ঢাকা, বুধবার, ১১ আশ্বিন ১৪২৫, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

শেষ কর্মদিবসে ফাঁকা সচিবালয়

মোহাম্মদ নঈমুদ্দীন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৬-১৪ ৪:২৫:২৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৬-১৪ ৪:২৫:২৭ পিএম

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : ঈদ আসন্ন। বৃহস্পতিবার শেষ কর্মদিবসে হাজিরা দিয়েই কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ছুটেছেন গন্তব্যে। ঈদের আগেই যেন ঈদের ছুটির আমেজ।

প্রশাসনের কেন্দ্রবিন্দু বাংলাদেশ সচিবালয়ে বৃহস্পতিবার সকালের চিত্র এটি। বেলা যত বাড়ে সচিবালয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারী ততই কমতে থাকে। আগাম ঈদ মোবারক জানিয়ে গন্তব্যে ছুটতে থাকেন তারা।

সচিবালয় থেকে বের হওয়ার সবগুলো ফটকে দুপুরের পর থেকে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের হাতব্যাগ, লাগেজ নিয়ে বেরিয়ে যেতে দেখা গেছে। কেউ কেউ মন্ত্রণালয়ের গাড়িতে করে সচিবালয় ত্যাগ করেন।

গ্রামে ছুটে চলা সচিবালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, শেষ দিনে অফিস হয় না। হাজিরা দিয়েই কিভাবে বাড়ি যাব, পরিবার নিয়ে গাড়ি ধরব সেই টেনশন কাজ করে। তাই অফিসে হাজিরা দিয়ে চলে যাচ্ছি।

সচিবালয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়, খাদ্য মন্ত্রণালয়, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়, তথ্য মন্ত্রণালয়, কৃষি মন্ত্রণালয়, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় ঘুরে দেখা গেছে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতি খুবই কম। অফিসে কোনো কর্মচাঞ্চল্য নেই। অনেক কক্ষই খালি পড়ে আছে। কোনো কক্ষে চারজন প্রশাসনিক কর্মকর্তা বসলে সেখানে দেখা গেছে একজন বা দু’জন বসে আছেন। বাকিরা আগেই চলে গেছেন। সচিবালয়ে যারা অফিস করছেন তাদের বেশিরভাগই ব্যস্ত ছিলেন ঈদের অগ্রিম শুভেচ্ছা বিনিময়ে।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়গুলোর তেমন কোনো কর্মসূচিও ছিল না। মন্ত্রিদের দপ্তরও ছিল ফাঁকা। নির্বাচনী বছর হওয়ায় বেশিরভাগ মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও ‍উপমন্ত্রী আগে ভাগেই নিজের নির্বাচনী এলাকায় ছুটে গেছেন।

বেলা ১১টার দিকে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে বিশ্বকাপ ফুটবল উপলক্ষে স্মারক ডাক টিকিট উদ্বোধন করেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। এছাড়া তেমন উল্লেখযোগ্য কর্মসূচি নেই বললেই চলে।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে দর্শনার্থীও ছিল অনেক কম। সবগুলো ভবনের লিফটের সামনের অন্যান্য দিনের মতো মানুষের ভিড় ছিল না। লিফট অপারেটরদের সচিবালয়ে যাতায়াতকারী বিভিন্ন ক্ষেত্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদের কাছ থেকে ঈদের বকশিস আদায়ে ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে।

ঈদ বকশিসে ব্যস্ত একজন লিফটম্যান বলেন, আজকে তো শেষ সুযোগ। একবছরে এই একবারই তো মিলে ঈদ বকশিস। কারো কাছে খুঁজি না, খুশি মনে দিলে বকশিস নেই।

বৃহস্পতিবার শেষ কর্মদিবসে অনেকটা বলতে গেলে ঈদের ছুটির আমেজ বিরাজ করছে সচিবালয়ে। শবে কদরের ছুটির পর ঈদের বন্ধের মধ্যে একদিন অফিস থাকায় অনেকে মঙ্গলবারই ছুটি নিয়ে গ্রামের বাড়িতে ছুটে গেছেন। ঈদ শনিবার হলে শুক্র, শনিবার দুদিন পরে গেছে সরকারি ছুটির দিনে। মাত্র একদিন ভোগ করতে পারবেন ঈদের ছুটি। তারপরই আবার ফিরে আসতে হবে কর্মস্থলে। তাই ঈদের আগে অন্তত বৃহস্পতিবার হাজিরা দিয়ে হলেও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মাঝে বাড়ি ফেরার তাড়াহুড়া লক্ষ্য করা গেছে সচিবালয়ে ও অফিসপাড়ায়।

শুক্রবার শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেলে শনিবার মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে। শুক্র, শনি ও রোববার সরকারি ছুটি থাকবে। তবে ২৯ রমজান চাঁদ দেখা না গেলে ঈদ হবে আগামী রোববার। সেক্ষেত্রে একদিন সরকারি ছুটে বাড়বে।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৪ জুন ২০১৮/নঈমুদ্দীন/সাইফ

Walton Laptop
 
     
Walton