ঢাকা, রবিবার, ৫ কার্তিক ১৪২৫, ২১ অক্টোবর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

বাংলা চলচ্চিত্র সাহিত্যের শেকড় থেকে বিচ্যুত হয়েছে: ঋতুপর্ণ ঘোষ

শিলু হোসেন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৬-০১ ৪:৪৮:০৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৭-২৯ ১:৫২:০৩ পিএম

খুব স্বাভাবিকভাবেই একটা মানুষ চায় পৃথিবীতে তার উত্তরসূরি রেখে যেতে। যে তার বংশ পরম্পরা ধারণ করবে। বিভিন্ন সময়ে হঠাৎ হঠাৎ তার কথা স্মরণ করবে। কিন্তু এই মানুষটির রক্তের কোনো উত্তরসূরি নেই। তবে রক্তের সম্পর্কের চেয়েও সুদৃঢ় সম্পর্ক গড়েছিলেন চলচ্চিত্রের সঙ্গে। জীবন নিয়ে তিনি খেলেছেন ঠিক অন্যভাবে। পুরুষ হয়ে নারী-মন বোঝার জন্যে জীবনের শেষ সময়গুলোতে তিনি লিঙ্গ রূপান্তর নিয়ে ব্যস্ত থেকেছেন। বিভিন্ন সময়ে তাকে নিয়ে বিভিন্ন মহলে নানা কথা উঠে এসেছে। তার জীবনে প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, ভালোবাসা-ঘৃণা সবই ছিল। কিন্তু এসবকে কাছে ভিড়তে না দিয়ে তিনি তার চিন্তা ফুটিয়ে তুলেছেন চলচ্চিত্রের পর্দায়। ১৯৯২ সালে ‘হীরের আংটি’ নির্মাণের মাধ্যমে তাঁর চলচ্চিত্রযাত্রা। এরপর একে একে নির্মাণ করেছেন ২১টি চলচ্চিত্র। অন্যান্য আন্তর্জাতিক পুরস্কার ছাড়াও শুধুমাত্র জাতীয় পুরস্কারই পেয়েছেন দশের ওপরে। গত ৩০ মে ছিল চলচ্চিত্রকার  ঋতুপর্ণ ঘোষের (১৯৬৩-২০১৩) পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী। ‘দ্য লাস্ট লিয়ার’ (২০০৮) মুক্তির সময় এই সাক্ষাৎকারটি গ্রহণ করেন তৃষা গুপ্তা। ‘তেহেলকা’ ম্যাগাজিনে সাক্ষাৎকারটি প্রকাশিত হয়। ঋতুপর্ণ ঘোষ স্মরণে সাক্ষাৎকারটি ভাষান্তর করে প্রকাশ করা হলো। ভাষান্তর করেছেন শিলু হোসেন

ভারতের বেশ কিছু চলচ্চিত্রকার আছেন যারা স্বতন্ত্রভাবে চিত্রনাট্য লিখছেন, আপনি তাদের মধ্যে একজন। চলচ্চিত্রকার হিসেবে ভাবার আগে আপনি কি নিজেকে একজন লেখক হিসেবে মনে করেন?
ঋতুপর্ণ ঘোষ: একটা বিজ্ঞাপন সংস্থার কপি রাইটার ছিলাম আমি। হ্যাঁ, শব্দ নিয়ে খেলতে আমি অভ্যস্ত। তবে নিজের চলচ্চিত্রের জন্য লিখতে আমি পছন্দ করি। এবং ঠিক যেমন অন্যের জন্য চিত্রনাট্য লিখতে আমি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি না, তেমনি অন্য কারো চিত্রনাট্যে কাজ করতেও আমার অস্বস্তি লাগে।

