ঢাকা, শনিবার, ৮ আশ্বিন ১৪২৪, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

ঈদ করতে আ.লীগ নেতারা এলাকায়

নৃপেন রায় : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৯-০১ ৬:২১:২৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৯-০১ ৬:২১:২৯ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক : ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের অধিকাংশ নেতাই নিজ নিজ এলাকায় ঈদ উদযাপন করবেন। একাদশ জাতীয় নির্বাচনের লক্ষ্যে এই ঈদকে কাজে লাগাতে চায় দলটি।

এ লক্ষ্যে অধিকাংশ নেতাই কয়েকদিন আগেই নিজ নিজ এলাকায় চলে গেছেন। শুধু আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিবারের মতো এবারও ঢাকাতেই ঈদ উদযাপন করবেন। এছাড়াও কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা রাজধানীতে ঈদ উদযাপন করবেন।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা, তাদের ব্যক্তিগত সহকারী ও শুভাকাঙ্ক্ষীরা রাইজিংবিডিকে এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন গণভবনে ঈদ উদযাপন করবেন। প্রতিবারের মতো এবারও তিনি ঈদুল আজহার দিন সকাল ৯টা থেকে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ, উপদেষ্টা পরিষদ, রাজনীতিক, কবি, সাহিত্যিক, লেখক, সাংবাদিক, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন। এরপর ১১টা থেকে বিচারপতি ও কূটনীতিকদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন। পরবর্তীতে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সময় কাটাবেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা।

অন্যদিকে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের নিজ নির্বাচনী এলাকায় ঈদ উদযাপন করবেন। গত ২৯ আগস্ট বিকেলে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ের পার্শ্ববর্তী নির্বাচনী অফিসে সম্পাদকমণ্ডলীর সভা শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে ঈদুল আজহায় আর্থিক ব্যয় সংকুলান করে বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান তিনি। ওবায়দুল কাদের সম্প্রতি বন্যা পরিস্থিতি তুলে ধরে সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের আহ্বান জানিয়ে বলেন, এবারকার পবিত্র ঈদুল আজহায় বন্যা পরিস্থিতির কারণে আমরা ঈদের আনন্দ ও খুশি বন্যাকবলিত অসহায় মানুষের সঙ্গে ভাগাভাগি করতে চাই। বন্যাদুর্গত মানুষের সাহায্যের্থে দাঁড়ানোর জন্য দলীয়ভাবে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আমরা নেতাকর্মীদের যতটা সম্ভব ঈদের খরচ সংকুচিত করে দুর্গত গরিব মানুষের জন্য সাহায্য করার আহ্বান করছি।

অন্যদিকে একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচনকে লক্ষ্য করে কোরবানির ঈদকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের নেতাকর্মীসহ ভোটারদের কাছে যাওয়ার এই সুযোগকে কাজে লাগাতে চায় টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এ লক্ষ্যে নির্বাচন প্রস্তুতির আগাম মহড়া তৃণমূলে সেরে ফেলতে চায় দলটি। তাই এবার ক্ষমতাসীন দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের অধিকাংশই ঈদের কয়েক দিন আগেই নিজ নিজ এলাকায় ছুটে গেছেন।

এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘এবারের কোরবানির ঈদে বন্যা পরিস্থিতির কারণে দুর্গত ও ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর লক্ষ্যে দলীয়ভাবে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আমরা সরকারের ত্রাণ তৎপরতার পাশাপাশি নিজ নিজ সামর্থ্য অনুযায়ী বন্যাদুর্গত অসহায় মানুষের পাশে থাকতে চাই। কারণ আওয়ামী লীগ জনগণের দল, জনগণের জন্য রাজনীতি করে। তাই সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের বন্যাদুর্গত এলাকায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান করা হয়েছে। আমরা সেই লক্ষ্যে দলীয় নির্দেশনা পৌঁছে দিচ্ছি।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের নেতাদের মধ্যে যারা নিজ এলাকায় ঈদ করবেন তারা হলেন- সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফরউল্লাহ, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, ড. আবদুর রাজ্জাক, কর্নেল (অব.) ফারুক খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যে মাহবুব উল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, আবদুর রহমান। সাংগঠনিক সম্পাদকদের মধ্যে আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, একেএম এনামুল হক শামীম, মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। সম্পাদকমণ্ডলীর অন্য সদস্যদের মধ্যে ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, আফজাল হোসেন, দেলোয়ার হোসেন, ইঞ্জি. আব্দুস সবুর, টিপু মুনশি, ডা. রোকেয়া সুলতানা, ফরিদুন্নাহার লাইলী, হাবিবুর রহমান সিরাজ, শামসুন্নাহার চাঁপাসহ অধিকাংশ নেতাই এলাকায় ঈদ পালন করবেন। আর কার্যনির্বাহী সদস্যদের মধ্যে ইকবাল হোসেন অপু, এবিএম রিয়াজুল কবির কাওছার, এস এম কামাল হোসেন, আনোয়ার হোসেন, পারভীন জামান কল্পনা, মারুফা আকতার পপিসহ অধিকাংশই নিজ নিজ এলাকায় ঈদ পালন করবেন। আর আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, জাহাঙ্গীর কবির নানকসহ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা ঢাকায় ঈদ করবে বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১ সেপ্টেম্বর ২০১৭/নৃপেন/মুশফিক

Walton Laptop