ঢাকা, শুক্রবার, ৬ বৈশাখ ১৪২৬, ১৯ এপ্রিল ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

‘বল টেম্পারিং আটকানোর সুযোগ ছিল আমার’

আবু হোসেন পরাগ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৮-১২-২১ ৯:৪২:২১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-১২-২২ ১১:৫৭:০০ এএম
স্টিভ স্মিথ

ক্রীড়া ডেস্ক : কেপটাউন টেস্টে বল টেম্পারিংয়ের ঘটনা নিয়ে প্রথমবারের মতো মুখ খুললেন স্টিভ স্মিথ। এমন কিছু ঘটতে যাচ্ছে জেনেও তিনি তা এড়িয়ে গিয়েছিলেন। আর এটিকে তার নেতৃত্বের ব্যর্থতা হিসেবে দেখছেন তখনকার অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক।

গত মার্চে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দেশে ফিরে অশ্রুসিক্ত সংবাদ সম্মেলনের পর শুক্রবার প্রথমবার সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হন স্মিথ। সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে স্মিথ জানান, ডেভিড ওয়ার্নার ও ক্যামেরন ব্যানক্রফটের বল টেম্পারিং নিয়ে আলোচনাটা তিনি কীভাবে পাশ কাটিয়ে গিয়েছিলেন।

‘আমি এই বিষয়ে কিছু জানতে চাই না, এটা বলে আমি পাশ কাটিয়ে গিয়েছি। তখনই আমার সুযোগ ছিল কিছু ঘটতে যাচ্ছে সেটাকে আটকানোর। আমার কাছে মনে হয় বিষয়টা এমন যে, সেই ঘরে আমি এমন কিছু পাশ কাটিয়ে গিয়েছি, যেটা আটকানোর সুযোগ ছিল আমার। কিন্তু আমি তা করিনি’- বলেছেন স্মিথ।

দায়টা নিজের কাঁধেই নিচ্ছেন তখনকার অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক, ‘কোনো কিছু ঘটার সম্ভাবনা ছিল এবং সেটা মাঠে ঘটেছে, যেটা আটকানোর সুযোগ ছিল আমার। “আমি কিছু জানতে চাই না” বলাটা আমার ঠিক হয়নি। অধিনায়ক হিসেবে এটি আমার ব্যর্থতা, আমি এর পুরো দায় নিচ্ছি।’

অস্ট্রেলিয়ার ড্রেসিংরুমে বল টেম্পারিংয়ের অভিজ্ঞতা তার এর আগে হয়নি বলে দাবি করেছেন স্মিথ। আর এই ঘটনার মূল হোতা যিনি, সেই ওয়ার্নারের সঙ্গে তার সম্পর্কটা ঠিকঠাক আছে বলেও জানিয়েছেন তিনি, ‘আমি যতদূর জানি, এটাই প্রথমবার ছিল। বিশ্বের অন্য দলগুলো কী করে, সেটা বিচার করতে পারব না আমি। যেকোনো ম্যাচেই আপনি বলের মুভমেন্ট চাইবেন। তবে এটা অবশ্যই বৈধ উপায়ে হতে হবে।’

সেই ঘটনার পর সময় কতটা কঠিন গেছে সেটাও জানিয়েছেন স্মিথ, ‘এখন আমি ঠিক আছি। দক্ষিণ আফ্রিকার সেই ঘটনার পর কিছুদিন বেশ অন্ধকারে ছিলাম, কঠিন কিছু দিন কাটিয়েছি। তবে সেসব এখন অতীত। জীবনে উত্থান-পতন থাকবেই, তবে এখন আমি ঠিক আছি, ঠিক পথেই এগোচ্ছি।

‘কঠিন দিন কাটিয়েছি। তবে আমি ভাগ্যবান যে আমার আশপাশে অনেক কাছের মানুষ ছিল, তারা অনেক সাহায্য করেছে। এমনও দিন গেছে যেদিন বিছানা ছেড়ে উঠতে চাইতাম না। কিন্তু কাছের মানুষরা আমাকে বুঝিয়েছে, সব ঠিক হয়ে যাবে। আমি একটা ভুল করেছি এবং বেশ বড় ভুল। এখন আমি এগিয়ে যাওয়ার এবং একজন মানুষ হিসেবে উন্নতি করার চেষ্টা করছি।’

বল টেম্পারিংয়ের ঘটনায় আন্তর্জাতিক ও অস্ট্রেলিয়ার ঘরোয়া ক্রিকেটে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হন স্মিথ ও সহ-অধিনায়ক ওয়ার্নার, আর ব্যানক্রফটকে নিষিদ্ধ করা হয় নয় মাসের জন্য। আগামী ২৯ ডিসেম্বর ব্যানক্রফটের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হচ্ছে এবং পার্থ স্কোর্চার্সের হয়ে তিনি বিগ ব্যাশে ফিরতে পারেন।

স্মিথ ও ওয়ার্নারের নিষেধাজ্ঞা থাকবে আগামী বছরের মার্চ পর্যন্ত। দুজনই এরই মধ্যে গ্রেড ক্রিকেটে খেলেছেন। স্মিথের এবারের বিপিএলেও খেলার কথা ছিল। কিন্তু বিসিবির সিদ্ধান্তে শেষ পর্যন্ত তা হচ্ছে না। ফেব্রুয়ারিতে পাকিস্তান সুপার লিগে খেলবেন তিনি। আইপিএলের দল রাজস্থান রয়্যালসের সঙ্গেও চুক্তি আছে তার।

 

 

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২১ ডিসেম্বর ২০১৮/পরাগ

Walton Laptop
     
Walton AC
Marcel Fridge