ঢাকা, সোমবার, ৩ আষাঢ় ১৪২৬, ১৭ জুন ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর মূলমন্ত্র স্বাধীনতা

ইয়াসিন : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৮-০২-১৪ ৮:৩২:৩৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০২-১৫ ৮:৩২:৩১ এএম
Walton AC 10% Discount

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ঘরোয়া ক্রিকেটে তার আক্রমণাত্মক অধিনায়কত্ব প্রশংসা কুড়িয়েছে অনেক। ওয়ানডে ফরম্যাটে তার নেতৃত্বে গাজী গ্রুপ জিতেছিল শিরোপা। বিপিএলে তার হাত ধরে বরিশাল বুলস খেলেছে ফাইনালে। বিসিএলে দুবারের চ্যাম্পিয়ন ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনকেও নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

সব মিলিয়ে অধিনায়কত্বের পূর্ণাঙ্গ প্যাকেজ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। সাকিবের বদলি হিসেবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে দায়িত্ব পেয়ে জাতীয় দলের অধিনায়কত্বের যাত্রা শুরু মাহমুদউল্লাহর। দলকে দারুণ নেতৃত্ব দিয়ে দেশকে দিয়েছিলেন ড্রয়ের স্বাদ। ঢাকা টেস্টে না পারায় কিছুটা ব্যাকফুটে আছেন। তবুও তার ওপরে আস্থা দেশের ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিসিবির।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে তার কাঁধেই বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব। দেশকে রঙিন জার্সিতে নেতৃত্ব দেওয়ার অপেক্ষায় মাহমুদউল্লাহ। রোমাঞ্চিত মাহমুদউল্লাহ জানালেন, নিজের সামর্থ্যের সবকুটু উজার করে দলকে দিতে চান সর্বোচ্চ সাফল্য। 

‘দায়িত্ব এসেছে, চেষ্টা করব দায়িত্বটা ভালোভাবে পালন করার। টি-টোয়েন্টি সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের ক্রিকেট। আপনি যদি স্কিলগুলো কাজে লাগাতে পারেন, সেটা পর্যাপ্ত। আমি নিজের দায়িত্বটা পালন করার চেষ্টা করব। টি-টোয়েন্টিতে  আমাদের একটা কোয়েশ্চেন মার্ক আছে। আমি বেশি চিন্তা করছি না। কিন্তু ওই জিনিসটা দূর করতে চাই’ -বলেছেন মাহমুদউল্লাহ।

আক্রমণাত্মক অধিনায়কত্ব মাহমুদউল্লাহর নেতৃত্বের মূল অস্ত্র। এটা প্রায় সবারই জানা। প্রতিপক্ষকে তাদের শক্তিমত্তার জায়গায় আঘাত করার অসীম সাহস তার। ঘরোয়া ক্রিকেটে নিজের উপস্থিত বুদ্ধি এবং বিচক্ষণতা কাজে লাগিয়ে নিশ্চিন্তে দায়িত্ব পালন করেছেন। কিন্তু জাতীয় দলের জার্সির ভার সামলানো কঠিন। আত্মবিশ্বাসী মাহমুদউল্লাহ জানালেন, দলের প্রত্যেককে নিয়ে নির্ভার হয়ে পালন করতে চান দায়িত্ব।

 



মাহমুদউল্লাহর ভাষ্য, ‘যেহেতু আমি দায়িত্ব পেয়েছি, আমি আমার তরফ থেকে চেষ্টা করব। যেভাবেই চেষ্টা করি, খেলোয়াড়দের কাছ থেকে সেরা আউটপুট বের করে নেওয়ার চেষ্টাই করব। আমি সব সময় বিশ্বাস করি, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে আপনি যদি খেলোয়াড়দের অনুপ্রাণিত এবং স্বাধীনতা দিতে না পারেন, তাহলে পারফর্ম করার সুযোগ কমে আসে। অফ দ্য ফিল্ড  ও অন দ্য ফিল্ড একই কাজটা করার চেষ্টা করব। আমাদের দলে যেহেতু নতুন মুখ আছে বেশ কজন। ওদের ওপর যাতে কম চাপ দেওয়া যায়, ওদেরকে পারফর্ম করার সুযোগটা দেব। আবার দলে বেশ কজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড় আছে। আমরা সবাই মিলে চেষ্টা করব সেরা ক্রিকেটটা যেন খেলতে পারি।’

ত্রিদেশীয় সিরিজ ও টেস্ট সিরিজে বাংলাদেশ পায়নি প্রত্যাশিত সাফল্য। তবুও টি-টোয়েন্টিতে নিজেদের এগিয়ে রাখলেন মাহমুদউল্লাহ। তার বিশ্বাস, ক্রিকেটের সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে ঘুরে দাঁড়াতে পারবে বাংলাদেশ।

‘ঘরের মাটিতে আমরা যার বিরুদ্ধেই খেলি, আমি আমাদের দলকে এগিয়ে রাখব। যদিও আমরা টেস্ট ও ওয়ানডেতে আশানুরূপ পারফরম্যান্স করতে পারিনি। আমরা এবার অনেক আশাবাদী। আমরা ঘুরে দাঁড়াতে পারব এবং ভালো ক্রিকেট খেলেই ঘুরে দাঁড়াতে পারব’- বলেন মাহমুদউল্লাহ।

আত্মবিশ্বাসী মাহমুদউল্লাহ বড় স্বপ্ন দেখিয়েছেন। টেস্টে তার যাত্রা শুরু হয়েছিল দারুণভাবেই। এবার টি-টোয়েন্টির পালা। বলটা বাংলাদেশের কোর্টে। শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে জয়ের স্বাদ দিতে পারেন কি না, সেটাই দেখার।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮/ইয়াসিন/পরাগ

Walton AC
     
Walton AC
Marcel Fridge