ঢাকা, সোমবার, ৪ আষাঢ় ১৪২৫, ১৮ জুন ২০১৮
Risingbd
ঈদ মোরারক
সর্বশেষ:

চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোডের পাল্টা ব্যবস্থায় ভারতের জোট

শাহেদ হোসেন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৮-০২-১৯ ৯:১১:২১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০২-১৯ ৯:১১:২১ পিএম

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : আঞ্চলিক প্রভাব বিস্তার করতে চীনের হাজার কোটি ডলারের বেল্ট অ্যান্ড রোড প্রকল্পের বিপরীতে যৌথভাবে আঞ্চলিক অবকাঠামো প্রকল্প দাঁড় করাতে চাইছে অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও জাপান। এক জ্যেষ্ঠ মার্কিন কর্মকর্তার বরাত দিয়ে অস্ট্রেলিয়ান ফিন্যান্সিয়াল রিভিউ সোমবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই মার্কিন কর্মকর্তা বলেন, আঞ্চলিক চার অংশীদারের এই পরিকল্পনা একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা দেওয়ার সময় আসেনি। অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুলের যুক্তরাষ্ট্র সফরের সময় এই বিষয়ে প্রাথমিক আলোচনা হয়েছে।

ওই কর্মকর্তা জানান, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে টার্নবুলের বৈঠকের আলোচ্যসূচিতে বিষয়টি নিয়ে গুরুত্বের সঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে। এটাকে চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড প্রকল্পের ‘পাল্টা পদক্ষেপ’ না বলে ‘বিকল্প’ বলতে চান ওই কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, ‘কেউই বলছেন না যে চীনের এই অবকাঠামো গড়ে তোলা উচিত নয়। হয়তো চীন ওয়ান বেল্টের আওতায় একটি বন্দর তৈরি করবে। সড়ক ও রেলপথ নির্মাণের মাধ্যমে আমাদের বিকল্প পথ সেই বন্দরে গিয়েই যুক্ত হবে।’

টার্নবুলের মুখপাত্র, পররাষ্ট্রমন্ত্রী জুলি বিশপ কিংবা বাণিজ্য মন্ত্রী স্টিভেন সিওবো কেউই এই বিষয়ে মন্তব্য করেননি।

জাপানের মন্ত্রিসভার মুখ্য সচিব ইউশিদে সুগাকে এক সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, যৌথ স্বার্থের বিষয়ে জাপান, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া ও ভারত নিয়মিতই কথা বলে আসছে।

তিনি বলেন, ‘এটা চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোডের পাল্টা কোনো ব্যবস্থা নয়।’

২০১৩ সালে চীনের নেতা শি জিনপিং তার মধ্য এশিয়া ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া সফরের সময় যৌথভাবে সিল্ক রোড অর্থনৈতিক বলয় এবং একুশ শতকের উপকূলবর্তী সিল্ক রোড নির্মাণ প্রস্তাব তুলে ধরেন। 'বলয়' বলতে এখানে মধ্য এশিয়া, পশ্চিম এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য এবং ইউরোপে প্রকৃত সিল্ক রোডের উপর অধিষ্ঠিত দেশগুলোকে বোঝানো হয়েছে। এর পরিধি হিসেবে প্রাথমিকভাবে এশিয়া ও ইউরোপের প্রায় ৬০টি দেশকে অর্ন্তভূক্ত করা হয়। এই বেল্ট অ্যান্ড রোডের আওতায় অবকাঠামো নির্মাণ, সাংস্কৃতিক বিনিময় বৃদ্ধি, এবং বাণিজ্য বৃদ্ধির মাধ্যমে এই অঞ্চলটিকে একটি সংযোজক অর্থনৈতিক এলাকার মধ্যে একীকরণের কথা বলা হয়। আন্তর্জাতিক বিশ্লেষকদের মতে, এর মাধ্যমে চীন বিশ্বের একটি বৃহৎ অঞ্চলে নিজের প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করছে।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮/শাহেদ

Walton Laptop
 
   
Walton AC