ঢাকা, মঙ্গলবার, ৪ আশ্বিন ১৪২৪, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

বাঘের বন্ধু আবদুল্লাহ

স্বপ্নীল মাহফুজ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০২-০৫ ৮:০৫:৫৪ এএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০২-০৫ ১:৫২:৩৫ পিএম

স্বপ্নীল মাহফুজ : বাঘের মুখোমুখি হওয়া মানেই যেখানে প্রাণ হারানোর ভয়, সেখানে ইন্দোনেশিয়ার আবদুল্লাহ শোলে ৮ বছরের বেশি সময় ধরে বাঘের সঙ্গে বন্ধুত্ব করেছেন। তারা একে অপরের সঙ্গে খেলাধুলা করেন, দেখে মনে হবে যেন মানুষ-বাঘ নয়, বরঞ্চ দুই বন্ধু খেলছে।

মিটার দৈর্ঘ্য ও ১ মিটার উচ্চতার ৬ বছর বয়সী মুলান নামের শক্তিশালী এই বাঘের সঙ্গে আবদুল্লাহর বন্ধুত্ব এমন পর্যায়ে যে, নির্দ্বিধায় মুলানের মুখে চুমুও খেতে পারেন তিনি। বাঘে-মানুষের এই অসম্ভব বন্ধুত্বের ঘটনা ইন্দোনেশিয়ার পূর্ব জাভা দ্বীপের মালাং অঞ্চলের দিলেম গ্রামে।

বাঘটির মালিক নোয়ের মোহাম্মাদ শোলে ২০০৮ সালে এটির দেখাশোনার দায়িত্ব দেন আবদুল্লাহকে। তখন বাঘটির বয়স ছিল মাত্র তিন মাস। তখন থেকেই আবদুল্লাহ বাঘটির দেখাশোনা করছেন। বাঘটি শৈশব কাটিয়ে যৌবনে পা দিয়েছে তার সঙ্গে খেলাধুলা করেই। দেখা হলেই দুজন পরস্পরকে জড়িয়ে ধরে তারা। শুধু তাই নয়, আবদুল্লাহ মাঝে মধ্যেই মুলানের কাছাকাছি ঘুমায়। এই কাজটা সে করে আসছে মুলানের ছোটবেলা থেকেই।



আবদুল্লাহ এ প্রসঙ্গে বারক্রফ্ট টিভির সাংবাদিকদের বলেন, ‘মুলান খুবই দুষ্টু বাঘ। সে আমার বেস্ট ফ্রেন্ডের মতো। ওর কাছে যাওয়া সামান্য ভয়ের হলেও তাতে আমার কোনো কিছু যায় আসে না, ওর কাছ থেকে আঁচড় বা কামড় খাওয়া খুবই সাধারণ ব্যাপার।’

যেহেতু মুলান আর সেই ছোট্ট বাঘটি নেই, বরং অনেক পরিণত এবং থাবাও যথেষ্ট শক্তিশালী তাই আবদুল্লাহর জন্য এই বন্ধুত্ব বিপজ্জনক। কিন্তু আবদুল্লাহ সে কথা মানতে একেবারেই রাজি নয়।

তথ্যসূত্র : ডেইলি মেইল



রাইজিংবিডি/ঢাকা/৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭/ফিরোজ/তারা

Walton Laptop