চলচ্চিত্রে আসার আগে আপনার মাথায় কয়টি চলচ্চিত্রের গল্প প্রস্তুত ছিল?
ঋতুপর্ণ ঘোষ: চলচ্চিত্রে সংশ্লিষ্ট হওয়ার অন্যতম দিক হচ্ছে আমার লেখালেখি। একটা লাইন যখন লিখি তখন আমি ঠিক জানি, এটার নির্দেশনা আসলে কেমন হবে, কীভাবে করা উচিত। তাই আমি খুব কারিগরি উপায়ে নির্দেশনা করি। নির্দেশনার কাজটা হচ্ছে কারিগরি, যেখানে লেখালেখিটা মুক্ত-বহমান। ঠিকঠাক ডায়ালগ পেতে চিত্রনাট্য নির্দেশনার জন্যে আগে আমার একজন লেখক ছিল। কিন্তু এখন এটা করার কোন প্রয়োজন আমার নেই। প্রধানত আমি কখনোই আমার চিত্রনাট্যকে সেভাবে ভালোবাসিনি, মাঝে মাঝে আমার সহকারী পরিচালকরা খুব বিস্মিত হতো যখন আমি বলতাম তারা কিছু পরিবর্তন ঘটিয়েছে। এটা একবারে কংক্রিট কিছু না, আমি শুধুমাত্র এটা লিখেছি।

নিজের ধারণা থেকে নির্মিত চলচ্চিত্র যেমন ‘তিতলি’ কিংবা ‘উৎসব’ এই দুইটি চলচ্চিত্রের সঙ্গে অন্যের কাহিনী নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্র- ধরুন ‘চোখের বালি’ কিংবা ‘দহন’ চলচ্চিত্রগুলোর মধ্যে সেরকম তুলনামূলক কোনো সম্পর্ক আছে কিনা?
ঋতুপর্ণ ঘোষ: আদৌ না। উপন্যাসের মূল ধারণাটা আমাকে উদ্বুদ্ধ করে। আমি শুধুমাত্র গল্পের চেতনাটাকে বিশ্বাস করি; গল্পের ক্ষেত্রে বিশ্বস্ত থাকার কোন প্রয়োজন মনে করি না। উদাহরণস্বরূপ, ‘চোখের বালি’ লেখা হয় ১৯০২ সালে এবং আমি এটাকে চলচ্চিত্রে রূপ দিই ২০০৩-এ। ঠাকুর নিজেও এই গল্পের শেষটা নিয়ে সন্তুষ্ট ছিলেন না। তার উপন্যাসটি শেষ হয় সব আশা-আকাঙ্খা পরিত্যাগ করে বিধবা বিনোদিনী বসবাস করতে যাচ্ছেন বেনারসে-এই ঘটনা দিয়ে। তবে আমার চলচ্চিত্র তার স্বাধীনতার উপর আলোকপাত করেছে। যখন বিনোদিনী তার চিঠিতে নিজের দেশ নিয়ে লিখছেন, যেটা শুধুমাত্র দেশ হিসেবে নয়, কোন জায়গা বা রাজ্য হিসেবে বিবেচনা করে পড়া উচিৎ। আমার চলচ্চিত্রের আরেকটা উল্লেখযোগ্য ব্যাপার হচ্ছে, বিনোদিনীর চাদরে লাল রঙের ব্যবহার। ১৯০২ খ্রিস্টাব্দে লাল এর অর্থ ছিল ‘আবেগ’। কিন্তু পুরো বিশ শতক আমাদের শিখিয়েছে, বিপ্লবের প্রতীকও লাল। তাই ২০০৩ সালে আমি যখন লাল রং ব্যবহার করছি তখন সেটা আর ‘আবেগ’ থাকেনি,  বিপ্লবে পরিণত হয়েছে। এখানে আমি ঠাকুরের চেয়ে এগিয়ে, কারণ গত একশ বছরে তার কোন অর্জন নেই।

