ঢাকা, শুক্রবার, ৬ মাঘ ১৪২৪, ১৯ জানুয়ারি ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

পেরুর প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ফুজিমোরির সাজা মওকুফ

রাসেল পারভেজ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-১২-২৫ ১১:০৬:৩১ এএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১২-২৫ ১১:৩৯:৩৬ এএম
পেরুর প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ফুজিমোরি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : একদিকে উন্নয়ন, অন্যদিকে দুর্নীতি উভয় দিক থেকে বহুল আলোচিত-সমালোচিত পেরুর কারাবন্দি প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট আলবার্টো ফুজিমোরির কারাদণ্ড মওকুফ করে দিয়েছেন দেশটির বর্তমান নেতা পেদ্রো পাবলো কুকজিনস্কি।

ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট কুকজিনস্কির কার্যালয় স্থানীয় সময় রোববার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, স্বাস্থ্যগত বিবেচনায় ৭৯ বছর বয়সি ফুজিমোরির সাজা মওকুফ করে তাকে মুক্তি দেওয়া হচ্ছে।

১৯৯০-২০০০ সাল পর্যন্ত পেরুর প্রেসিডেন্ট ছিলেন ফুজিমোরি। দুর্নীতি ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের দায়ে  ২৫ বছরের জেল খাটছিলেন তিনি। সম্প্রতি তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। নিম্ন রক্তচাপ ও অস্বাভাবিক হৃদকম্পজনিত সমস্যায় ভুগছেন তিনি। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে স্বাস্থ্যগত বিভিন্ন সমস্যার কারণে বেশ কয়েকবার তাকে কারাগার থেকে হাসপাতাল, হাসপাতাল থেকে কারাগারে আনা-নেওয়া করা হয়েছে। কিন্তু এবার তার শারীরিক অবস্থায় একেবারে ভেঙে পড়েছে।

দুর্নীতি ও মানবাধিকার হরণের অভিযোগে তার দীর্ঘমেয়াদি কারাদণ্ড হলেও পেরুতে এখনো জনপ্রিয় মুখ ফুজিমোরি। মাওবাদী বিদ্রোহীদের দমনে সফলতা দেখানোয় তার প্রশংসা রয়েছে দেশটিতে। কিন্তু তার সমালোচকদের দৃষ্টিতে তিনি নিছক দুর্নীতিবাজ একনায়ক।

কিছু দিন আগে দুর্নীতির অভিযোগে প্রেসিডেন্ট কুকজিনস্কি অভিসংশনের মুখে পড়েন। কিন্তু কংগ্রেসে ফুজিমোরির সমর্থক আইনপ্রণেতাদের জন্য অভিসংশন এড়াতে সক্ষম হন তিনি। এর কয়েক দিনের মাথায় ফুজিমোরিকে সাধারণ ক্ষমা করলেন কুকজিনস্কি। বিরোধী রাজনীতিকরা অভিযোগ করেছেন, ফুজিমোরির সমর্থকদের সঙ্গে যোগসাঁজশ করে ক্ষমতায় টিকে গেছেন তিনি। কিন্তু এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন কুকজিনস্কি।

যে কারণে ফুজিমোরি অভিযুক্ত?
ঘুষ গ্রহণ ও ক্ষমতার অপব্যবহারের দায়ে ২০০৭ সালে ছয় বছরের কারাদণ্ড হয় ফুজিমোরির। ডেথ স্কোয়াডে হত্যার নির্দেশ দেওয়াসহ মানবাধিকার হরণের অন্যান্য অভিযোগে ২০০৯ সালে তাকে ২৫ বছর কারাদণ্ড দেন দেশটির আদালত।

তথ্যসূত্র : বিবিসি অনলাইন

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৫ ডিসেম্বর ২০১৭/রাসেল পারভেজ

Walton