌসুমের ব্যবধানে মাশরাফি রেকর্ডটা ভাঙলেন। পুরো মৌসুমেই দারুণ ধারাবাহিক ডানহাতি পেসার। এক ম্যাচে হ্যাটট্রিকসহ পেয়েছিলেন ৬ উইকেট। লিগে ৫ উইকেট পেয়েছেন দুবার। ৪ উইকেটও পেয়েছেন দুবার। ২০ উইকেট পেয়েছেন এমন বোলারদের তালিকায় ইকোনমি রেট বিবেচনায় সেরা তিনে রয়েছেন আবাহনীর এ পেসার। বয়স যে শুধুমাত্র একটা সংখ্যা, তা আরেকবার মাশরাফি প্রমাণ করেছেন ঢাকা লিগে।

লিস্ট ‘এ’ মর্যাদা পাওয়ার পর ঢাকা লিগের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারিদের তালিকা
২০১৭/১৮: মাশরাফি বিন মুর্তজা (আবাহনী) ৩৮ উইকেট
২০১৭: আবু হায়দার রনি (গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স) ৩৫ উইকেট
২০১৬: চতুরঙ্গ ডি সিলভা (ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাব) ৩০ উইকেট
২০১৪/১৫: ইলিয়াস সানী (প্রাইম দোলেশ্বর স্পোটিং ক্লাব) ৩১ উইকেট
২০১৩/১৪: আরাফাত সানী (গাজী ট্যাংক ক্রিকেটার্স) ২৯ উইকেট

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২ এপ্রিল ২০১৮/ইয়াসিন/শামীম

Walton Laptop
 
     
Marcel
Walton AC