ঢাকা, বুধবার, ১১ শ্রাবণ ১৪২৪, ২৬ জুলাই ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

সাংবাদিক আফতাব হত্যা মামলার রায় ২৮ মার্চ

মামুন খান : রাইজিংবিডি ডট কম
প্রকাশ: ২০১৭-০৩-২০ ৪:৪২:২৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৩-২০ ৪:৪৬:২৫ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক : একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রবীণ ফটো সাংবাদিক আফতাব আহমেদ (৭৮) হত্যা মামলার রায়ের তারিখ আগামি ২৮ মার্চ ধার্য করেছেন আদালত।

সোমবার ঢাকার চার নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবদুর রহমান সরদার আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায়ের জন্য এদিন ঠিক করে। এদিন আসামিপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন মাইনুদ্দিন মিয়া। এর আগে রাষ্ট্রপক্ষে মাহফুজুর রহমান লিখন যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন।

মামলার আসামিরা হলেন, আফতাব আহমেদের গাড়িচালক মো. হুমায়ুন কবির, মো. বিল্লাল হোসেন, হাবিব হাওলাদার, মো. রাজু মুন্সি, মো. সবুজ খান ও মো. রাসেল।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের ২৪ ডিসেম্বর রাতে রাজধানীর পশ্চিম রামপুরা ওয়াপদা রোডে ৬৩ নম্বরের নিজ বাসায় খুন হন ফটো সাংবাদিক আফতাব আহমেদ। পরদিন সকালে তার হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ৪ তলার ওই বাড়ির তৃতীয় তলায় আফতাব আহমেদ একাই বসবাস করতেন। লাশ উদ্ধারের সময় তার বাসার আলমারিসহ প্রায় সবকটি আসবাবপত্র তছনছ অবস্থায় পাওয়া যায়। লুট করা হয় নগদ টাকা, দুটি বাক্সে ভরা তার কর্মজীবনে ব্যবহৃত সবকটি ক্যামেরা ও দুর্লভ ছবি। মামলাটিতে গত বছর ২৫ মার্চ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ।

ডাকাতিপূর্বক হত্যার অভিযোগে দণ্ডবিধির ৩৯৬ ধারায় উক্ত আসামিদের বিরুদ্ধে ২০১৪ সালের ২৪ জুলাই অভিযোগ গঠন করেন আদালত। আসামিদের মধ্যে হাবিব, বিল্লাল ও হুমায়ুন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

আলোকচিত্র সাংবাদিকতায় অনন্য অবদানের জন্য ২০০৬ সালে একুশে পদকে ভূষিত হন আফতাব আহমেদ। ১৯৬৪ সালে দৈনিক ইত্তেফাক দিয়ে তার আলোকচিত্র সাংবাদিকতার শুরু। ২০০৬ সালে কর্মজীবন থেকে অবসর নেন তিনি। আফতাব আহমেদ তার বর্ণাঢ্য কর্মজীবনে ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ, চুয়াত্তরের দুর্ভিক্ষ, ’৭৫ সালে সপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যা, স্বৈরশাসনসহ সবকটি আন্দোলন-সংগ্রামে সাহসিকতার সঙ্গে ছবি তুলেছেন। কর্মজীবনে আফতাব আহমেদ সুনামের সঙ্গে বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেন। তবে প্রবীণ এ আলোকচিত্রীর কর্মজীবন শুরু হয় স্কুলের শিক্ষকতা দিয়ে।

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২০ মার্চ ২০১৭/মামুন খান/সাইফ

Walton Laptop