ঢাকা, শনিবার, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

বন্যার ক্ষতি পোষাতে ফরিদপুরে সবজির আবাদ

মো. মনিরুল ইসলাম টিটো : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৭-১০-১৯ ৩:১২:০৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১০-১৯ ৩:১২:০৪ পিএম

ফরিদপুর প্রতিনিধি : বন্যার পানি সরে যাওয়ার পর থেকেই নানা ধরনের ফসল আবাদে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে ফরিদপুরের কৃষক।যাদের বেশির ভাগই এখন সবজি আবাদে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

সবজি চাষিরা মনে করছেন, তারা সবজি আবাদ থেকিই প্রত্যাশানুযায়ী লাভ করতে পারবেন। তাদের দাবি, তারা সবজির মূল্য ধরতে পারলে বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবেন ।

ফরিদপুর সদর উপজেলার নর্থচ্যানেল ইউনিয়নের কয়েকজন চাষি জানান, বন্যার পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে উঁচু জমিতে শুরু করেছেন আগাম শীতকালীন সবজির চাষ।

তারা জানান, প্রথমদিকে রোপণ করা জমি থেকে এরই মধ্যে সবজি তুলে বাজারে বিক্রিও শুরু করেছেন কেউ কেউ।  স্থানীয় বাজারগুলোতে এখন এসব শাকসবজির সমারোহ। আগাম শীতকালীন শাকসবজি চাষ করে লাভবান হচ্ছেন তারা।

বিভিন্ন এলাকার কৃষকদের দাবি, অনেকে কৃষি জমির পাশাপাশি বাড়ির আঙ্গিনায় শীতকালীন শাকসবজি চাষ করছেন। সে ক্ষেত্রে কৃষি অফিসও নানা ধরণের প্রনোদনা দিচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তারা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানিয়েছে, চলতি বছরের দু-দফার বন্যায় ফরিদপুর অঞ্চলের চাষিরা ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়ে। বন্যার পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে চাষিরা শুরু করে আগাম শীতকালীন সবজি চাষ। বর্তমানে চাষিদের খেতে শোভা পাচ্ছে বিভিন্ন প্রকার সবজি। চাষিরা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন সবজি খেত নিড়ানি ও পরিচর্যায়। বসে নেই কৃষানিরাও। অনেক চাষি সবজি বিক্রিও শুরু করেছেন। বাজারে সবজি বিক্রি করে ভাল দাম পাচ্ছেন তারা। কম খরচে বেশি লাভ হওয়ায় দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এই অঞ্চলে সবজির আবাদ।

এবছর বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জেলার চারটি উপজেলার অন্তত ১৫ টি ইউনিয়নের লক্ষাধিক পরিবার। এসব পরিবারের বড় অংশই কৃষি নির্ভর। বন্যায় জেলার ৬৮০২  জন কৃষকের ৯৮৯ হেক্টর জমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

কৃষি অফিস জানায়, জেলার চরভদ্রাসন, সদরপুর, বোয়ালমারী, মধুখালী ও সদর উপজেলাসহ সকল উপজেলায়ই ব্যাপকভাবে সবজির আবাদ করেছেন চাষিরা। বর্তমানে ওই সব এলাকার চাষিদের খেতে লাল শাক, পালং শাক, মুলা শাক, ধনে পাতা, শসা, বেগুন, লাউসহ বিভিন্ন প্রকারের সবজি শোভা পাচ্ছে।

এদিকে বিভিন্ন এলাকায় উৎপাদিত রাজধানীসহ বিভিন্ন জেলায় পাঠানো হচ্ছে। ফলে এসব এলাকার চাষিরা শীতকালীন আগাম সবজি উৎপাদন করে লাভবান হচ্ছেন।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, চলতি বছর ফরিদপুর জেলায় এবছর ৪২৫৭ হেক্টর জমিতে সবজির আবাদ হয়েছে।

ফরিদপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর উপ-পরিচালক কৃষিবিদ জি এম আব্দুর রউফ বলেন, ‘ আমরা কৃষি বিভাগ থেকে বিভিন্ন প্রকার সহযোগিতা দিচ্ছি। এবছরও প্রণোদনা স্বরুপ জেলার ৩৫০০ কৃষকের মধ্যে সরিষা বীজ-সার এবং ৬০জন কৃষকের মধ্যে বিটি বেগুনের বীজ- সার বিতরণ করা হয়েছে।



রাইজিংবিডি/ফরিদপুর/১৯ অক্টোবর ২০১৭/মো. মনিরুল ইসলাম টিটো/টিপু

Walton Laptop
 
     
Walton