ঢাকা, বুধবার, ১০ শ্রাবণ ১৪২৪, ২৬ জুলাই ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

প্রয়োজন নিয়মিত পরীক্ষা ও সচেতনতা

আলী নওশের : রাইজিংবিডি ডট কম
প্রকাশ: ২০১৭-০২-২৮ ৩:৫৮:১৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৩-২১ ৩:২০:২৭ পিএম

বিভিন্ন স্থানে প্রায়ই গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটছে। এতে হতাহতসহ আর্থিক ক্ষয়ক্ষতিও হচ্ছে প্রচুর। সর্বশেষ শনিবার বিকালে রাজধানীর লালবাগ এলাকায় চকবাজারে একটি বাড়ির নিচতলার এক বেকারিতে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে সাতজন দগ্ধসহ নয়জন আহত হন। এর মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। পত্রিকায় প্রকাশিত খবর থেকে জানা গেছে, দগ্ধদের মধ্যে সোমবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নিম্নমানের সিলিন্ডার ব্যবহারের কারণেই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটছে। এসব নিম্নমানের সিলিন্ডারের পরিবর্তে মানসম্মত সিলিন্ডার ব্যবহার করতে হবে। তা না হলে শুধু হোটেল কিংবা বাসা-বাড়িই নয় যানবাহনে যে সিলিন্ডার ব্যবহার হয় সেসব থেকেও মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। বিষয়টির প্রতি সংশ্লিষ্টদের নজর দেওয়া উচিত।

বিশেষজ্ঞদের মতে, গাড়িতে যে সব গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহৃত হয়, সেসব সিলিন্ডারে প্রতি বর্গইঞ্চিতে ৩ হাজার ২০০ পাউন্ড চাপে গ্যাস ভরা হয়। এই  সিলিন্ডার সঠিক মানের না হলে যে কোনো সময় ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটার আশঙ্কা থাকে। নিয়মানুযায়ী সিলিন্ডার ও কিটস পাঁচ বছর পরপর রি-টেস্ট করা প্রয়োজন। তা নাহলে যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে যেকোন স্থানে।

কিন্তু নির্দিষ্ট সময়ে গ্যাস সিলিন্ডারের  ক্যাপাসিটি টেস্ট করানোর কথা থাকলেও অনেকেই তা মানছে না। ফলে ক্রমে এসব সিলিন্ডার ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে হয়ে উঠছে। আবার নিম্নমানের ও পুরাতন কমপ্রেসার দিয়ে সিলিন্ডার তৈরি করায় তা নির্দিষ্ট সময়ের আগেই নষ্ট যায়। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি। এ ধরনের দুর্ঘটনা কমিয়ে আনতে মানসম্মত সামগ্রী ব্যবহারের পাশাপাশি সিলিন্ডার ব্যবহারে সংশ্লিষ্টদের প্রশিক্ষণ থাকা প্রয়োজন।

বিস্ফোরক অধিদফতরের মতে, মেয়াদোত্তীর্ণ একেকটি সিলিন্ডার একটি বোমার চেয়েও ভয়াবহ। এ বিষয়ে অনেকই সচেতন নন। আবার ঝুঁকি জেনেও অনেকে নিয়মিত গ্যাস সিলিন্ডার পরীক্ষা করাচ্ছেন না। সংশ্লিষ্টদের মতে আইন করে বিআরটিএ’র ফিটনেস নেওয়ার সময় সিলিন্ডার রি-টেস্ট করানো বাধ্যতামূলক করা হলে এ ধরনের ঝুঁকি কমবে। এতে সবাই সচেতন হবে এবং  প্রাণহানির ঝুঁকি কমবে ও যানবাহন নিরাপদ থাকবে।

আমাদের প্রত্যাশা সিলিন্ডার বিস্ফোরণজনিত দুর্ঘটনাসহ অন্যান্য দুর্ঘটনার মাত্রা ও ক্ষয়ক্ষতি বন্ধে সরকার সচেতনতা বৃদ্ধিসহ সব ধরনের পদক্ষেপ নেবে।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭/আলী নওশের/তৈয়বুর

Walton Laptop