ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ২০ নভেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

‘জনগণের রায়ে শেখ হাসিনা আবারও প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেবেন’

মামুন খান : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-১১-০২ ৫:২৭:৩৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-১১-০৩ ১০:২৯:৩৭ এএম

নিজস্ব প্রতিবেদক : জনগণের রায় নিয়ে শেখ হাসিনা আবারও প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করবেন বলে আশা ব্যক্ত করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকার গত ১০ বছর ধরে যে উন্নয়ন করেছে জনগণ তার পক্ষেই রায় দেবে।

জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে বঙ্গবন্ধু গবেষণা সংসদ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ আশা প্রকাশ করেন।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শেখ হাসিনার পরিবারের সদস্যদের হত্যা করা হয়, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট তাকে গ্রেনেড হামলা করে হত্যার চেষ্টা করা হয়। পরিবারের সদস্যদের হারানোর দীর্ঘদিন পর দেশে এলেও তাকে নিজের বাড়িতে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। খালেদা জিয়ার ছেলে কোকোর মৃত্যুর পর তার বাড়ির আঙিনায় দাঁড়িয়ে ছিলেন, দরজা খোলা হয়নি বরং বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ঐক্যফ্রন্ট সংলাপে বসার ইচ্ছা প্রকাশ করলে তিনি সমস্ত কিছুকে একপাশে ফেলে জাতির স্বার্থে সবকিছু ভুলে তাদের নৈশভোজের আমন্ত্রণ জানিয়ে সংলাপ করেছেন। দেশের ইতিহাসে প্রথম কোন প্রধানমন্ত্রী সংলাপ করেছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার অত্যন্ত সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে সংলাপ হয়েছে। ঐক্যফ্রন্টের নেতারা মন খুলে কথা বলেছেন। এটি দেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে মাইলফলক।’

তিনি বলেন, ‘সাড়ে তিন ঘণ্টা থেকে পৌনে চার ঘণ্টা সেখানে আলোচনা হয়েছে। ড. কামাল হোসেন যখন বললেন, প্রয়োজনে ছোট পরিসরে আমরা আলোচনায় বসতে চাই। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আপনারা যদি চান আমরা অবশ্যই বসতে রাজি আছি, আমাদের দরজা খোলা আছে।’

প্রাক্তন এ মন্ত্রী বলেন, ‘এরপর গতকাল ড. কামাল হোসেন বলেছেন, অত্যন্ত সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশের কথা। এটাই সত্য, এটাই হচ্ছে বাস্তবতা। তাই যে সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে, আশা করি এই পরিবেশ আপনারা কেউ নষ্ট করবেন না। সংবিধানের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই, সেটি বৃহস্পতিবার আলোচনা হয়েছে। সংবিধানের আলোকে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচন করার জন্য যা যা করণীয় তা প্রধানমন্ত্রী সংলাপে ব্যক্ত করেছেন।’ গরম গরম বক্তব্য দিয়ে কাউকে পরিবেশ নষ্ট না করার আহ্বান জানান হাছান মাহমুদ।

অতীতে যেভাবে বিশৃঙ্খল পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছিল, সে পথে বিএনপি হাঁটবে না এবং ঐক্যফ্রন্টকেও তেমন কাজে ব্যবহার করবে না বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। আর বিশৃঙ্খলা করলে জনগণ প্রতিহত করবে বলে হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে অংশ নেবে বলে আশা করছি। একটা প্রতিযোগিতা মুলক নির্বাচন হবে। জনগণ প্রতিনিধিদের পছন্দ করার সুযোগ পাবে। আওয়ামী লীগ সরকার গত ১০ বছর ধরে যে উন্নয়ন করেছে জনগণ সেই পক্ষেই রায় দেবে।’ জনগণের রায় নিয়ে শেখ হাসিনা আবারও প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করবেন বলে আশা ব্যক্ত করেন হাছান মাহমুদ।

আওয়ামী লীগ সাংঘর্ষিক রাজনীতির অবসান চায় মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘আমরা যে কোনো ফনট্রেশন অব পলিটিক্স বাদ দিতে চাই। আমরা বাংলাদেশে সাংঘর্ষিক রাজনীতির অবসান চাই। আমরা পলিটিক্স অব কনসাল্টেশনে বিশ্বাস করি, আমরা পলিটিক্স অব একমোডেশনে বিশ্বাস করি। ’

হাসান মাহমুদ বলেন, ‘জিয়াউর রহমান ১৫ আগস্ট হত্যাকা-ের সঙ্গে যেমন যুক্ত ছিল তেমনি ৩ নভেম্বর চার নেতা হত্যাকা-ের সঙ্গে ওৎপ্রোতভাবে জড়িত ছিল। তার বিচার হয়নি। জনগণ যদি রায় দিয়ে আওয়ামী লীগকে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব দেয় তাহলে সরকারের পক্ষ থেকে যাতে তাদের বিচার করার উদ্যোগ নেওয়া হয় সে অনুরোধ করা হবে।’

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু, আওয়ামী লীগ নেতা বলরাম পোদ্দার, ঢাকা মহানগর (উত্তর) আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাদের খান, সবুজবাগ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চিত্ত রঞ্জন দাস, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা, বঙ্গবন্ধু গবেষণা সংসদের সভাপতি সিদ্দিক হোসেন চৌধুরী, প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. জাহাঙ্গীর আলম।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২ নভেম্বর ২০১৮/মামুন খান/শাহনেওয়াজ

Walton Laptop
 
     
Marcel
Walton AC