ঢাকা, শনিবার, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৫ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

ওষুধের ফেরিওয়ালা

শাহিদুল ইসলাম : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৬-১৪ ৮:১১:৪৯ এএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৬-১৪ ১২:৪৭:৫৯ পিএম

শাহিদুল ইসলাম : রোগমুক্তির জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে ‍ওষুধ সেবন করতে হয়। এ ব্যাপারে অবলম্বন করতে হয় সর্বোচ্চ সতর্কতা। সামান্য ভুলের কারণে আপনাকে মৃত্যু ঝুঁকিতে পড়তে হতে পারে।

কিন্তু চিকিৎসা বিজ্ঞানে যাদের ন্যূনতম জ্ঞান নেই তারা যদি ওষুধ বিক্রি করে তাহলে! আপনার কাছে অবাক করার মতো বিষয় হলেও হাইতির বাসিন্দাদের কাছে এটি খুবই সাধারণ একটি ব্যাপার।

আটলান্টিক  মহাসাগরের ছোট্ট এই দ্বীপ দেশটিতে ওষুধের ফার্মেসি নেই বললেই চলে। ফলে এখানে জীবন রক্ষাকারী  ওষুধ বিক্রি হয় রাস্তা-ঘাটে ফেরি করে। প্রকৃতপক্ষে হাইতির মানুষের দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় ওষুধের নব্বই শতাংশের যোগান আসে এই ভ্রাম্যমান ফেরিওয়ালাদের কাছ থেকেই।

উন্নত বা উন্নয়নশীল দেশগুলোতে একটি ওষুধের দোকান দিতে গেলে ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ, স্থানীয় কর্তৃপক্ষের অনুমোদনসহ বেশকিছু আনুষ্ঠানিকতা পালন করতে হয়। কিন্তু হাইতিতে এ ধরনের নিয়মের কোনো বালাই নেই। এখানে ওষুধ বিক্রির জন্য প্রয়োজন একটি বালতি, কাঁচি ও কিছু ওষুধ।

তবে ভালো বিক্রেতা হতে গেলে আপনাকে রোদে ঘুরে ঘুরে ওষুধ বিক্রির মানসিকতার সাথে সাথে ওষুধগুলো সুন্দর করে সাজানো শিখতে হবে। কারণ যার ওষুধের ঝুড়ি যতো সুন্দর করে সাজানো তার বিক্রির পরিমাণ তত বেশি।

এভাবে ওষুধের কেনা-বেচা সম্পূর্ণ বেআইনি হলেও হাইতির  লোকের  কাছে অতি সাধারণ। না বুঝে সহজ-সরল এই মানুষগুলো চায়না থেকে অবৈধভাবে আমদানী করা জন্ম নিয়ন্ত্রণকারী পিল থেকে শুরু করে গর্ভপাতের পিল পর্যন্ত ফেরিওয়ালাদের কাছ থেকে কিনে খাচ্ছে, যা তাদের জীবনের জন্য ভয়াবহ পরিণতি ডেকে আনছে।

 

 

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৪ জুন ২০১৭/মারুফ

Walton
 
   
Marcel