ঢাকা, শুক্রবার, ৬ শ্রাবণ ১৪২৪, ২১ জুলাই ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

কে হচ্ছেন ভারতের নতুন রাষ্ট্রপতি?

রাসেল পারভেজ : রাইজিংবিডি ডট কম
প্রকাশ: ২০১৭-০৭-১৭ ৬:০২:৩৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৭-১৮ ৭:১৯:১৯ পিএম
রাম নাথ কোবিন্দ ও মিরা কুমার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের নতুন রাষ্ট্রপতি কে হচ্ছেন- তা নিয়ে চলছে নানা হিসাব-নিকাষ। দুই প্রার্থীর মধ্যে নির্বাচনে বিশ্লেষকদের মতে এগিয়ে আছেন বিহারের প্রাক্তন গভর্নর রাম নাথ কোবিন্দ। আরেক প্রার্থী মিরা কুমারের পেছনে কংগ্রেসসহ বেশ কিছু রাজনৈতিক দল থাকলেও সেখানে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরোধিতা।

রাম নাথ কোবিন্দ মোদির বিজেপির নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটের সমর্থন পেয়েছেন। সব মিলে ৪০টির বেশি রাজনৈতিক দল রয়েছে তার সঙ্গে। লোকসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠ এনডিএ জোটের ভোটব্যাংকসহ কংগ্রেসের কিছু সংসদ সদস্য কোবিন্দকে ভোট দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

এনডিএ জোটের বাইরে কংগ্রেসের দীর্ঘদিনের সঙ্গী নীতিশ কুমারের জনতা দল (ইউ) কোবিন্দকে সমর্থন করেছে; যেখানে কংগ্রেসের সমর্থিত প্রার্থী মিরা কুমার। মোদির নেতৃত্বাধীন জোটের বাইরে আর যেসব দল কোবিন্দকে ভোট দিতে পারে, তার মধ্যে রয়েছে- এআইএডিএমকে, যুবজানা শ্রমিকা রায়থু কংগ্রেস পার্টি, বিজু জনতা দল, তেলেঙ্গানা রাষ্ট্র সমিতি এবং ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল লোক দল। এসব দল কোবিন্দকে ভোট দিলে মোট ভোটের ৬০ শতাংশের বেশি পাবেন তিনি। নির্বাচনে জয়ের জন্য কোবিন্দের প্রয়োজন ৫০ শতাংশের বেশি ভোট।

কোবিন্দের বিপরীতে ভোটের লড়াইয়ে আছেন মিরা কুমার। কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট-ই শুধু নয়, তার সমর্থনে গড়ে উঠেছে সম্মিলিত বিরোধী জোট। এই জোটে আছে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস, ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টি, সমাজবাদী পার্টি, বহুজন সমাজবাদী পার্টি, আম আদমি পার্টি (এএপি), রাষ্ট্রীয় জনতা দল, অল ইন্ডিয়া তৃণমূল কংগ্রেস, কমিউনিস্ট পার্টিস, ডিএমকে, জম্মু অ্যান্ড কাশ্মীর ন্যাশনাল কনফারেন্স। এসব দলের ভোট মিরা কুমারের পেলেও তা হবে মোট ভোটের ৩৯ শতাংশের কিছু বেশি, যা প্রয়োজনীয় ৫০ শতাংশ ভোটের চেয়ে বেশ কম।

প্রধানমন্ত্রী মোদি তার সমর্থিত প্রার্থী কোবিন্দের ভূয়সী প্রসংশা করে রোববার বলেন, আইনজীবী ও রাজনীতিক হিসেবে কোবিন্দের পথচলায় কোনো বিতর্ক নেই। প্রেসিডেন্ট পদেও তার নির্বাচনে কোনো বিতর্ক থাকবে না।

কংগ্রেস সভাপতি সোনিয়া গান্ধী মিরা কুমারের পক্ষে ‘বিবেকপ্রসূত ভোট’ প্রার্থনা করেছেন। রোববার তিনি বলেন, এই নির্বাচন ‘আদর্শিক লড়াই ও উচ্ছৃঙ্খল মূল্যবোধের বিরুদ্ধে যুদ্ধের’ প্রতিনিধিত্ব করছে। এ ক্ষেত্রে সংখ্যা আমাদের বিরুদ্ধে যেতে পারে। কিন্তু এই লড়াই লড়তে হবে এবং কঠোরভাবে লড়তে হবে।

সোনিয়া গান্ধীর বক্তব্য থেকে পরিষ্কার, তাদের প্রার্থীর পরাজয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। যেখানে মোদি শিবিরে তাদের প্রার্থী কোবিন্দের নিশ্চিত জয়ের আশাবাদ রয়েছে।

উল্লেখ্য, সোমবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ হয়। ফলাফল প্রকাশ করা হবে ২০ জুলাই। নতুন রাষ্ট্রপতি শপথ নেবেন ২৫ জুলাই। ২৪ জুলাই শেষ হচ্ছে ভারতের প্রথম বাঙালি প্রেসিডেন্ট প্রণব মুখার্জির মেয়াদ।

আরো পড়ুন

ভারতে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে চলছে ভোটগ্রহণ

যেভাবে নির্বাচিত হন ভারতের রাষ্ট্রপতি



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৭ জুলাই ২০১৭/রাসেল পারভেজ

Walton Laptop