ঢাকা, শনিবার, ৫ কার্তিক ১৪২৫, ২০ অক্টোবর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

শীর্ষে পৌঁছানোর প্রত্যয়ে মার্সেলের পরিবেশক সম্মেলন

অগাস্টিন ‍সুজন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৪-২৫ ৫:৪২:৪৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৬-০৪ ৭:৩৬:২৬ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রযুক্তিপণ্যের উৎপাদন ও বিপণন শিল্পে ব্যাপক পরিবর্তন আসছে। পরিবর্তনশীল এই বাজারে শীর্ষ অবস্থানে পৌঁছানোর প্রত্যয়ে অনুষ্ঠিত হলো দেশীয় ব্র্যান্ড মার্সেলের পরিবেশক সম্মেলন। সম্মেলনে পরিবেশকদের গ্রাহক ব্যাংক তৈরির পরামর্শ দেন মার্সেল কর্তৃপক্ষ।

বুধবার গাজীপুরের চন্দ্রায় মার্সেল কারখানায় অনুষ্ঠিত হয় দিনব্যাপী পরিবেশক সম্মেলন। এতে অংশ নেন সারা দেশ থেকে আসা মার্সেলের পরিবেশকরা। সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন গ্রুপ ভাইস-চেয়ারম্যান এসএম নূরুল আলম রেজভি, মার্সেল এন্টারপ্রাইজের চেয়ারম্যান এসএম শামসুল আলম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক এসএম আশরাফুল আলম, এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর ইভা রিজওয়ানা, নজরুল ইসলাম সরকার, এসএম জাহিদ হাসান, সিরাজুল ইসলাম ও হুমায়ূন কবির, মার্সেলের বিপণন বিভাগের প্রধান ড. মো. সাখাওয়াৎ হোসেন, ফার্স্ট সিনিয়র অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর ফিরোজ আলম, চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন ও আমিন খান প্রমুখ।

সম্মেলনের শুরুতে প্রতিষ্ঠাতা গ্রুপ চেয়ারম্যান মরহুম এসএম নজরুল ইসলামের বিদেহি আত্মার মাগফেরাত কামনায় দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এরপর মার্সেলের পরিবেশক ও ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তারা মিলে কেক কাটেন।

 



এর আগে সকালে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মার্সেলের পরিবেশকরা কারখানায় এসে পৌঁছান। তাদের আগমনে কারখানা প্রাঙ্গণে উৎসবমুখর পরিবেশ তৈরি হয়। পরিবেশকদের ফুল দিয়ে স্বাগত জানানো হয়। এরপর তারা বিশ্বের লেটেস্ট প্রযুক্তি ও মেশিনারিজ সমৃদ্ধ মার্সেলের অত্যাধুনিক কারখানায় বিভিন্ন পণ্যের উৎপাদন প্রক্রিয়া পরিদর্শন করেন।

মার্সেল এন্টারপ্রাইজের চেয়ারম্যান এসএম শামসুল আলম বলেন, আগে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ লেখা পণ্য কিনতে মানুষ দ্বিধাবোধ করতো। কিন্তু এখন পণ্যের উচ্চমানের কারণে ক্রেতাদের মাঝে দেশীয় পণ্যের প্রতি আস্থা ও বিশ্বাস তৈরি হয়েছে। যে কারণে এখন বিদেশি পণ্যও বাংলাদেশে তৈরি বলে চালানোর চেষ্টা চলছে।

মার্সেল এন্টারপ্রাইজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আশরাফুল আলম বলেন, ইলেকট্রনিক্স পণ্যের জগতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এসেছে। সেই পরিবর্তনের ধারায় মার্সেলের মার্কেট বড় হচ্ছে। বাংলাদেশের ইলেকট্রনিক্স পণ্যের বাজারে মার্সেল দ্বিতীয় অবস্থানে। অগ্রগতির এই ধারা অব্যাহত থাকলে শিগগিরই মার্সেল শীর্ষে পৌঁছাবে। প্রতিটি ঘরে ঘরে মার্সেলের পণ্য ও সেবা চলে যাবে। তিনি বলেন, মার্সেল এমনভাবে নেতৃত্ব দিতে চায়, যাতে ইলেকট্রনিক্স পণ্যে বিশ্বের শীর্ষ দেশ হিসেবে বাংলাদেশ আবির্ভূত হতে পারে।

 



মার্সেলের দুই শতাধিক মডেলের ফ্রিজ রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আরো নতুন নতুন ডিজাইনের পণ্য আসছে। যা মার্সেলের মার্কেট শেয়ার বাড়ানোর গতিকে ত্বরান্বিত করবে। নতুন রূপে, নতুন শক্তিতে মার্সেল এগিয়ে যাবে।

মার্সেলের বিপণন বিভাগের প্রধান ড. মো. সাখাওয়াৎ হোসেন বলেন, এ বছর বাংলাদেশের বাজারে ৬০০ কোটি টাকার পণ্য বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। লক্ষ্য অর্জনে মার্সেল ডিস্ট্রিবিউটরদের উৎসাহিত করাই সম্মেলনের মূল উদ্দেশ্য। এজন্য আধুনিক বিপণন ব্যবস্থার বিভিন্ন কলাকৌশল নিয়ে তাদের প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা দেওয়া হয়।

সম্মেলনে সেরা পরিবেশকদের পুরস্কৃত করা হয়। সবশেষে ছিল মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৫ এপ্রিল ২০১৮/অগাস্টিন সুজন/সাইফ

Walton Laptop
 
     
Walton