ঢাকা, সোমবার, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২০ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

কোন নায়িকার বদনাম নেই : পলি

রাহাত সাইফুল : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০১-২৭ ৩:৪৩:৪২ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০১-৩১ ১:২৫:৫৬ পিএম
চিত্রনায়িকা পলি

রাহাত সাইফুল : নব্বই দশকের শেষের দিকে ঢাকাই চলচ্চিত্রে অশ্লীলতার মহামারি ছিল। কাটপিস নির্ভর এসব সিনেমায় চাহিদাসম্পন্ন চিত্রনায়িকাদের মধ্যে পলি অন্যতম।

তখন চিত্রনায়িকাদের বিরুদ্ধে ছিল অশ্লীলতার অভিযোগ। সময়ের ব্যস্ততম এ চিত্রনায়িকা হঠাৎ করেই চলচ্চিত্র থেকে অন্তরালে চলে যান। বর্তমানে স্বামী-সন্তান নিয়ে রাজধানীর গুলশানে বসবাস করছেন তিনি।

মোহাম্মদ হোসেন পরিচালিত ‘ফায়ার’সিনেমার মাধ্যমে রুপালি জগতে পা রেখে ‘জানোয়ার’, ‘কঠিন পুরুষ’সহ একের পর এক সিনেমায় অভিনয় করেন পলি। চার বছরের চলচ্চিত্র ক্যারিয়ারে ১১৩টি সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি। ওই সময়কার জনপ্রিয় সব চিত্রনায়কের বিপরীতে অভিনয় করেছেন পলি। এ তালিকায় রয়েছে- চিত্রনায়ক মান্না, শাকিব খান, রুবেল, আমিন খান, অমিত হাসান, আলেক জান্ডার বো, মেহেদীসহ অনেকে।


পলি অভিনীত সর্বশেষ ‘এক নম্বর আসামী’ শিরোনামের সিনেমাটি ২০১২ সালে মুক্তি পায়। রাজু চৌধুরী পরিচালিত এ সিনেমায় পলির বিপরীতে অভিনয় করেন চিত্রনায়ক রুবেল।

হঠাৎ করে নিজেকে অন্তরালে রাখা, অশ্লীলতার অভিযোগসহ বর্তমান ব্যস্ততা নিয়ে রাইজিংবিডির সঙ্গে কথা বলেন চিত্রনায়িকা পলি। এ আলাপচারিতার চুম্বক অংশ নিয়ে সাজানো হয়েছে এই সাক্ষাৎকার।

রাইজিংবিডি : আবার কি চলচ্চিত্রে নিয়মিত হবেন?
পলি :
না না, আর কাজ করার কোনো ইচ্ছাই আমার নেই। মিশা ভাই, জায়েদ খানের আমন্ত্রণে অনেকদিন পর বিএফডিসিতে এসেছি। মূলত তাদের সন্মানে।

রাইজিংবিডি : চলচ্চিত্রের প্রতি এতটা অনীহা কেন?
পলি : আসলে সিনেমায় কাজ করার সময়টা এখন আমার হাতে নেই। আমার একটা বুটিক হাউস আছে এ ছাড়া আমি আমার স্বামীর ব্যবসা দেখি। তা ছাড়া সংসার নিয়েও ব্যস্ত থাকতে হয়। এ কারণেই চলচ্চিত্রে কাজ করতে চাই না। আমি যে কাজের প্রস্তাব পাচ্ছি না এমন নয়। কাজের প্রস্তাব এখনো পাচ্ছি।

রাইজিংবিডি : পর্দার পেছনে কাজ করার কোনো পরিকল্পনা আছে?
পলি : সিনেমা প্রযোজনা করার ইচ্ছে আছে। সিনেমার বাজার ভালো হলে প্রযোজনা করব।

রাইজিংবিডি : হঠাৎ করে চলচ্চিত্রাঙ্গন থেকে নিজেকে আড়ালে নিয়ে যাওয়ার কারণ জানতে চাই।
পলি : যখন সিনেমা থেকে দূরে সরে গিয়েছিলাম তখন কাটপিস নির্ভর সিনেমা নির্মিত হতো। আমরা তো ওভাবে কাজ করতাম না। আমাদের সিনেমার মধ্যে কাটপিস জড়িয়ে দেয়া হতো। তারপর পুরো দায় আমাদের নিতে হতো কারণ আমি প্রধান নায়িকা থাকতাম। আমরা তো ওই ধরনের দৃশ্যে সরাসরি অভিনয় করিনি। এটার জন্যই নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছি।

 


রাইজিংবিডি : আপনাদের সময়টা আপনি কিভাবে মূল্যায়ন করবেন?
পলি : অপ্রিয় হলেও সত্য আমরা একটা স্বর্ণযুগ পার করেছি। বছরে আমি ৩৬টা সিনেমাও করেছি। মাত্র চার বছরে ১শত ১৩টা সিনেমায় অভিনয় করেছি। আমরা যখন অভিনয় করেছি তখন এ রকমও দেখেছি, বিএফডিসিতে ফ্লোর পাওয়া যাচ্ছে না। মেকআপ রুম পাওয়া যেত না। এত সিনেমা নির্মাণ হয়েছে। আমার জীবনে সকালে অভিনয় করেছি, বিকেলে অভিনয় করেছি আবার সারারাত অভিনয় করেছি। তিন শিফট অভিনয় করেছি। বাসায় দুই ঘণ্টা বিশ্রাম নিয়ে শুটিংয়ের জন্য আবার কক্সবাজারে চলে গিয়েছি। ওখান থেকে শুটিং করে ঢাকায় ফিরে দেখি বাসার নিচে অন্য শুটিংয়ের গাড়ি অপেক্ষা করছে। কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিয়ে আবার শুটিংয়ে চলে যেতাম। এখন তো আর সে রকম হচ্ছে না। এতটা ব্যস্ত এখন শিল্পীদের থাকতে হয় না। কম সংখ্যক সিনেমা নির্মিত হচ্ছে।

