ঢাকা, বুধবার, ২৯ কার্তিক ১৪২৫, ১৪ নভেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

‘গ্রেপ্তার নির্যাতন করে আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না’

রেজা পারভেজ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-১০-১৩ ৫:১৫:২৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-১১-০৩ ১০:২৯:০৫ এএম

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : বিএনপির নীতি নির্ধারকের একজন নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, তার দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে ও তাদেরকে গ্রেপ্তার নির্যাতন করে আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না।

সরকারকে উদ্দেশ্যে করে তিনি বলেন, ‘নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করে বা তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে যদি রাজনীতি বন্ধ করা যেতো, লড়াই সংগ্রাম বন্ধ করা যেতো; তাহলে দুনিয়াতে কোন পরিবর্তন হতো না। কখনো কোথাও গণতন্ত্র ফিরে আসতো না। ইতিহাস বলে, স্বৈরাচারী সরকার যতো ক্ষমতাবানই হোক তাকে জনগণের সামনে নত হতে হয়, পরাজিত হতে হয়।’

শনিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি কথা বলেন। খালেদা জিয়ার মুক্তি, তারেক রহমানের সাজা বাতিল এবং ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের মুক্তির দাবিতে এই সমাবেশের আয়োজন করে ‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ফোরাম’ নামের একটি সংগঠন।

সমাবেশে নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘আওয়ামী লীগের নেতারা সন্ত্রাসী দল হিসেবে বিএনপির নিবন্ধন বাতিলের বিষয়ে কথা বলেছেন। কিন্তু জামায়াতে ইসলামীকে নিষিদ্ধ করার জন্য লন্ডনে আজকের প্রধানমন্ত্রীকে এক সাংবাদিক প্রশ্ন করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী তখন বলেছিলেন, একটা রাজনৈতিক দল হয়ে আরেকটা দলকে কিভাবে নিষিদ্ধ করবেন।’

‘একুশে আগস্টের সময় বিএনপি ক্ষমতায় থাকায় সন্ত্রাসী দল হিসেবে বিএনপির যদি নিবন্ধন বাতিল হয় তাহলে বোমা হামলা শুরু হয়েছিল আওয়ামী লীগের সময়। তাদের সময় উদিচীর অনুষ্ঠানে ও রমনায় বোমা হামলা হয়েছিল। লগি বৈঠা দিয়ে সন্ত্রাসী কায়দায় পিটিয়ে পল্টনে মানুষ হত্যা করেছিল আওয়ামী লীগ। তাদের নিবন্ধন থাকে কিভাবে?’, বলেন নজরুল ইসলাম।

তিনি আরও বলেন, ‘স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর আজ পর্যন্ত ঠিক করতে পারলাম না নির্বাচনকালীন সরকার কেমন হবে। আজ পর্যন্ত আমরা একটা গণতান্ত্রিক পরিবেশে জীবনযাপনের পন্থা বের করত পারলাম না। স্বাধীনতা যুদ্ধে লাখ লাখ মানুষ জীবন দিয়েছে। কথায় কথায় যাদেরকে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করি তাদের আত্মা যে কষ্ট পাচ্ছে এটা বুঝি না।’

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘জার্মানির একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশকে স্বৈরাচারী রাষ্ট্র হিসেবে উল্লেখ করেছে। এর প্রেক্ষিতে এরশাদ সাহেব প্রধানমন্ত্রীকে বলছেন, আমি স্বৈরাচার ছিলাম কিন্তু আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাইনি। আমাদের দেশে যারা এই ধরণের স্বৈরাচারের ভাবমূর্তি নিয়ে আসেন তাদের উদ্দেশ্যে একটি কথাই বলতে চাই, মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে যদি সত্যিই ধারণ করেন তাহলে মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনা গণতন্ত্রকে অবাধে চলতে দিন।’

এ সময় নেতাকর্মীদেরকে ‘গণতন্ত্রের জন্য’ লড়াইয়ে প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের বিরুদ্ধে মামলার প্রসঙ্গ তুলে নজরুল ইসলাম বলেন, ‘কেউ বলে তার বিরুদ্ধে ৪০০ মামলা, কেউ বলে ৬০০ মামলা। মামলা কোন ইয়ার্কির বিষয় নাকি। মানে ইচ্ছা হল আর মামলা করে দিলেন। ইয়ার্কির বিষয় না হলে একজন মানুষের নামে সাড়ে ছয়শ মামলা হল কিভাবে?’

আয়োজক সংগঠনের আহ্বায়ক আখতারুজ্জামান বাচ্চুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদিকা সুলতানা আহমেদ, জাতীয়তাবাদী তাতী দলের সহ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, জিনাফের সভাপতি লায়ন মিয়া মো. আনোয়ার।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৩ অক্টোবর ২০১৮/রেজা/শাহনেওয়াজ

Walton Laptop
 
     
Marcel