ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৭ আষাঢ় ১৪২৬, ২০ জুন ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

সুরের মূর্ছনায় স্নাত লোকসংগীত উৎসবের প্রথম দিন

রাহাত সাইফুল : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৮-১১-১৬ ১০:২০:৪৩ এএম     ||     আপডেট: ২০১৮-১১-১৬ ৩:০১:২২ পিএম
Walton AC 10% Discount

বিনোদন প্রতিবেদক : উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় লোকসংগীতের আসর ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক লোকসংগীত উৎসব’। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে শুরু হয়েছে এ উৎসবের চতুর্থ আসর। বাংলাদেশ ছাড়াও উৎসবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের খ্যাতিমান শিল্পীরা লোকসংগীত পরিবেশন করবেন।

‘ঢাকা আন্তর্জাতিক লোকসংগীত উৎসব ২০১৮’-এর প্রথম দিনের পরিবেশনা নৃত্যদল ভাবনার মাধ্যমে শুরু হয়। বরাবরের মতো এবারো জমকালো আয়োজনে মুখর ছিল রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামের চারপাশ। অনুষ্ঠানে নৃত্যদল ভাবনার নান্দনিক পরিবেশনা ছিল। বিশেষ করে ভাবনা তাদের দ্বিতীয় গান ‘হেই হেই’-এর তালে তালে নাচের পরিবেশনা শুরু করলে স্টেডিয়ামজুড়ে করতালি বাজতে থাকে। করতালিতে দারুণ উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠেন উপস্থিত দর্শকরা।

তাদের পরিবেশনার পর শুরু হয় লোকশিল্পী আবদুল হাই দেওয়ানের মনোমুগ্ধকর পরিবেশনা। ‘পিরিতের বাজার ভালো না’, ‘কোন দেশে রইলারে দয়াল’, ‘ভালোবাসিয়ারে বন্ধু’, ‘বন্ধুরে তোর জ্বালায় বাঁচি না’ এবং ‘তোমারও লাগিয়া’ গানগুলোর মাধ্যমে প্রথমদিনের দ্বিতীয় পরিবেশনায় শ্রোতাদের মুগ্ধ করেন আব্দুল হাই দেওয়ান। তার গান আর্মি স্টেডিয়ামে উপস্থিত প্রতিটি দর্শককে বিমোহিত করেছে। সুরের মূর্ছনায় স্নাত হাজারো শ্রোতা। তার পরেই মঞ্চে সুরের জাদু ছড়ান পোল্যান্ডের ব্যান্ড দল ‘সিকান্দা’। তাদের পরিবেশনাও ছিল নান্দনিক।

সিকান্দারের পরিবেশনার পরই শুরু হয় মঞ্চে উপস্থিত অতিথিবৃন্দের বক্তৃতা পর্ব। শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য দেন সান ফাউন্ডেশন ও সান কমিউনিকেশনস লিমিটেডের চেয়ারম্যান অঞ্জন চৌধুরী। এর পর বক্তব্য দেন ঢাকা উত্তরের মেয়র সাঈদ খোকন, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এবং অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত।

তাদের সংক্ষিপ্ত বক্তব্যের পরই মঞ্চে উঠে বঙ্গবন্ধুর প্রশংসা করেন ইন্ডিয়ান সংগীতশিল্পী সাত্যর্কি ব্যানার্জি। এর পর তিনি পরিবেশনা শুরু করেন। বাঙালি জীবনের একেবারে খাঁটি তিনটি গান পরিবেশন করেন তিনি। এগুলো হচ্ছে- ‘একলা নিতাই’, ‘পাল তুলে দে মাঝি হেলা করিস না’ এবং ‘বাঙালি করেছো ভগবান’।

কিছুক্ষণ বিরতি নিয়ে মঞ্চে উঠে ওয়াদালি ব্রাদার্স। সূফি গানের দরদি সুরের মূর্ছনায় তারা দর্শকদের ষোলআনা আনন্দে মাতিয়ে তোলেন। তারা ‘ইয়া মোহাম্মদ’ গান দিয়ে প্রথমদিনের শেষ পরিবেশনার প্রথম গান শুরু করেন। ওয়াদালি ব্রাদার্সের মনোমুগ্ধ পরিবেশনার মাধ্যমে ফোক ফেস্টের প্রথমদিনের সমাপ্তি ঘটে।
 


এবারের উৎসবে বাংলাদেশসহ বিশ্বের ৭টি দেশের শিল্পীরা অংশ নেবেন।গান করবেন মোট ১৭৪ জন সংগীতশিল্পী। এদের মধ্যে বাংলাদেশের শিল্পীরা হলেন মমতাজ বেগম, বাউল আব্দুল হাই দেওয়ান, বাউল কবির শাহ, নকশীকাঁথা, স্বরব্যাঞ্জো। ভারত থেকে আসবেন ওয়াদালি ব্রার্দাস, রাঘুদিক্সিত, সাত্যকি ব্যানার্জি, পাকিস্তান থেকে শাফকাত আমানাত আলী, বাহরাইন থেকে মাজায, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে গ্র্যামি বিজয়ী লস টেক্সমেনিয়াক্স, পোল্যান্ড থেকে দিকান্দা এবং স্পেনের লাস মিগাস সংগীত পরিবেশন করবেন।

তিন দিনব্যাপী ‘ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ফোক ফেস্ট-২০১৮’ উৎসবের পর্দা নামবে ১৭ নভেম্বর। ২০১৫ সাল থেকে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ফোক ফেস্ট। সাফল্যের ধারা অব্যাহত রাখতেই চতুর্থবারের মতো সান ফাউন্ডেশন ‘আন্তর্জাতিক লোকসংগীত উৎসব ২০১৮’-এর আয়োজন করেছে।

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৬ নভেম্বর ২০১৮/রাহাত/শান্ত

Walton AC
     
Walton AC
Marcel Fridge