রাইজিংবিডি : পরিচালক, প্রযোজক কি কখনো কোনো পোশাক বা দৃশ্যে অভিনয় করার জন্য আপনাকে বাধ্য করেছেন?
পলি : না না এটা ভুল কথা। আমি বলব, তখন যেটা বাণিজ্যিকভাবে দেখানো হয়েছে তা অবশ্যই এখনো দেখানো দরকার। তা না হলে সিনেমা চলবে না। এখন দেখেন একটার পর একটা সিনেমা ফ্লপ করছে। শুধু বাণিজ্যিক না হওয়ার কারণে। হলিউড, বলিউড কি করছে। ওদের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে গেলে অবশ্যই কমার্শিয়াল হতে হবে। 

রাইজিংবিডি : বাণিজ্যিক বলতে আপনি কী বুঝাতে চাচ্ছেন?
পলি : কমার্শিয়াল বলতে আমি কাটপিস বুঝাতে চাচ্ছি না। কাটপিসের বিপক্ষে আমি। কমার্শিয়াল বলতে পোশাক ও গল্পের উপস্থাপনাকে বুঝাতে চেয়েছি। আমাদেরকেও পুরো বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। তাদের মতো না পারলেও কিছুটা আনতে হবে। এখনকার প্রজন্ম জানে হলিউডে কি সিনেমা হচ্ছে আর বলিউডে কি সিনেমা হচ্ছে। কমার্শিয়াল সিনেমা করতেই হবে। তা না হলে সিনেমার আরো করুণ অবস্থা হবে। সিনেমা চলছে না কেন? শুধু এর জন্যই।

রাইজিংবিডি : আপনাদের কয়েকজন শিল্পীকে নিয়ে তখন বদনাম ছিল। এ বিষয়ে জানতে চাই।
পলি : দেখেন বদনাম সব হিরো-হিরোইনদের নিয়েই আছে। এখনকার সবার নামেই বদনাম আছে। কোন নায়িকার বদনাম নেই? সিনিয়র জুনিয়র সবার নামে বদনাম আছে। আর এটা নিয়ে আমি কথা বলতে চাচ্ছি না। ওই যে কথায় আছে না আঙ্গুর ফল টক। যখন যে হিট থাকবে তখন তাকে নিয়ে গসিপ থাকবে। যাদের নাম নেই তাদের নিয়ে কেউ গসিপ করবে না। মুনমুন বলেন, পলি বলেন, ময়ূরী বলেন প্রত্যেকে অনেক সিনেমায় কাজ করেছেন। ইন্ডাস্ট্রিকে এরা অনেক দিয়েছেন। তাদের বেইজ করে অনেক মানুষ কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন। আমাদের সময় কেউ বেকার ছিল না। এগুলো সিলি বিষয়।

 


রাইজিংবিডি : সিনেমায় কাজ করতে গিয়ে কোনো রাজনীতির শিকার হয়েছেন?
পলি : অনেকে বলে রাজনীনিতির শিকার হয়েছে। আমি বলব, আমি নিজে থেকেই সিনেমা ছেড়ে দিয়েছি। আবার আমি ইচ্ছে করলেই আবার সিনেমায় ফিরতে পারি। আমার সে কোয়ালিটি, চেহারা ফিগার সব কিছুই আছে। এখানে পলিটিক্স বলে কিছু নেই। ফিল্ম আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে। আই লাভ ফিল্ম। একেবারে মরণের আগের দিন পর্যন্ত ফিল্মকে ভালোবেসে যাব। আমি কারো দোষ দিব না। এখানে কারো দোষ নেই। বলতে পারি, যুগের দোষ তখন সময়ের দোষ ছিল। কোনো প্রযোজক পরিচালকের দোষ ছিল না। সময়ের দোষ। তখন সময়টাই ওরকম ছিল। এখন আবার সেই সময় আসছে। আবার সব কিছুই হচ্ছে। এটা বন্ধ করতে পারবে না।

রাইজিংবিডি : সিনেমার বর্তমান অবস্থা কেমন বলে মনে করছেন?
পলি : আজকে বিএফডিসিতে অনেক মানুষ না খেয়ে গ্রামে চলে গিয়েছে। কাজ না করতে পেরে বেকার হয়ে পড়েছেন। এ রকম আমাদের বিএফডিসিতে ছিল না। কি অবস্থা হয়েছে বিএফডিসির! কয়টা সিনেমা হচ্ছে? ইন্ডাস্ট্রি আজ ধ্বংসের মুখে। একজন শিল্পী এখন দাঁড়াতে পারছে?

আমাদের নিয়ে যতই নাক ছিটকানো হয় না কেন আমাদের বেইজ করে গল্প লেখা হতো। আগে আমাদের সাইন করানো হতো। এরপর প্রযোজক, পরিচালক সিদ্ধান্ত নিত কাকে নায়ক হিসেবে নিবে। এখন সেই যোগ্যতা বা ক্ষমতা কোন নায়িকার নেই যে সিনেমার মাঠকে নিজের হাতে নিয়ে আসবে। আজকে ইন্ডাস্ট্রির এ অবস্থা থাকবে কেন? দশটা হিরো দশটা হিরোইন থাকবে। কেউ নেইতো!

রাইজিংবিডি : রাইজিংবিডিকে সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।
পলি : রাইজিংবিডিকেও ধন্যবাদ।

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৭ জানুয়ারি ২০১৭/রাহাত/শান্ত

Walton
 
   
Marcel