ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৩ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

হাব নির্বাচনে গণতান্ত্রিক ঐক্যফ্রন্টের চমক

মোহাম্মদ নঈমুদ্দীন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৪-২১ ৪:১৩:২০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৪-২২ ৮:২১:৪৩ এএম

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : হজ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশনের (হাব) নির্বাচনের ফলাফলে গণতান্ত্রিক ঐক্যফ্রন্ট চমক সৃষ্টি করেছে। আলোচিত নেতা শেখ আবদুল্লাহ ও জামাল উদ্দিনকে হারিয়ে সংগঠনটির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন আব্দুস ছোবহান ভুইয়া হাসান।

আব্দুস ছোবহান ভুইয়া একা নন, জিতেছেন পূর্ণ প্যানেলে। সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়ায় ব্যালট বিপ্লব ঘটিয়ে ভোটাররা তাকে বেছে নিয়েছেন।

এজেন্সি মালিকরা জানান, কয়েক বছর ধরে হজ ব্যবস্থাপনায় যেসব অনিয়ম-দুর্নীতি হয়েছে তার জন্য প্রভাবশালী এ দুই প্যানেলকে দায়ী করা হচ্ছে। এ কারণে দুই প্যানেলকে ভোটাররা এবার প্রত্যাখ্যান করেছে।

কোটা সমস্যাসহ হজ অব্যবস্থাপনায় এজেন্সি মালিকরা হাবের এই দুই নেতার ওপর চরম অসন্তুষ্ট ছিলেন। যে কারণে হাবের নির্বাচনে তাদের ভরাডুবি ঘটেছে বলে ভোটাররা মনে করেন।

তবে জামাল ও আবদুল্লাহর প্যানেল একে অপরের বিরুদ্ধে নির্বাচনের আগে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে অপপ্রচার চালায়। এ বিষয়টি ভালভাবে কাজ লাগায় ছোবহানের প্যানেল। ভোটারদের মধ্যেও এ বিষয়টি নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। ভোটাররা কাদা ছোড়াছুড়িতে লিপ্ত প্রভাবশালী দুই গ্রুপকে বাদ দিয়ে কম আলোচিত ছোবহানের প্যানেলের পক্ষে ভোট দেয়।

নির্বাচনের আগে হাব গণতান্ত্রিক ফোরাম ও হাব সমন্বয় পরিষদ ছিল মূল আলোচনায়। প্রতিদ্বন্দ্বিতা হওয়ার কথা ছিল এই দুই গ্রুপে। দুই গ্রুপের নেতৃত্বে ছিলেন প্রভাবশালী দুই শীর্ষ হাবের নেতা। একজন হাবের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি জামাল উদ্দিন, আরেকজন হাবের বর্তমান মহাসচিব শেখ আবদুল্লাহ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত দুই গ্রুপকে প্রত্যাখ্যান করে এজেন্সি মালিকরা ব্যালেট বিপ্লবে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচন করেন।

হাবের বর্তমান সভাপতি ইব্রাহিম বাহার জানান, সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন শেষ হয়েছে। ভোটাররা তাদের পছন্দের নেতৃত্ব ঠিক করেছেন। আমি নির্বাচিতদের স্বাগত জানাই। আশা করছি, নতুন নেতৃত্ব হজ এজেন্সি ও হজযাত্রীদের সেবায় নিয়োজিত হবেন। হাবকে আরো গতিশীল করবে।

বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হাবের নির্বাচনে অনানুষ্ঠিক ফলাফলে বিজয়ী হাব গণতান্ত্রিক ঐক্য ফ্রন্টের প্রধান আবদুস ছোবহানের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন হাব গণতান্ত্রিক ফোরামের প্রধান ও হাবের বর্তমান মহাসচিব শেখ আবদুল্লাহ। তিনি মাত্র পাঁচ ভোটের ব্যবধানে তার কাছে হেরে যান। আর হাবের সাবেক সভাপতি ও হাব সমন্বয় পরিষদের প্রধান জামাল উদ্দিনের অবস্থান তৃতীয়।

