ঢাকা, বুধবার, ৪ মাঘ ১৪২৪, ১৭ জানুয়ারি ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে

আলী নওশের : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-১০-২১ ৬:২৪:২৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১১-১১ ৭:৩৪:৫৯ পিএম

অনেক দ্রুত ও কার্যকরভাবে অর্থ লেনদেনের অন্যতম মাধ্যম পেপালের জুম সেবা আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করেছে বাংলাদেশে। ১৯ অক্টোবর ঢাকায় এ সেবার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য-প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। এই সেবা চালু আর্থিক খাতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সেবা সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে বড় ধরনের অগ্রগতি। দেশের আর্থিক খাতে একটি বড় মাইলফলক হয়ে থাকবে এই জুম সেবার উদ্বোধন। তথ্যপ্রযুক্তি সমৃদ্ধ যে ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন আমরা দেখছি, নতুন এই সেবার মধ্য দিয়ে তা সমৃদ্ধ হবে।

এতদিন প্রবাসীরা বিভিন্ন চ্যানেলে তাদের কষ্টাজিত অর্থ দেশে পাঠাতেন। এতে যেমন পয়সা খরচ বেশি হতো তেমনি করে অনেক বিড়ম্বনাও পোহাতে হতো। পেপালের জুম সেবা চালুর মাধ্যমে এখন থেকে তারা সহজেই পেপালের অ্যাকাউন্ট থেকে বাংলাদেশে ৪০ মিনিট থেকে দুই ঘণ্টার মধ্যে টাকা পাঠাতে পারবেন। এ ছাড়া, যাদের যুক্তরাষ্ট্রে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট আছে তারা পেপাল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার ছাড়াই জুম অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে বিদেশে থেকে টাকা পাঠাতে পারবেন।

‘জুম’ মার্কিন কোম্পানি পেপাল হোল্ডিংসের অংশ হিসেবে বিশ্বব্যাপী অনলাইন পেমেন্ট সিস্টেম হিসেবে কাজ করে। এটি অনলাইনে অর্থ স্থানান্তর পদ্ধতি ও প্রচলিত কাগুজে পদ্ধতির পরিবর্তে ইলেকট্রনিক মাধ্যম। বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম ইন্টারনেট পেমেন্ট কোম্পানি হিসেবে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ফ্রিল্যান্সারদের কাছে এটি জনপ্রিয়। আমাদের বিশ্বাস, পেপালের জুম সেবা চালুর মধ্য দিয়ে দেশের কর্মসংস্থান বৃদ্ধি ও বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও অন্যান্য দেশের সঙ্গে এই সেবা ক্রমে সম্প্রসারিত হবে।

পেপালের জুম সেবার উদ্বোধনকালে সজীব ওয়াজেদ জয় এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে, এ সেবা চালু হওয়ার ফলে হুন্ডি কমে আসবে এবং রেমিট্যান্স বাড়বে। আমরা মনে করি তার এই আশাবাদ যথার্থ। বাংলাদেশে এ সেবা চালুর বিষয়ে অনেক দিন ধরেই কথাবার্তা চলছিল।  ফ্রিল্যান্সাররা বিশেষত  সেসব তরুণ যারা  দেশে বসেই বিদেশি বিভিন্ন কোম্পানির হয়ে কাজ করছিলেন, তারা এই সেবা চালুর দাবি জানিয়ে আসছিলেন দীর্ঘদিন ধরেই। কেননা সাধারণ মাধ্যমে নিজেদের কষ্টের পারিশ্রমিক আনা যেমন সময়সাপেক্ষ, তেমনই ব্যয়বহুল।

এখন তাদের সেই দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা এখন পূরণ হবে। পেপালের জুম সেবা চালুর ফলে ৪০ মিনিট থেকে দুই ঘণ্টার মধ্যেই অর্থ আদান সম্ভব হবে। বর্তমানে এই সেবা মূলতঃ পরীক্ষামূলক। শুধু যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের মধ্যেই জুম সেবা ব্যবহার করা সম্ভব হবে। এছাড়া এখনও এটা 'ইনবাউন্ড' বা শুধু যুক্তরাষ্ট্র থেকে অর্থ আসবে; বাংলাদেশ থেকে পাঠানো সম্ভব হবে না। আর বিদেশ থেকে সেবাটির মাধ্যমে আসা অর্থ উত্তোলন করা যাবে শুধু সরকারি-বেসরকারি নয়টি ব্যাংক থেকে।

প্রাথমিক অবস্থায় আমরা মনে করি, ভবিষ্যতের ভালোর জন্যই এই সীমাবদ্ধতা থাকা বাঞ্ছনীয়। কেননা  নতুন এই সেবার কার্যকারিতা কিরকম হবে, ব্যবহারের ক্ষেত্রে কতটা সাড়া পড়ছে সেসব দেখে যাচাই-বাছাই করে তারপর  পূর্ণ সম্প্রসারণ করা উচিত। আমাদের জানামতে বেশিরভাগ উন্নয়নশীল দেশ একই কৌশল গ্রহণ করা হয়েছে। বর্তমানে দুই শতাধিক দেশে এই সেবা চালু থাকলেও অর্ধেকের বেশি দেশ কেবল 'একমুখী' ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। মাত্র ২৯টি দেশে পেপালের পূর্ণাঙ্গ সেবা রয়েছে ।

দেশের ব্যাংকিং সেবা নিয়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে বিভিন্ন সময়ে কিছু অভিযোগ পাওয়া যায়। পেপালের জুম সেবার ক্ষেত্রেও যেন সে ধরনের কিছু না ঘটে সেদিকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নজর দিতে হবে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসা অর্থ যাতে গ্রাহক দ্রুত তুলতে পারেন সে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।  আমাদের প্রত্যাশা- অপেক্ষাকৃত সীমিত, কিন্তু ব্যাপক সম্ভাবনার এই সেবার ক্ষেত্রে যুক্ত সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকগুলোর সেবা গ্রাহকবান্ধব হবে।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২১ অক্টোবর ২০১৭/আলী নওশের

Walton
 
   
Marcel