ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ আশ্বিন ১৪২৪, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

জামিনী বাবুর জমিদার বাড়ি

মামুন চৌধুরী : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৭-০৪ ৩:২০:৩৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৭-২১ ৩:০৮:০৫ পিএম

মো. মামুন চৌধুরী, হবিগঞ্জ : হবিগঞ্জ-শায়েস্তাগঞ্জ বাইপাস সড়কে পুরানবাজার রেলওয়ে পার হলেই  হাইস্কুল, মাদ্রাসা ও বনবিভাগের অফিস । এখানে দাঁড়ালেই চোখে পড়বে প্রাচীন দু’টি ভবন। প্রায় দু’শ বছর আগে এখানে বসবাস করতেন রাজ কুমার নামে এক জমিদার।

এক সময়  জামিনী বাবু নামে ব্যক্তির কাছে জমিদারি হস্তান্তর করে দেশান্তর হয়ে যান। পরে জামিনী বাবু শক্তহাতে জমিদারি পরিচালনা করেন। নতুন করে জমিদারি প্রসার পেতে শুরু করে। প্রজারা নিয়মিত খাজনা প্রদান করতে থাকেন।

জমিদার জামিনী বাবুর কোনো পুত্র সন্তান ছিল না। তার ছিল এক কন্যা সন্তান। তাকে বেঙ্গী নামে ডাকতেন স্থানীয়রা। আর বিবাহের পরও তিনি এবাড়িতেই বসবাস করতেন। একে একে তার গর্ভে বিঞ্চু, শ্যামা,বল ও কুশ নামে চার পুত্র সন্তান জন্ম নেয়।

১৯৪০ সালের দিকে তারাও এ বাড়ি ছেড়ে ভারত চলে যান। এতে করে ধীরে ধীরে বাড়িটি জঙ্গলবেষ্টিত হয়ে পড়ে। ভবনগুলো হয়ে পড়ে পরিত্যক্ত। এসব ভবন পোকা-মাকড়ের বসতিতে পরিনত হয়। ক্রমেই ভবনগুলো একেবারেই ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে যায় । বাড়িটির সীমানা প্রাচীর  ভেঙ্গে যায়। পুকুরটি ভরাট  হয়ে যায়।

বর্তমানে শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের পূর্ব লেঞ্জাপাড়ায় জামিনী বাবুর জমিদার বাড়িটির অবস্থান।এ এলাকার বাসিন্দা আব্দুল মন্নান ও খোর্শেদ আলীর সাথে আলাপকালে তারা জামিনী বাবুর জমিদার বাড়ির এসব তথ্য জানান।

বাড়িটি পরিদর্শনে গেলে স্থানীয়রা জানান, জমিদারের যারাই আছেন তারা সব কলকাতায় বসবাস করছেন। এ বাড়ির চার পাশে নানা ধরনের ফসল চাষ করছেন স্থানীয়রা। আর মাঝখানে জমিদারের স্মৃতি ধরে রেখে আজো দাঁড়িয়ে আছেদুইটি প্রাচীন ভবন।



রাইজিংবিডি/হবিগঞ্জ/৪ জুলাই ২০১৭/মামুন চৌধুরী/টিপু

Walton Laptop