কলকাতায় বেড়ে ওঠা, সেখানকার শিল্প, সাহিত্য ও চলচ্চিত্রের ঐতিহ্য একজন চলচ্চিত্রনির্মাতা হিসেবে আপনাকে কতটুকু প্রভাবিত করেছে?
ঋতুপর্ণ ঘোষ: প্রচুর। চিত্রকর পরিবারে জন্মেছি আমি, তাই ঠিক ছোটবেলা থেকেই চিত্রপ্রদর্শনীতে যুক্ত ছিলাম। এখন আমি বুঝতে পারি, আমার ভিজু্য়্যাল ট্রেনিং তখন থেকেই শুরু। আমি ইংলিশ মিডিয়ামে পড়লেও বাড়িতে মাতৃভাষা চর্চার কমতি ছিল না। আমার বয়স যখন ছয়, আমার বাবা আমাকে বাংলাভাষায় অনূদিত ‘মহাভারত’ উপহার দিয়েছিলেন। এবং আমি একটার পর একটা অধ্যায় সশব্দে পড়ে ফেলি। যদি কোন শব্দের অর্থ আমি বুঝতে না পারতাম যেমন, ভ্যু (চক্রভ্যু); তখন বাবা বলতেন, পড়তে থাকো, বুঝতে পারবে। আমাকে অভিধান দেখার চর্চার মধ্যে রাখতেন তিনি। এবং পেন্সিল ছাড়া অন্যকিছু দিয়ে বই দাগাতে নিষেধ করতেন। সেই থেকে আজ পর্যন্ত পত্রিকা পড়তে গেলে আমার হাতে একটা পেন্সিল থাকে।
সাউথ পয়েন্ট স্কুল থেকে যখন যাদবপুর ইউনিভার্সিটিতে গেলাম, তখন সেটা ছিল পটভূমি ও আদর্শের গলনপাত্র। কলকাতা তখন বামদের শহর হয়ে উঠেছে। বামপন্থী হয়ে ওঠা তখন প্রায় ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। অর্থনীতিতে পড়ার সময় আমিও মার্ক্স পড়েছিলাম। আমি চলচ্চিত্র উৎসবে যেতাম। সেখানে সত্যজিৎ রায়ের চলচ্চিত্র দেখে সিদ্ধান্ত নিই, চলচ্চিত্র নির্মাতাই হব আমি। এর আগেও তার কিছু চলচ্চিত্র আমি দেখি। কিন্তু ১৯৭৫ সালে ‘কলকাতা দূরদর্শন’ আসার পর সত্যজিতের সবগুলো চলচ্চিত্র দেখার পর আমার চোখ খুলে যায়। এ জন্যে টেলিভিশনের প্রতি আমি বিশেষভাবে কৃতজ্ঞ।

