ঢাকা, শনিবার, ১২ ফাল্গুন ১৪২৪, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮
Risingbd
অমর একুশে
সর্বশেষ:

মেলায় আফসানা বেগমের নতুন উপন্যাস ‘বেদনার আমরা সন্তান’

সাইফ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৮-০২-১৩ ৮:৫৭:২৮ এএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০২-১৩ ৯:০৩:৪৪ এএম

ডেস্ক রিপোর্ট : অমর একুশে গ্রন্থমেলায় (২০১৮) প্রকাশিত হয়েছে এ সময়ের জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক আফসানা বেগমের নতুন উপন্যাস ‘বেদনার আমরা সন্তান’।

উপন্যাসটি প্রকাশ করেছে কথা প্রকাশ। বইটির প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। উপন্যাসটি সম্পর্কে আফসানা বেগম বলেন, এ উপন্যাস নেহা নামের এক মায়ের অনমনীয় লড়াইয়ের কাহিনি। এতে ঘটনার পর ঘটনা, কাহিনি ও অনুভবের বৃত্ত ভেঙে ভেঙে আবীর নামের এক শিশুকে ঘিরে খুলে যেতে থাকে অটিজম নিয়ে অনেক ভুল ধারণার জট। সংকটের সামনে দাঁড়ানো, বাইরে থেকে দেখতে স্বাভাবিক মানুষগুলোও যে কত রকমের মনোবৈকল্যে ভরা, সেসব উঠে এসেছে এর নানান বয়ানে। অটিজমকে চেনা, জানা ও নানান শিক্ষণ-প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এটি কী করে অতিক্রম করা যায়-এই উপন্যাসে সেসব হয়ে উঠেছে মর্মস্পর্শী।

উপন্যাস ছাড়াও নোবেলজয়ী আমেরিকান লেখক উইলিয়াম ফকনারের উপন্যাস ‘মৃত্যুর প্রতীক্ষায় আমি’র অনুবাদগ্রন্থটি এসেছে সন্দেশ প্রকাশনী থেকে। এটির প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। জাপানি লেখক হারুকি মুরাকামির ‘অদ্ভুত এক লাইব্রেরি’ অনুবাদগ্রন্থটি প্রকাশ করেছে প্রকৃতি পরিচয়। এটির প্রচ্ছদ করেছেন রাজীব দত্ত।

‘মৃত্যুর প্রতীক্ষায় আমি’ অনুবাদ করা প্রসঙ্গে আফসানা বেগম বলেন, উইলিয়াম ফকনারের অনন্য বর্ণনা কৌশলের বৈশিষ্ট্য হলো একই ঘটনাকে বিচিত্র দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখা ও চরিত্রের অন্তর্গত মানসিক পরিস্থিতিকে পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে চরিত্রের কণ্ঠে তুলে আনা। এই দুইয়ের সফল প্রয়োগের সবচেয়ে যোগ্য উদাহরণ এ উপন্যাসটি। ভিন্ন বয়সের ভিন্ন দৃষ্টি ভঙ্গিসম্পন্ন পনের চরিত্রের বক্তব্য আর না-বলা কথার মধ্যে দিয়ে উপন্যাসের কাহিনি এগোয়। তাই এখানে পনেরোটি ভিন্ন কণ্ঠ শুনতে পাওয়া যায়, দেখা মেলে পনেরো জাতের গদ্যের। ফকনারের কল্পকাহিনিতে প্রতিষ্ঠা পাওয়া মিসিসিপির কল্পিত ’ইয়োকনাপাথাওফা’ স্থানটি এই উপন্যাসেই প্রথম পাঠকের সামনে আসে। পরবর্তীকালে একই পটভূমিতে ফকনারের হাতে রচিত হয় আরো সাতটি কালজয়ী উপন্যাস। কল্পিত পটভূমির সফলতম প্রয়োগের ক্ষেত্রে এটি উল্লেখযোগ্য।

 


‘অদ্ভুত এক লাইব্রেরি’ বইটি অনুবাদের প্রেক্ষাপট উল্লেখ করতে গিয়ে আফসানা বেগম বলেন, কথাসাহিত্যের সঙ্গে জড়িত থাকায় প্রায়ই শিশু-কিশোরদের জন্য কল্পকাহিনি লেখার ইচ্ছে হতো। কিন্তু এখন পর্যন্ত তাদের উপযোগী লেখায় হাত দেওয়ার সাহস হয়নি। মনে মনে ভাবি, বিদ্যালয়ে যেমন শুরুর ক্লাসটিতে সবচেয়ে অভিজ্ঞ শিক্ষকের প্রয়োজন, তেমনি শিশুদের মনমতো কিছু করবার জন্য হয়ত আরেকটু অভিজ্ঞতার প্রয়োজন। তবে অনুবাদের ক্ষেত্রে সে সাহসটি হুট করে জুটে গেল। হারুকি মুরাকমি বরাবর প্রিয় লেখক। হঠাৎ একদিন এ বইটি হাতে পেয়ে বুঝলাম কিশোর পাঠকের চিন্তার রাজ্যকে তিনি আমূল দখল করতে পারেন। নিজের কিশোর বয়সে লাইব্রেরিতে ঘটা নানা কাহিনির থেকে একেবারেই পৃথক একটি কাহিনিকে যেন মনে হলো নিজেরই জীবনে ঘটে যাওয়া! কেবল রচনার চাতুর্যে মুগ্ধ হয়ে আকস্মিক কাহিনিটি অনুবাদ করতে বসে গেলাম।

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮/সাইফ

Walton