ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩ মাঘ ১৪২৪, ১৬ জানুয়ারি ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

নতুন বছরের সৌভাগ্যজনক রীতি

আফরিনা ফেরদৌস : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-১২-৩১ ৩:৪৩:১৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১২-৩১ ৫:৩৫:৫৭ পিএম
প্রতীকী ছবি

আফরিনা ফেরদৌস : নতুন বছর আমাদের জন্য ঠিক কতখানি সৌভাগ্যের তা বলা মুশকিল। তবে আমাদের চারপাশে অর্থাৎ বিভিন্ন দেশে নতুন বছরকে আমন্ত্রিত করা হয় নানা ধরনের রীতির মাধ্যমে। এবং সেগুলোকে সৌভাগ্যমূলক হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

আসুন জেনে নেওয়া যাক বিশ্বের প্রচলিত এই ধরনের কিছু রীতি সম্পর্কে।

ডেনমার্ক: প্লেট ভাঙা
প্রায় প্রতিটি বাড়িতে এমন কিছু প্লেট, বাটি বা কাপ থাকে যা একেবারেই বা একবারের জন্যও ব্যবহার করা হয়নি। ডেনমার্কে এই ধরনের পাত্রের সুব্যবহার করা হয়। রীতি অনুযায়ী বন্ধুর বাড়ির দরজায় নতুন পাত্র ভাঙার মাধ্যমে নতুন বছরকে বরণ করা হয় এবং বাড়ি থেকে খারাপ শক্তিকে বিতাড়িত করা হয়।

আরেকটি রীতি অনুসারে, প্রায় মাঝরাতে মানুষ একটু উঁচুতে চড়ে এবং ঠিক মাঝরাতে, যখন নতুন বছরের ঘণ্টা বাজে তখন সেখান থেকে লাফ দেয়। যেমন, টেবিল, চেয়ার, টুল অথবা অন্য যেকোনো জিনিস ব্যবহার করতে পারে লাফ দেওয়ার জন্য।

থাইল্যান্ড: পানি নিক্ষেপ
আপনি যদি থাইল্যান্ডে নতুন বছর উদযাপন করতে চান তাহলে অবশ্যই গোসলের পোশাক পরে নিবেন। কারণ থাইল্যান্ডে নতুন বছরকে স্বাগতম জানানো হয় পানি নিক্ষেপ করে। তবে সেটা ৩১ ডিসেম্বর নয়। থাই নতুন বছর শুরু হয় এপ্রিলের ১৩ থেকে ১৫ তারিখে যখন সংক্রান ফেস্টিভ্যাল চলে। সম্মান, ভালোবাসা এবং অশুভ ভাগ্যকে বিতাড়িত করার জন্য এই পানি নিক্ষেপ করা হয়।

দক্ষিণ আফ্রিকা: জানালা দিয়ে ফার্নিচার নিক্ষেপ
দক্ষিণ আফ্রিকাতে নতুন বছর উদযাপন করতে চাইলে এই বিষয়গুলো অবশ্যই জেনে রাখা দরকার। আকাশ থেকে আতশের পরিবর্তে দেখতে পারেন রাস্তায় ফার্নিচার, যা আপনার ভাবনার বাইরে। নতুন বছরে দক্ষিণ আফ্রিকানরা তাদের ব্যবহৃত পুরোনো সকল প্রকার আসবাবপত্র বা অকেজো আসবাবপত্র রাস্তায় ফেলে দেয়। এটি অবশ্য বিশ্বের আর কোথাও করা হয় না আর তেমনটা গ্রহণযোগ্যও নয় এই রীতিটি। তবে আফ্রিকানরা এটি করে যেন তাদের পূর্বের দুঃখ, দুর্দশা তাদেরকে ত্যাগ করে।