আপনি সত্যজিৎ রায়ের কথা বললেন। ৬০-এর দশক পর্যন্ত বাংলা চলচ্চিত্র খুব জনপ্রিয়। গত কয়েক দশকে সেরকম কিছু পরিবর্তন কি ঘটেছে?
ঋতুপর্ণ ঘোষ: আপনি জানেন, তপন সিনহা এবং তরুণ মজুমদারের মতো বাঙালি পরিচালকেরা জনপ্রিয় চলচ্চিত্রের দলে জায়গা করে নিয়েছেন। কারণ, তাদের জন্যে অন্য কোন জায়গা আমরা খুঁজে পাচ্ছি না। তারাও কিন্তু বাস্তববাদী। তবে তাদের বাস্তবতা নির্মাণের পদ্ধতিগুলো সত্যজিৎ রায়, ঋত্বিক ঘটক কিংবা মৃনাল সেন-এর থেকে ভিন্ন। বর্তমানে অভিনেতারা গ্রহণযোগ্য অভিনয়ের জন্যে কিছু নির্দিষ্ট ধরনের চলচ্চিত্রে কাজ করেন। বাংলা চলচ্চিত্রের শুরুর দিকে এটা কোনো ব্যাপারই ছিল না। এই বছর (২০০৮) সৌমিত্র  চট্টোপাধ্যায় যখন সেরা অভিনেতা হিসেবে জাতীয় পুরস্কার পেলেন। আমি বলছি, আপনি যদি তার একই ধাঁচের চলচ্চিত্রের অভিনয়টাকে পাশে সরিয়ে রাখেন তাহলে দেখবেন, শুধুমাত্র জনপ্রিয় চলচ্চিত্রে তার নিজস্ব ভূমিকার জন্যে তিনি এই পুরস্কার পেতে পারেন। একই লেখক, একই ধরনের ভাবপ্রবণতায় চলচ্চিত্রায়ণ করা হলো: অজয় কর-এর ‘সপ্তপদী’ এবং সত্যজিৎ রায়-এর ‘জলসাঘর’ দুটোই তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের গল্পে নির্মিত। শুধুমাত্র চলচ্চিত্রের নির্মাণশৈলীটা আলাদা। আমি মনে করি এখন বাংলা চলচ্চিত্র তার সাহিত্যের শেকড় থেকে বিচ্যুত হয়েছে। সংস্কৃতির সঙ্গে এর যে গভীর সম্পর্ক তাও নুইয়ে পড়েছে। তবে চলচ্চিত্র যে শুধু সাহিত্যিক সংশ্লিষ্টতায় থাকবে তা নয়। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নিজেই বলেছেন, এটা (গল্প-উপন্যাস) যদি শুধুমাত্র মূল গল্প থেকে একটু সরে যায় তাহলেই সেটা প্রকৃত চলচ্চিত্র হয়ে উঠবে। কিন্তু চলচ্চিত্রের দৃষ্টিভঙ্গি বাংলায় এখনো সেভাবে গড়ে ওঠেনি। এরা বর্ণনা করার প্রবণতা ছাড়তে পারে না, যে কারণে চলচ্চিত্রের গল্প নিকৃষ্ট মানের হয়ে ওঠে।

কোন ভারতীয় চলচ্চিত্র নির্মাতার কাজ আপনার ভালো লাগছে?
ঋতুপর্ণ ঘোষ: আবারো বলছি, ‘কলকাতা দূরদর্শন’ থেকে আমি হিন্দী, বাংলা সব ধরনের চলচ্চিত্র দেখেই বড় হয়েছি। আমি চলচ্চিত্রের বিচারক নই। যে কারণে আমি সব ধরনের চলচ্চিত্র বানাতে পারি নি কিন্তু সব ধরনের চলচ্চিত্র দেখতে পারি। আমার ইচ্ছানুযায়ী ‘রক অন’ও দেখতে পারি কিংবা ‘তারে জামিন পার’ও দেখতে পারি। আমি ফারহান আখতারের কাজও যেমন উপভোগ করতে পারি তেমনি ফারাহ খানের কাজও। নাসিরউদ্দীন শাহ’র প্রথম চলচ্চিত্র ‘ইউ হোতা তো কিয়া হোতা’ (২০০৬) আমার খুবই পছন্দ। বিশাল ভরদ্বাজের কাজও আমার খুব পছন্দ। এবং ‘হানিমুন ট্রাভেলস’ ও ‘মিথ্যা’সহ সব ধরনের নতুন চলচ্চিত্রই আমার খুব ভালো লাগে। আমি মনে করি, সঞ্জয় লীলা বানসালি একজন গুরুত্বপূর্ণ চলচ্চিত্র নির্মাতা। যদিও তার কিছু চলচ্চিত্র নিয়ে আমার ভিন্নমত রয়েছে। মনিরত্নম, আদর গোপালকৃষ্ণ, অপর্ণা সেন, শ্যাম বেনেগালসহ আরো অনেকের চলচ্চিত্রই আমার পছন্দের। শ্যাম বেনেগালকে আমি সর্বশেষ ভারতীয় রেঁনেসা বলে মনে করি।



