ঢাকা, শনিবার, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৫ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

নতুন টাকায় ঈদ সেলামি

হোসাইন মোহাম্মদ সাগর : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৬-২৬ ৯:০৫:৪৫ এএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৬-২৬ ১০:৫৫:০৩ এএম
প্রতীকী ছবি

হোসাইন মোহাম্মদ সাগর : ঈদের আনন্দটা সবথেকে বেশি শিশুদের। ঈদকে ঘিরে উৎসাহটাও তাই তাদেরই বেশি। শিশুদের কাছে ঈদের আকর্ষণীয় বিষয় হলো, ঈদি। অর্থাৎ ঈদের দিন বড়দের সালাম করে আদায় করা ঈদ সেলামি।

সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে নতুন পাঞ্জাবি পরে নামাজে যাওয়া। নামাজ শেষে কোলাকুলি। এরপরই গুরুজনদের পায়ে হাত লাগিয়ে সালাম করে সেলামির জন্য অপেক্ষা। কারো উপহার ২০ টাকা, কারোবা ৫০। কেউবা আবার ১০০, ৫০০ অথবা হাজার। সম্পর্ক আর ভালোবাসার ওপর ভিত্তি করে নির্ভর করে সেলামির টাকার পরিমান। আর এই সেলামিতেই ঈদের খুশি বেড়ে যায় কয়েক গুণ।

ঈদের দিন সকালে পরিবারের বড় সদস্যদের কাছ থেকে রীতিতে পরিণত হওয়া ঈদ সেলামি চাই-ই চাই। কার কাছ থেকে কত আদায় করবে, তা আগে থেকেও হিসাব কষে রাখে অনেকে। শুধু কি ছোটরা, পরিবারের গুরুজনদের কাছে সেলামির আবদার থাকে বড়দেরও। আর হ্যাঁ, এক্ষেত্রে পুরোনো টাকা কিন্তু একদমই চলবে না। সেলামি হিসেবে চাই কড়কড়ে নতুন টাকার নোট।

এ ব্যাপারে ধানমন্ডি বয়েজ স্কুলের শিক্ষার্থী রিফাত আব্দুল্লাহ জানান, ঈদ সেলামি পাওয়া সবসময়ই খুব আনন্দের ব্যাপার। নতুন টাকা পেলে তো আনন্দ আরো বেড়ে যায়। বড়দের কাছ থেকে সেলামি হিসেবে যে টাকা আদায় করা হয়, সেগুলো মূলত ঈদের আনন্দ উদযাপনেই খরচ করা হয়। অনেকেই আবার জমিয়ে রাখেন পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন কাজে লাগানোর জন্য।

ইতিহাস ঘেটে জানা যায়, মোগল আমলে ভারতবর্ষ ছিল রত্নভাণ্ডারে পরিপূর্ণ। রাজা বাদশারা কারো ওপর খুশি হলেই তার দিকে ছুড়ে দিতেন মণি মুক্তার মালা অথবা স্বর্ণমুদ্রার থলি। ঈদ সেলামির উৎপত্তিও সেখান থেকেই। মুসলিম রাজারা ঈদের দিনগুলোতে তাদের প্রিয় পাত্র এবং দাস-দাসীদের মধ্যে আনন্দ ভাগ করে নিতে মণি-মুক্তা অথবা স্বর্ণমুদ্রা বিলিয়ে দিতেন। তারই ধারাবাহিকতায় আজকের ঈদ সেলামি।

ঈদ সেলামির ব্যাপারে বড়রাও থাকেন হুঁশিয়ার। তারাও সংগ্রহে রাখেন নতুন টাকা। সেলামি দেওয়ার মধ্য দিয়ে তারাও যেন অর্জন করেন এক পরম তৃপ্তি।

এ ব্যাপারে শিক্ষক শামসুল আলম জানান, ঈদের দিন কেউ পা ছুঁয়ে সালাম করলে স্নেহ নিয়ে পাঞ্জাবির পকেট থেকে নতুন টাকার একটা নোট বের করে দেওয়ার আনন্দটাই অন্যরকম। এখন অবশ্য সেভাবে সালাম করার প্রথা বিলুপ্তির পথে। কেউ আর এখন আগের মতো বড়দের সালাম করে না, কিন্তু সেলামি ঠিকই চায়। তবে সেলামিটা তার পুরানো রেওয়াজেই বেশি মানানসই বলেও জানান তিনি।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৬ জুন ২০১৭/সাগর/ফিরোজ

Walton
 
   
Marcel