ঢাকা, শুক্রবার, ২ ভাদ্র ১৪২৫, ১৭ আগস্ট ২০১৮
Risingbd
শোকাবহ অগাস্ট
সর্বশেষ:

‘ইসলামিক ব্যাংকিংয়ে আমানত ও ঋণে উচ্চ প্রবৃদ্ধি হয়েছে’

নাসির উদ্দিন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৬-০৪ ৪:৩৪:১৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৬-০৪ ৭:২৪:২৮ পিএম

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) এক গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রচলিত ব্যাংকিংয়ের চেয়ে ইসলামিক ব্যাংকিংয়ে আমানত ও ঋণে উচ্চ প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

মঙ্গলবার রাজধানীর মিরপুরে বিআইবিএম অডিটোরিয়ামে ‘ইসলামিক ব্যাংকিং অপারেশনস অব ব্যাংকস’শীর্ষক বার্ষিক পর্যালোচনা কর্মশালায় উপস্থাপিত গবেষণা প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৭ সালে প্রচলিত ব্যাংকগুলোতে ঋণের গড় প্রবৃদ্ধি ছিল সাড়ে ১৮ শতাংশ। সেখানে ইসলামিক ব্যাংকিংয়ে ঋণের প্রবৃদ্ধি ২২ দশমিক ৩১ শতাংশ। প্রচলিত ব্যাংকে ২০১৭ সালে আমানতের প্রবৃদ্ধি ছিল ১০ দশমিক ৭৬ শতাংশ। সেখানে ইসলামিক ব্যাংকিংয়ে তা প্রায় ১৩ শতাংশ।

কর্মশালায় গবেষণা প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন বিআইবিএমের সহযোগী অধ্যাপক মো. আলমগীর। গবেষণাদলে অন্যদের মধ্যে ছিলেন বিআইবিএমের সহকারী অধ্যাপক ড. মো. মহব্বত হোসেন, তোফায়েল আহমেদ এবং এক্সিম ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং হেড অব শরিয়াহ সেক্রেটারিয়েট আবুল কাশেম মো. সাইফুল্লাহ।

কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এবং বিআইবিএমের নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান আবু হেনা মোহা. রাজী হাসান বলেন, ইসলামিক ব্যাংকিং ব্যবস্থাকে আরো সুদৃঢ় করতে বাংলাদেশ ব্যাংক কাজ করছে। এরই মধ্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ইসলামিক ব্যাংকিংয়ের সঙ্গে সম্পর্কিত ব্যাংকগুলোকে আলাদা সেল করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সব ধরনের কমপ্লায়েন্স বজায় রেখে এবং শরিয়াহর মূল নীতি বজায় রেখে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

তিনি বলেন, সকল ইসলামিক ব্যাংক বা শাখায় শরিয়াহ সুপারভাইজরি কমিটি বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। একই সঙ্গে কেন্দ্রীয়ভাবে শরিয়াহ বোর্ড করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

ইসলামিক ব্যাংকিংয়ের পরামর্শক এম আজিজুল হক বলেন, ইসলামিক ব্যাংকিংয়ের ধারণা ঠিক না করেই ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। মালয়েশিয়াসহ কয়েকটি দেশ ইসলামিক ব্যাংকিং অনেক দূর এগিয়েছে। বাংলাদেশেও ইসলামিক ব্যাংকিংয়ে ভালো করার সুযোগ রয়েছে। এজন্য ব্যাংকারদের এ ধরনের ব্যাংকিংয়ের ওপর বিশেষ প্রশিক্ষণ জরুরি।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনের সময় বিআইবিএমের সহযোগী অধ্যাপক মো. আলমগীর বলেন, ইসলামিক ব্যাংকিংয়ে পরিসর অনেক বেড়েছে। কিন্তু সে তুলনায় দক্ষ জনবল না থাকায় সঠিকভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছে না। এ অবস্থায় বিশেষ সার্টিফিকেশন কোর্স চালু করতে হবে। যেখানে ব্যাংকারদের ইসলামিক ব্যাংকিংয়ের ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করতে হবে। এসব সার্টিফিকেটধারী অভিজ্ঞ ব্যাংকার পদন্নোতি এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে বিশেষ সুযোগ পাবে।

বিআইবিএমের চেয়ার প্রফেসর এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের প্রাক্তন অধ্যাপক ড. বরকত-এ-খোদা বলেন, ইসলামিক ব্যাংকিংয়ের রিবার বিষয়টি আরো বিশ্লেষণ করার সুযোগ রয়েছে। কারণ রিবা এবং সুদের বিষয়ে অনেকে আপত্তি তোলেন।

পূবালী ব্যাংকের প্রাক্তন ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং বিআইবিএমের সুপারনিউমারারি অধ্যাপক হেলাল আহমদ চৌধুরী বলেন, ইসলামিক ব্যাংকিংয়ের জন্য অনেক সার্কুলার আছে। কিন্তু কোনো ধরনের আইন নেই। আইন থাকলে পরিপূর্ণ কার্যক্রমে সহায়ক হয়। ইসলামিক ব্যাংকিংয়ে আরো নতুন নতুন পণ্য এনে গ্রাহকদের কাছে আরো জনপ্রিয় করার সুযোগ রয়েছে।

এক্সিম ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ হায়দার আলী মিয়া বলেন, ইসলামিক ব্যাংকিং ব্যবস্থায় তারল্য সংকট দূর করা যত সহজ প্রচলিত ব্যাংকিং ব্যবস্থায় তা সম্ভব নয়।

তিনি ইসলামিক ব্যাংকিংয়ের ক্ষেত্রে দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তোলার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রাক্তন নির্বাহী পরিচালক ও বিআইবিএমের সুপারনিউমারারি অধ্যাপক ইয়াছিন আলি বলেন, ইসলামিক ব্যাংকিং এখন ধর্মীয় বিষয়ের মধ্যে আবদ্ধ নেই। মালয়েশিয়ার ৬০ শতাংশ গ্রাহক ইসলামিক ব্যাংকিংয়ের গ্রাহক। অনেক বিদেশী ব্যাংক ইসলামিক ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করে সাফল্য পেয়েছে। সুতরাং দক্ষতার সঙ্গে ইসলামিক ব্যাংকিংয়ের সুযোগ রয়েছে।

কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন বিআইবিএমের মহাপরিচালক ড. তৌফিক আহমদ চৌধূরী। তিনি ইসলামিক ব্যাংকিংয়ে প্রবৃদ্ধির চেয়ে কমপ্লায়েন্সের ওপর বেশি গুরুত্ব আরোপ করার জন্য ব্যাংকগুলোকে পরামর্শ দেন।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/৪ জুন ২০১৮/নাসির/রফিক

Walton Laptop
 
     
Walton