আপনি শুধু বাঙালি অভিনেতাদের সঙ্গেই কাজ করেননি, প্রায় সময় বোম্বের অভিনেতাদের সঙ্গেও কাজ করেছেন। এমনকি দুটি চলচ্চিত্র বাংলা ভাষা ছাড়াও অন্য ভাষায় বানিয়েছেন। ‘রেইনকোট’ এবং ‘দ্য লাস্ট লিয়ার’ চলচ্চিত্র দুটি যে হিন্দী ও ইংরেজি ভাষায় নির্মাণ করলেন, সেটার কি অন্তর্নিহিত কিছু ব্যাপার ছিল?
ঋতুপর্ণ ঘোষ: ‘দ্য লাস্ট লিয়ার’ শুধুমাত্র ইংরেজিতেই নির্মাণ করা যেতে পারে। কিন্তু ‘রেইনকোট’ খুব সহজেই বাংলাতে হতে পারে। এটা সম্ভবত হিন্দীতে নির্মাণ করাই উচিৎ ছিল। কিন্তু আমি যদি শুধুমাত্র বাঙালি অভিনেতা নিয়েই কাজ করতে থাকি, তাহলে প্রতিভার এক বিশাল জায়গাকে আমার অস্বীকার করতে হবে। হিন্দীভাষী অভিনেতা দিয়ে বাংলা চলচ্চিত্র নির্মাণের চেয়ে, হিন্দীতে চলচ্চিত্র নির্মাণই আমার কাছে সহজ মনে হয়। ‘সানগ্লাস’ চলচ্চিত্রে যেমন বাংলা ও হিন্দী ভাষায় নাসিরউদ্দীন শাহ’র একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। হিন্দী-বাংলা দুই ধরনের ডায়ালগেই তিনি হিন্দী ভাষা ব্যবহার করেছেন, কারণ তিনি বাংলা বলতে পারেন না। আমি মনে করি, বহুভাষী চলচ্চিত্রের ধারণা নিয়ে আমাদের একটু ভেবে দেখা দরকার। যখন আমরা চলচ্চিত্রের সমন্বয় নিয়ে কথা বলি, তখন শুধু ভারতীয় চলচ্চিত্রের আন্তর্জাতিক চেতনা নিয়েই কথা বলি। কিন্তু দেশের ভিতরের চলচ্চিত্র নিয়ে আমরা ব্যাপক আলাপ করতে পারি। ‘রোজা’র মতো চলচ্চিত্রের কথায় ধরুন, যেখানে একজন তামিল মেয়ে বুঝতে পারে সে আর কারো সাথে যোগাযোগ করতে পারছে না এবং ভাষার পরিবর্তে সে প্রতীকী ভাষা ব্যবহার করে-এই ধরনের তিক্ততা হিন্দী ডাবিং থেকে হারিয়ে গেছে। এরকম সম্ভাবনাময় চলচ্চিত্রের বাজারজাত করার বুদ্ধি কেউ দেয় নি। আমরা রীতিবিরুদ্ধ চলচ্চিত্র নির্মাণ করি এবং গতানুগতিক চলচ্চিত্রের বাজারের সঙ্গে সেগুলোকে খাপ খাইয়ে নেওয়ার চেষ্টা করি। কিন্তু যদি নির্মিত চলচ্চিত্রের এক-পঞ্চমাংশও ঠিকঠাক বাজারজাত করা হয় তাহলে আমি আশা করি ভিন্ন ধরনের একটা চলচ্চিত্র শিল্প আমাদের গড়ে উঠবে।