স্কটল্যান্ড: বাড়ির প্রথম অতিথি
জানুয়ারির প্রথম দিনে কে সবার আগে আসবে আপনার বাড়ির অতিথি হয়ে তা বলতে পারেন কি? সে যদি আপনার এলাকার একজন সাধারণ মানুষও হয় তাহলে তাকে সাদরে অভ্যর্থনা জানাতে হবে যদি আপনি স্কটল্যান্ডের বাসিন্দা হন। স্কটল্যান্ডের রীতি অনুযায়ী বছরের প্রথম দিনে যিনি সবার আগে বাড়িতে অতিথি হয়ে আসেন তিনি মঙ্গলকর হয়ে থাকেন। এই রীতিকে বেশ মানা হয় এবং বিশ্বাস করা হয়। বলা হয়ে থাকে, ডার্ক ম্যান সবার প্রথমে বাড়িতে প্রবেশ করে কিছু নির্দিষ্ট উপহার যেমন, লবণ, শর্টব্রেড অথবা হুইস্কি নিয়ে এবং বাড়ি থেকে সারা বছরের অকল্যাণ দূর করে দিয়ে যায়।

স্পেন: ১২ সেকেন্ডে ১২টি আঙুর খাওয়া
আপনি যদি স্পেনে নতুন বছর পালন করতে চান তাহলে সন্ধ্যার জন্য আপনার ক্ষুধা বাঁচিয়ে রাখা ভালো হবে। স্পেনের রীতি অনুযায়ী, বছরের শেষ ১২ সেকেন্ডে আপনি কতগুলো আঙুর খেতে পারেন তার পরীক্ষা করা হয়। আসলে ১২ সেকেন্ডকে ১২ মাস ধরা হয় এবং আপনার আঙুর খাওয়া নির্ভর করে আপনার বাকি ১২ মাস কেমন যাবে। তাই নতুন বছর উদযাপনে স্পেনে গেলে, এই শেষ সময়ে আঙুল খেতে ভুলে যাবেন না, আর সম্ভব হলে দানা সাড়া আঙুর নিবেন।

ফিলিপাইন: গোল আকৃতির ফল
ফিলিপাইনে নতুন বছর উদযাপনে কোনো নির্দিষ্ট সংখ্যার ফল খাওয়া হয় না তবে চারকোনা বা তিনকোনা আকৃতির ফল অগ্রহণযোগ্য। গোল আকৃতির ফলকে মুদ্রার সঙ্গে তুলনা করা হয়। যত বেশি গোল আকৃতির ফল তত বেশি মুদ্রা বা সম্পদ। মূলত ১২টি গোল আকৃতির ফল সংগ্রহ যথেষ্ট।

ব্রাজিল: সাদা পরিধান
ব্রাজিলে নতুন বছরকে স্বাগত জানানো হয় সাদা কাপড় পরিধানের মধ্য দিয়ে। এই দিনে বছরের অন্যান্য দিনের তুলনার পোশাকে চাকচিক্য থাকে না। নতুন বছরের শুভ কামনার মাধ্যমই হল সাদা পোশাক। তবে আর মানে এই নয় যে, অন্য কোনো রঙের পোশাক পরা যায় না। একেক ধরণের রঙ একেক ধরনের অর্থ বহন করে। যেমন সবুজ রঙ স্বাস্থ্য, হলুদ রঙ অর্থ, লাল রোমান্স। তাই পোশাক পরিধান ক্ষেত্রে তা বুঝে শুনে বাছাই করতে হয়।

জাপান: ১০৮ বার বেল বাজানো
জাপানে নতুন বছরের স্বাগত জানানো হয় মধ্যরাতে বেল বাজিয়ে। এবং রীতিমত ১০৮ বার বাজানো হয় এই বেল। কারণ বুদ্ধ বলেছেন, এতে করে শুভ্রতা আসে। যা কিছু অশুভ তা দূর হয়ে যায়।

তথ্যসূত্র : রিডার্স ডাইজেস্ট



রাইজিংবিডি/ঢাকা/৩১ ডিসেম্বর ২০১৭/ফিরোজ 

Walton
 
   
Marcel