ঢাকা, সোমবার, ১১ আষাঢ় ১৪২৫, ২৫ জুন ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

‘এ ঘটনা কোনো দিনও ভুলতে পারব না’

মীর বশির ইবনে কাশেম : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৮-০৬-০৪ ১:১৫:৫২ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৬-০৪ ১:১৫:৫২ পিএম

ডেস্ক রিপোর্ট: মীর বশির ইবনে কাশেম (অফিস আইডি-১৯৯৫৪)।তিনি ওয়ালটন সার্ভিস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম বিভাগে কর্মরত। গত ১৩ মে বিশ্বব্যাপী পালিত হয়েছে মা দিবস। এই দিনটিকে স্মরণে রেখে পৃথিবীর সকল মায়ের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানিয়ে মীর বশির ইবনে কাশেমের মায়ের হাতে তুলে দেয়া হয় স্মারক সম্মাননা। এ সময় তার অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওয়ালটন দেশীও পণ্যের একটি নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান এবং নিঃসন্দেহে একটি ভালো প্রতিষ্ঠান । তিনি আরও বলেন, তার বাসায় ব্যবহৃত অনেক পণ্য ওয়ালটন কোম্পানির। যেমন ফ্রিজ, ফ্যান, গ্যাসের চুলা, মোবাইল ইত্যাদি এবং এ সকল পণ্য ব্যবহার করে তিনি সন্তুষ্ট। তিনি আরও বলেন, ওয়ালটন ভালো প্রতিষ্ঠান বিধায় তিনি তার ছেলেকে এই প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতে দিচ্ছেন।

ছেলের ছোটবেলার স্মরণীয় ঘটনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, বশির যখন ক্লাস ফাইভে পড়ে তখন সে একটি দুর্ঘটনার শিকার হয়। যখন স্কুল থেকে সে সংবাদ আমাকে জানানো হলো, তখন আমি দ্রুত স্কুলে যাই এবং দেখি বশির বেঞ্চের উপর শুয়ে আছে এবং তার সম্পূর্ণ শরীর ধুলায় ভরা। বাম পা, কপাল শরীরের বিভিন্ন অংশ খুবই ফোলা। সে যন্ত্রণায় কষ্ট পাচ্ছে। ডাক্তার এসে বলল, তার হাঁটুর হাড় ভেঙে গেছে। কথাটি বলতে গিয়ে বশিরের মায়ের চোখ পানিতে ভিজে ওঠে। তিনি জানান এ ঘটনা কোনো দিনও ভুলতে পারবেন না।

ছেলেকে নিয়ে সুখের একটি স্মৃতি তিনি বলেন, বশির ছোটবেলায় খুব দুরন্ত ছিল। পড়ালেখার চেয়ে খেলাধুলার প্রতি তার আগ্রহ বেশি ছিল। দ্বিতীয় শ্রেণীতে পরার সময় বশিরের সহপাঠীরা ক্লাস পরীক্ষায় পনেরোর মধ্যে পনেরো পেত। কিন্তু বশির কখনও পেত না। আমি তাকে বকা দিতাম। কিন্তু একদিন বশির পনেরোর মধ্যে পনেরো পেল। ঐ দিন পরীক্ষার খাতা নিয়ে দৌড়াতে দৌড়াতে বাড়ির দিকে আসছে এবং চিৎকার করে বশির বলছে, মা আমি পনেরো পেয়েছি। সেদিন ছেলের আনন্দ দেখে খুশিতে মনটা ভরে উঠেছিল।




রাইজিংবিডি/ঢাকা/৪ জুন ২০১৮/তারা

Walton Laptop
 
   
Walton AC