ঢাকা, শনিবার, ৮ আশ্বিন ১৪২৪, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

বিধিমালা ও নিরাপত্তায় নজর দেওয়া জরুরি

আলী নওশের : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৩-১৫ ৫:৩৮:৩২ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৪-২৪ ৪:০৮:৫১ পিএম

রাজধানীতে নির্মাণকাজের সময় আবারো এক শ্রমিকের প্রাণ গেল। রোববার রাতে মালিবাগ রেলগেট এলাকায় নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের গার্ডার তোলার সময় তা ক্রেন থেকে পড়ে এক শ্রমিক নিহত হয়েছে। এছাড়া গুরুতর আহত হয়েছেন এক প্রকৌশলীসহ দুজন।

রাজধানীতে নির্মাণ কাজে মাঝে মাঝেই দুর্ঘটনা এবং তাতে প্রাণহানি ঘটছে। এর আগে গত বছর এই মার্চেই নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের ইস্কাটন অংশে মাথায় লোহার রড পড়ে এক জনের মৃত্যু হয়। শুধু রাজধানীতে নয়, ঢাকার বাইরেও দুর্ঘটনা ঘটেছে। বন্দরনগরী চট্টগ্রামে ২০১২ সালে বহদ্দারহাটে ফ্লাইওভার নির্মাণকালে গার্ডার ভেঙ্গে ১৫ জন নিহত হয়।

দেখা গেছে, পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছাড়াই উড়ালসড়কের মতো বড় প্রকল্পের কাজ চলছে। শুধু উড়ালসড়ক নয়, ভবন নির্মাণকাজেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে শ্রমিকরা কাজ করছেন নিরাপত্তা উপকরণ ছাড়া। খোলা জায়গায় সম্পূর্ণ অরক্ষিত অবস্থায় কাজ চলায় ঝুঁকিও থাকছে ব্যাপক। প্রতিদিন এইরকম জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অনেক শ্রমিক কাজ করছেন।

বড় ধরনের নির্মাণ কাজের সময় দুর্ঘটনা ঘটা অস্বাভাবিক নয়। কিন্তু দুর্ঘটনা যাতে না ঘটে সেজন্য সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থা ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকা জরুরি। ছোট বড় সব প্রতিষ্ঠানেরই উচিত নিরাপত্তার দিকটা বিবেচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা। নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ- যেমন সেফটি বেল্ট, গামবুট হেলমেটসহ সব কিছু সরবরাহ করা উচিত। আর শ্রমিকরা এসব পরে কাজ করছেন কি না তাও প্রতিনিয়ত নজরদারি করা প্রয়োজন।

দেশে প্রায়ই দেখা যায় বড় বড় প্রকল্পের কাজ সময়মতো শেষ হয় না। রাজধানীতে এমনিতেই মগবাজার-মৌচাক ফ্লাইওভার প্রকল্পের নির্মাণে অনিয়ম, অবহেলা ও দীর্ঘসূত্রতায় ইস্কাটন-শান্তিনগর-মালিবাগ ও আশপাশ এলাকার মানুষের জীবন এখন ওষ্ঠাগত। তার ওপর রড, বালু, খোয়া ও রাবিশের স্তূপ রাস্তা জুড়ে ছড়িয়ে থাকায় চলাচলে বেশ দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।

দেখা যায়, শ্রমিকদের বিশেষ নিরাপত্তা পোশাক দূরের কথা, সাধারণ হেলমেট ছাড়াই কাজ করতে হচ্ছে। উঁচু ভবনে রাজমিস্ত্রির কাজের সময় নিরাপত্তা ব্যবস্থা প্রায়শ থাকে না। দিনের বেলা এমনভাবে ওপরে রড তুলতে দেখা যায় কিংবা ওপর থেকে নানা ধরনের জিনিস ফেলতে দেখা যায়, যা যেকোনো সময় নিচে চলাচলকারী মানুষের মাথায় পড়তে পারে। রোববারের ঘটনা রাতে না হয়ে দিনের বেলা ঘটলে কি হতো, তা ভেবে শিউরে উঠতে হয়!

আমরা চাই, গার্ডার পড়ে হতাহতের ঘটনার দ্রুত সুষ্ঠু তদন্ত এবং দায়িত্বে অবহেলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক। যে বা যারা এই অবহেলার জন্য দায়ী, তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

দুর্ঘটনায় নিহত ও আহতদের জন্য উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। চলমান ও ভবিষ্যতের সব প্রকল্পের নির্মাণকাজে নিরাপত্তা ও জনসাধারণের সুযোগ-সুবিধা বজায় রাখতে যথাযথ মান অনুসরণ করতে হবে। বড় বড় নির্মাণ প্রকল্প কতটা নির্মাণ বিধিমালা ও নিরাপত্তা-সতর্কতা নিয়ে চলছে সেদিকে নজর দেওয়া প্রয়োজন। আমরা আশা করি, অবিলম্বে কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৫ মার্চ ২০১৭/আলী নওশের/শাহনেওয়াজ

Walton Laptop