ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২৩ মে ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

বাক-শ্রবণ প্রতিবন্ধী : ইশারা ভাষা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠার ঘোষণা

হাসান মাহামুদ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৮-০২-০৭ ৫:১১:০৮ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০২-০৭ ৫:১১:০৮ পিএম
Walton AC

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধীদের জন্য ইশারা ভাষা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়েছেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন।

তিনি বলেন, ’৫২-তে আমরা ভাষার জন্য প্রাণ দিয়েছি। আমরা বাঙালিরাই ভাষার জন্য লড়াই করা পৃথিবীতে একমাত্র গর্বিত জাতি। বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা বিশেষভাবে ইশারা ভাষায় কথা বলে। বাংলাদেশে বসবাসরত ১ লাখ ৬০ হাজার বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য ইশারা ভাষা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এই ভাষার গুরুত্ব অনুধাবন করে খুব শিগগিরই এখানে একটি ইশারা ভাষা ইনস্টিটিউট নির্মাণ করা হবে।’

বুধবার আগারগাঁওয়ে সমাজসেবা অধিদপ্তরে অনুষ্ঠিত ‘বাংলা ইশারা ভাষা দিবস-২০১৮’ উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বাংলা ভাষায় ইশারা ভাষার গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মনের কথা প্রথম উপলব্ধি করেছিলেন। তিনি ২০০৯ সালে বইমেলায় প্রথম ইশারা ভাষার স্বীকৃতি প্রদান করেন। সুখের কথা হচ্ছে বর্তমানে ইশারা ভাষা ইউনিসেফ কর্তৃক বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি লাভ করেছে এবং সর্বত্র উদযাপিত হচ্ছে।’

বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি বলেন ‘বধির স্কুলের ছেলে মেয়েদের সাথে আমার একটা নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধীদের জন্য ইশারা ভাষা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বাংলা ইশারা ভাষাকে দেশের সর্বত্র পৌঁছে দিতে নানাবিধ কাজ করতে হবে। অনেক বিদেশি টেলিভিশনে ইশারা ভাষা নিয়ে কাজ হচ্ছে। আমাদের দেশে কেবল বিটিভি ও দেশ টিভি ইশারা ভাষা নিয়ে অনুষ্ঠান করে, যা সাধুবাদ পাবার যোগ্য। অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানে ইশারা ভাষা বিষয়ক কর্মকাণ্ড চালু করা প্রয়োজন।’

তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকার প্রতিবন্ধী সুরক্ষা আইন, ২০১৩ নামে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য আইন প্রণয়ন করেছে। বর্তমানে আমরা প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য দেশব্যাপী নানা উদ্যোগ গ্রহণ করছি। চাকরি ক্ষেত্রে বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধীদের নিয়োগের ক্ষেত্রে সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে।’

বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধীরা সমাজকল্যাণমন্ত্রীর কাছে একটি ইশারা ভাষা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠার দাবি করলে মন্ত্রী তাদের দাবি মেনে নিয়ে স্বল্প সময়ে একটি ইশারা ভাষা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. জিল্লার রহমান, সমাজসেবা অধিদপ্তরের অতিরিক্ত সচিব ও পরিচালক (কার্যক্রম) আবু মোহাম্মদ ইউসুফ, অতিরিক্ত সচিব ও পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) এ কে এম খায়রুল আলম, জাতীয় বধির ক্রীড়া ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ আহম্মেদ, এসডিএসএল এর সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান প্রমুখ।

সভায় সভাপতিত্ব করেন সমাজসেবা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক গাজী মোহাম্মদ নুরুল কবির।

প্রসঙ্গত, বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও আজ ‘বাংলা ইশারা ভাষা দিবস, ২০১৮’ দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় দেশব্যাপী উদযাপিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে সমাজসেবা অধিদপ্তর, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় ও বাক-শ্রবণ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট বেসরকারি সংগঠনের সমন্বয়ে কেন্দ্রীয়ভাবে বর্ণাঢ্য র‌্যালি এবং সমাজসেবা ভবনে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

এ বছর দিবসের প্রতিপাদ্য ‘ইশারা ভাষা উন্নয়নে, এগিয়ে যাব প্রতিজনে’।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮/হাসান/সাইফুল

Walton Laptop
     
Walton AC
Marcel Fridge