আপনার চলচ্চিত্রে যেমন ‘দহন’ ‘বাড়িওয়ালি’ ‘অন্তরমহল’ ‘শুভ মহরত’-এর কেন্দ্রীয় চরিত্রে জটিল নারীচরিত্র দেখা যায়। যেখানে পুরষ চরিত্র অনুপস্থিত থাকে, অনেক সময় পুরুষ চরিত্রকে দুর্বলভাবে কিংবা দানবীয়ভাবে হাজির হতে দেখা যায়। এই চরিত্রায়ণের সঙ্গে আপনি কি একমত?
ঋতুপর্ণ ঘোষ: আমি মনে করি ‘দহন’-এ নারীকে মহিমান্বিত করেছি এবং পুরুষের প্রতি ভয়ঙ্কর বিচার করেছি, যেটা খুবই সোজা ছিল। কিন্তু দুর্বলতার বিষয়টি নিয়ে আমি খুবই আগ্রহী ছিলাম। আমি পিতৃতান্ত্রিকতার বিরোধী। একজন নারী ও অপরজন পুরুষ হলেও ‘দ্য লাস্ট লিয়ার’-এর হ্যারি চরিত্রটি থেকে ‘বাড়িওয়ালি’র বনলতার মধ্যে খুব বেশি পার্থক্য নেই। দু’জনই একটা ক্ষমতা কাঠামোর লোভ ও রাজনীতিতে পীড়িত। এটাকে আপনি ‘ধূর্ত পিতৃতন্ত্রশাসিত সমাজ’ বলতে পারেন।

কার্যত, শিল্পবিশ্বে, বিশেষভাবে চলচ্চিত্রে তারকার ধারণা যা আপনার অনেক চলচ্চিত্রের মধ্যেই দেখতে পাওয়া যায় সেই ‘উনিশে এপ্রিল’ এরপর ‘তিতলি’, ‘বাড়িওয়ালি’ এবং ‘শুভ মহরত’ থেকে ‘দ্য লাস্ট লিয়ার’-এর মধ্যে।
ঋতুপর্ণ ঘোষ: খ্যাতির সঙ্গে আসা ক্ষমতাগুলো অনুধাবনে আমার বেশ আগ্রহ আছে। এবং যেটার পেছনে মানুষের দুর্বলতা রয়েছে তা মানুষ অস্বীকার করতে চায়। এবং যে কারণে আমার কাজ দেখানো, ক্ষমতার চর্চা, নিয়ন্ত্রণ ও কারসাজির বিষয়গুলো সেখানে উপস্থিত রয়েছে।

মাঝে মাঝে একটা কথা শোনা যায় যে, আপনার চলচ্চিত্র পূর্ণাঙ্গ চলচ্চিত্র নয় কিংবা অনেকেই মনে করেন এগুলা ‘নাট্য-চিত্র’। এ ব্যাপারে আপনার জবাব কী?
ঋতুপর্ণ ঘোষ: যদি আউটডোরে শুট করা হয় তাহলে সেটা চলচ্চিত্র আর ইনডোরে করা হলে সেটা নাটক-এ ব্যাপারে মানুষের একটা সাধারণ ধারণা আছে। এই মানদণ্ডে বিচার করলে  শুধুমাত্র কুরোশাওয়ারটা চলচ্চিত্র, বার্গম্যানেরটা নয়। তাহলে ‘চেম্বার নাটক’ (ছোট কক্ষে অল্প অভিনেতা নিয়ে নির্মিত)-কে আপনি কী বলবেন? যেটা বার্গম্যানের প্রমাণিত চমৎকার চলচ্চিত্র। আমি বলছি না, বার্গম্যানের কিংবা আমার নির্মিত ‘রেইনকোট’ একটি মহান চলচ্চিত্র। কিন্তু ন্যায়সঙ্গত ধারায় আমার চলচ্চিত্রকে স্বীকৃতি না দেয়াটাকে আমি অগণতান্ত্রিকভাবেই দেখি কিছুটা।

এমন কোনো চলচ্চিত্র কি নির্মাণ করেছেন যেখানে অন্যান্য চলচ্চিত্রের তুলনায় আপনি একটু বেশি সংযুক্ত করেছেন?
ঋতুপর্ণ ঘোষ: যে চলচ্চিত্রগুলো নিন্দিত হয়েছে কিংবা দর্শক জনপ্রিয়তা পায়নি সেগুলোকে সংরক্ষণ করে রাখার প্রবণতা একজন চলচ্চিত্রকারের মধ্যে সব সময়ই থাকে। তাই আমি বলবো ‘অন্তরমহল’র কথা, যেটাকে আমি খুব শক্তিশালী চলচ্চিত্র বলে মনে করি এবং ‘অসুখ’ এবং ‘দোসর’ যেগুলো অল্প দেখা। তবে বলতেই হয়, ‘দ্য লাস্ট লিয়ার’র সঙ্গে আমি খুব বেশি যুক্ত।

