ঢাকা, সোমবার, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২০ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

মিয়ানমারের প্রতি আবারো চীনের পূর্ণ সমর্থন

রাসেল পারভেজ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৯-১২ ৮:১৬:১৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৯-১৩ ১১:০৮:১৪ এএম

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : রোহিঙ্গা সংকট যখন চরমে তখন মিয়ানমারের প্রতি আবারো পূর্ণ সমর্থন জানালো এশিয়ার সবচেয় শক্তিশালী রাষ্ট্র চীন।

মঙ্গলবার চীন সাফ জানিয়ে দিয়েছে, শান্তি ও স্থিতিশীলতা রক্ষায় মিয়ানমার যে উদ্যোগ নিয়েছে, তার পাশে আছে চীন। শুধু তাই নয়, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কেও মিয়ানমারের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছে তারা। এর আগেও একই ধরনে কথা বলেছে দেশটি।

মিয়ানমারের প্রতি এমন সময় চীন তাদের অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করল, যখন একদিন বাদে বুধবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে বৈঠক বসতে চলেছে। এখন আশঙ্কা করা হচ্ছে, ওই বৈঠকে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে যেকোনো ধরনের প্রস্তাব আনার বিরুদ্ধে ভেটো দিতে পারে চীন।

নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে স্থানীয় সময় বুধবার নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠক হবে। বৈঠকের জন্য অনুরোধ করেছে যুক্তরাজ্য ও সুইডেন। কিন্তু এর আগে এ পরিষদের সবচেয়ে ক্ষমতাধর রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিভেদ দেখা দিল। চীনের এমন একাট্টা সমর্থন মিয়ানমারকে রোহিঙ্গা নিধন অভিযানে আরো উসকে দিতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনের প্রধান জেইদ রাদ আল-হুসেইন রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভিযানকে ‘জাতিগত নিধন অভিযান’ বলে উল্লেখ করলেও শান্তি ও স্থিতিশীলতার দোহাই দিয়ে সেই অভিযানকে সমর্থন করছে চীন। জেইদ রাদ আল-হুসেইন বলেন, ‘টেক্সটবুক এথনিক ক্লিনজিং’ বা ‘জাতিগত নির্মূল অভিযান’ বলতে পাঠ্যবইয়ের সংজ্ঞায় যা বোঝায়, মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে তাই করা হচ্ছে। এরপরই নিরাপত্তা পরিষদে জরুরি বৈঠক ডাকা হয়।

কিন্তু চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গেং শুয়াং বলেছেন, ‘জাতীয় উন্নয়নের জন্য শান্তি ও স্থিতিশীলতা রক্ষায় মিয়ানমার যে চেষ্টা করছে, তার পাশে থাকা  উচিত আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের।’

চীনের এমন বক্তব্য থেকে ধরে নেওয়া হচ্ছে, নিরাপত্তা পরিষদে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে নিন্দা করে আনীত কোনো প্রস্তাবে হয়তো তারা সাড়া দেবে না। জাতিসংঘের কূটনীতিকদের বরাত দিয়ে বার্তাসংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, রোহিঙ্গা ইস্যুতে নিরাপত্তা পরিষদ কোনো ধরনের ভাবনা-চিন্তা করুক, তাও চায় না চীন।

নিরাপত্তা পরিষদের আর দুই সদস্য যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার অবস্থানও পরিষ্কার নয়। রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে রোহিঙ্গাদের পক্ষে বিক্ষোভ করায় রোববার প্রায় শতাধিক বিক্ষোভকারীকে আটক করে দেশটির পুলিশ। ফলে নিরাপত্তা পরিষদে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে বা রোহিঙ্গাদের পক্ষে কোনো প্রস্তাবে রাশিয়া কী ধরনের প্রতিক্রিয়া দেখায়, তা অনিশ্চিত।

তবে রোহিঙ্গা ইস্যুতে নড়েচড়ে বসেছে যুক্তরাষ্ট্র। তারা মিয়ানমারের নিন্দা করে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নির্যাতন বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, রোহিঙ্গারা যেভাবে ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে আসছে, তাতে পরিষ্কার হয়, মিয়ানমার তাদের নিরাপত্তা দিচ্ছে না। কিন্তু বুধবার বৈঠকে তাদের সিদ্ধান্ত কী হয়, তা দেখার বিষয়।

জাতিসংঘের হিসাবমতে, এরই মধ্যে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছে প্রায় ৩ লাখ ৭০ হাজার রোহিঙ্গা। সহিংসতায় নিহত হয়েছে কমপক্ষে ১ হাজার জন। এই সহিংসতা রাখাইন রাজ্যে এখনো চলছে।

তথ্যসূত্র : বিবিসি অনলাইন



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭/রাসেল পারভেজ

Walton