ঢাকা, শনিবার, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৫ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

ঝালখোর

মোহাম্মদ আসিফ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৮-৩১ ৭:৪৬:৩৬ এএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৮-৩১ ১:৫৬:৪৫ পিএম

মোহাম্মদ আসিফ: আপনার পছন্দের তালিকায় যদি ঝাল খাবার থাকে এবং ভেবে থাকেন ঝাল খাওয়ার প্রতিযোগিতায় আপনি যে কাউকে হার মানাতে সক্ষম, তাহলে ক্লিফটন চিলি ইটিং ক্লাব আপনাকে ঝাল খাওয়ার ক্ষমতা প্রদর্শনের সুযোগ করে দেবে।

প্রতি বছরই এমন এক খাবার খাওয়ার প্রতিযোগিতার আয়োজন করে ক্লাবটি। যেখানে প্রতিযোগীদের কয়েক রাউন্ডে পৃথিবীর সব থেকে ঝাল মরিচ খেতে হয়। আর প্রতি পর্বেই সেই ঝালের পরিমাণ বাড়তে থাকে।

প্রতিযোগিতার শুরুটা সহজই থাকে। মোটামুটি ঝালের রেড ফ্রেসনো ও জালাপেনো মরিচ প্রতিযোগীরা কোনো প্রকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই অনায়াসে খেতে পারেন। কিন্তু রাউন্ড যত পার হতে থাকে ঝালের মাত্রা  বাড়তে থাকে। প্রতিযোগীদের খেতে হয় গোস্ট চিলিস এবং নাগা ভাইপারের মতো মারাত্মক ঝাল মরিচ। যার স্কোভিল ইউনিট (ঝাল মাপার স্কেল) গড়ে ১০ লাখেরও বেশি। কোনোভাবে এই রাউন্ড পেরিয়া ফাইনাল রাউন্ডে পৌঁছে গেলে অপেক্ষা করবে পৃথিবীর সব থেকে ঝাল মরিচ ক্যারোলিনা রিপার পিপারস-এর নানা জাত। যার স্কোভিল রেটিং ১৫ লাখ ৬৯ হাজার ৩০০!

এই মরিচ খাওয়ার প্রতিযোগিতা খুব একটা কঠিন হতো না। কিন্তু প্রতিযোগীদের পুরো প্রতিযোগিতায় কোনো ধরনের পানীয় পান করতে দেয়া হয় না। ফলে মরিচ খাওয়ার পর গলায়, মুখে ও পাকস্থলিতে ঝাল থেকে যে জ্বালা সৃষ্টি হয় তা নিবারণের কোনো উপায় থাকে না। কেউ কেউ এই ঝালের মাত্রা সইতে না পেরে প্রতিযোগিতা থেকে ছিটকে পড়েন। অন্যরা প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে অবিরল চোখের পানিতে এই ঝালের ব্যথাকে সইয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। যখন আর সম্ভব হয় না তখন তারা টেবিলে রাখা গ্লাস ভর্তি দুধের দিকে হাত বাড়ায়। এর ফলে তারাও প্রতিযোগিতা থেকে বাদ পরে যায়।

এই প্রতিযোগিতা অনেকটা কষ্টসাধ্য এবং ধৈর্য্যের। কিন্তু সব কিছু ছাপিয়ে সিড বারবার নামের এক মধ্য বয়স্ক নারী ২০১৪ সাল থেকে প্রতিযোগিতায় নিজের রাজত্ব ধরে রেখেছেন। সেই সাথে জুটিয়ে নিয়েছেন ‘অপ্রতিরোধ্য সিড’ তকমা।

ক্লিফটন চিলি ইটিং ক্লাবের এই প্রতিযোগিতার ফাইনাল রাউন্ড দুইজন প্রতিযোগীর অংশগ্রহণে সম্পন্ন হয়। আশ্চর্যজনকভাবে সিড বারবার গত ৪ বছর ধরে ফাইনাল রাউন্ডের সেই দুইজনের একজন হিসেবে বারবার নিজের অবস্থান ধরে রেখেছেন। শুধু তাই নয় টানা ৩ বার এই প্রতিযোগিতায় জয় লাভের রেকর্ড শুধু তারই আছে। যেটা তাকে ঝাল খাবার পছন্দকারীদের জন্য একজন জীবন্ত কিংবদন্তির সম্মান এনে দিয়েছে।

তবে নির্মম সত্য হলো, এই ঝাল মরিচ খাওয়ার প্রতিযোগিতায় বিশেষ কোনো আর্থিক পুরস্কার দেয়া হয় না। এমনকি চিলি ইটিং ক্লাবের এই প্রতিযোগিতার গ্র্যান্ড প্রাইজ মাত্র ৫০ পাউন্ড (৭০ মার্কিন ডলার)। কিন্তু সিড বারবার তারপরও প্রতি বছর এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। কারণ তিনি হয়তো চ্যালেঞ্জ নিতে ভালোবাসেন অথবা তার ঝাল সহ্য করার ক্ষমতা অসীম। আগামী বছরের প্রতিযোগিতার জন্য সবার পছন্দের তালিকার শীর্ষস্থানে রয়েছেন সিড। ‘রিয়েল মাদার অব ড্রাগনস’খ্যাত সিড বারবারকে আগামী বছর কেউ হারাতে পারেন কিনা সেটিই এখন দেখার বিষয়।

 

 

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/৩১ আগস্ট ২০১৭/মারুফ/তারা

Walton
 
   
Marcel