নতুন নেতৃত্বকে অভিনন্দন জানিয়েছেন হাব গণতান্ত্রিক ফোরামের প্রধান ও হাবের বর্তমান মহাসচিব শেখ আবদুল্লাহ। তিনি বলেন, নির্বাচিতদের স্বাগত জানাই। আশা করছি, নতুন নেতৃত্বে হজ এজেন্সিদের কল্যাণে হাব এগিয়ে যাবে। হজ এজেন্সি ও হজযাত্রীর সেবায় সুখে-দুঃখে আগে যেমন ছিলাম এখনও আছি, ভবিষ্যতেও থাকব।’ তিনি নির্বাচিতদের সার্বিক সহযোগিতার কথাও বলেন।

একই সুরে কথা বলেছেন নির্বাচনে পরাজিত হাব সমন্বয় পরিষদের প্রধান জামাল উদ্দিন।

তিনি বলেন, হাবের দায়িত্বে যারা এসেছেন তাদের অভিনন্দন। যেকোনো কাজে আগের মতো পাশে আছি। নতুন কমিটির কাজে আমার সার্বিক সহযোগিতা থাকবে।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টায় ভোট গণনা শেষ হয়। গণনা শেষে অনানুষ্ঠানিকভাবে ছোবহানের প্যানেলকে সবকটি পদে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। তবে আনুষ্ঠানিক ফলাফল ঘোষণা হবে আগামী রোববার। রাজধানীর নয়াপল্টনে হাব কার্যালয়ে নির্বাচন কমিশন ফলাফল ঘোষণা করবে। ৩০ এপ্রিল নতুন কমিটির কাছে দায়িত্বভার হস্তান্তর করা হবে।

ভোটে নির্বাচিতরাই নির্বাহী কমিটির প্রথম সভায় তাদের সভাপতি, মহাসচিবসহ অন্য অফিস নির্বাহী নির্বাচিত করবেন।

হাব গণতান্ত্রিক ঐক্যফ্রন্ট থেকে বিজয়ী সদস্য আব্দুল্লাহ আল নাসের ভোটারদের অভিবাদন জানিয়ে বলেন, অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে নীরব ব্যালেট বিপ্লব হয়েছে। ভোটাররা যে আশা নিয়ে আমাদের প্যানেলকে সবকটি পদে নির্বাচিত করেছেন আমরা তাদের প্রত্যাশার প্রতিদান দেওয়ার চেষ্টা করব।

আবদুস ছোবহানের গণতান্ত্রিক ঐক্যফ্রন্টের প্যানেল থেকে আরো যারা নির্বাচিত হয়েছেন তার হলেন- শাহাদাত হোসেন তসলিম, মুহাম্মদ তাজুল ইসলাম, আব্দুল্লাহ আল নাসের, এএসএম ইব্রাহিম, মোহাম্মদ রুহুল আমিন মিন্টু, মোহাম্মদ ওয়াহিদুল আলম, মাওলানা ইয়াকুব শরাফতি, আব্দুস সালাম আরেফ, আকবর হোসেন মনজু, মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ, মাওলানা ফজলুর রহমান, মোহাম্মদ সোলায়মান, কারী গোলাম মোস্তফা, এমএনএইচ খাদেম দুলাল, রফিকুল ইসলাম, মোহাম্মদ আবু তাহের, গোলাম মোহাম্মদ, মাজহারুল হক ভূঁইয়া, আবুল কালাম আজাদ, মোহা. নাজিম উদ্দিন, মোহাম্মদ শাহ আলম, জিয়া উদ্দিন চৌধুরী, মাহমুদুল হক পেয়ারু, খাজা মঈনউদ্দিন আহমেদ জালালাবাদি, জহিরুল কবির চৌধুরী ও মুহাম্মদ আবদুল কাদির।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটে একযোগে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। শেষ হয় বিকেল ৫টায়। রাজধানী নয়াপল্টনের আনন্দ কমিউনিটি সেন্টার ও চট্টগ্রাম-সিলেটে হাব কার্যালয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটাররা পছন্দের লোকজনকে ভোট দেন। নির্বাচন কমিশনার ছিলেন হাবের শীর্ষনেতা হারুনুর রশীদ।

 

 

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২১ এপ্রিল ২০১৭/নঈমুদ্দীন/মুশফিক

Walton
 
   
Marcel