‘হীরের আঙটি’ নামে আপনি শিশুতোষ চলচ্চিত্র এবং রহস্যমূলক চলচ্চিত্র ‘শুভ মহরত’ নির্মাণ করেছেন। এই ধরনের চলচ্চিত্র আবার জনপ্রিয়তা পাবে বলে আপনি কি মনে করেন?
ঋতুপর্ণ ঘোষ: রঙ্গ পিসিমা (‘শুভ মহরত’র চরিত্র রাখী) নিয়ে আমি একটি পুরো গোয়েন্দা সিরিজ নির্মাণ করতে চেয়েছিলাম। বাছ-বিচারহীন অপরাধের কাহিনী নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ একটু কঠিনই যেটা আমি ‘শুভ মহরত’-এ দেখানোর চেষ্টা করেছিলাম। একটা ধূসর চরিত্র, পুলিশের কোনো হস্তক্ষেপ নেই, কিচ্ছু নেই। গোয়েন্দা জানে অপরাধ কে করেছে কিন্তু তিনি কিছইু করছেন না। ইচ্ছাকৃতভাবেই নারীকে আমি অপরাধী এবং গোয়েন্দা হিসেবে দেখিয়েছি। কারণ জন্মগতভাবেই তারা অতিমাত্রায় সহনশীল। একটা খুব সাধারণ গল্প যেখানে শিকারী এবং শিকারের মধ্যে বুদ্ধিবৃত্তিক সম্পর্ক ছাড়া আর কোন সম্পর্ক নেই। কিন্তু কার্যকরীভাবে আপনি একজনের প্রতি আচ্ছন্ন না হলে কীভাবে এতোটা আবেগশূন্য হতে পারেন?

উৎপল দত্তের ‘আজকের শাহজাহান’কে কীভাবে আপনি ‘দ্য লাস্ট লিয়ার’ এ রূপান্তরিত করলেন? মূল নাটক থেকে চলচ্চিত্রের কি কিছু পরিবর্তন  হয়েছে?
ঋতুপর্ণ ঘোষ: কলেজের ছাত্রাবস্থায় আমি ‘আজকের শাহজাহান’ দেখেছিলাম এবং এটা খুব চলছিল। থিয়েটারের সঙ্গে চলচ্চিত্রের সম্পর্ক কী-সেই সময়ে এই প্রশ্নটি আমার মাথায় আসে। এবং উৎপলদাকে আমি বাংলার প্রেক্ষাপটে আনতে চেয়েছিলাম। হিন্দী চলচ্চিত্রে তিনি শুধুমাত্র কৌতুক অভিনেতা হিসেবে পরিচিত ছিলেন। কিন্তু তার মধ্যে চিত্রনাট্যকার হিসেবে কাজ করার সম্ভাবনা ছিল প্রবল। বয়স্কদের দূর্বলতা নিয়ে মূল নাটকটি লেখা। সেখানে শাহজাহান এবং তার কন্যা জাহানারার মধ্যে একটা সম্পর্ক রয়েছে অনুরূপভাবে লিয়ার এবং কর্ডেলিয়ার মধ্যেও এরকম সম্পর্ক রয়েছে। তাই যখন আমি বিশ্বজনীন আবেদন দিয়ে কিছু একটা করার চিন্তা করলাম তখন স্বাভাবিকভাবেই শেক্সপিয়রের কাছে চলে এলাম। আর এভাবেই ‘দ্য লাস্ট লিয়ার’ জন্ম নিল।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১ জুন ২০১৮/তারা

Walton Laptop
 
     
Walton