ঢাকা, মঙ্গলবার, ৪ আশ্বিন ১৪২৪, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

পাহাড়ি এলাকায় বিষমুক্ত শজনের আবাদ

মামুন চৌধুরী : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৩-২৮ ৩:৪২:০৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৪-০১ ১:২৮:২৩ পিএম

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : পাহাড়ের জনপদে এখন অনেক ভাল ভাল সবজির আবাদ হয়, এর মধ্যে অন্যতম একটি হচ্ছে শজনে।

এখন শজনের মৌসুম। ফাল্গুন মাসের প্রথমদিক থেকেই গাছে আসতে শুরু করে শজনে । চৈত্রমাসজুড়ে বিক্রি হয়। এ সবজিটি এক সময় হবিগঞ্জের সর্বত্র চাষ হতো।  তবে এখন পাহাড়ি এলাকায় বেশি চাষ হয়। এই মৌসুমে পাহাড়ে শজনের ভাল ফলন হয়েছে ।

চুনারুঘাট উপজেলার দেউন্দি চা-বাগান এলাকায়  শ্রমিকদের বাড়িতে বাড়িতে শজনে গাছের দেখা মেলে। ফলন ভাল হওয়ায় অনেকেই নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে আবার বিক্রিও করছেন।

এভাবে জেলার প্রতিটি চা-বাগান এলাকায় এবং আদিবাসী পুঞ্জির বাড়িতেও শজনে চাষ হচ্ছে। শজনের ভাল ফলন পেতে কোনো সার বা বিষ প্রয়োগের প্রয়োজন হচ্ছে না।

দেউন্দি চা-বাগানের ম্যানেজার রিয়াজ উদ্দিনের সঙ্গে আলাপকালে তিনি জানান, বাগানের উঁচু-ঢালু স্থানের মাটিতে শজনের ভাল ফলন হয়।

শ্রমিক সরদার সূর্য মাল বলেন,  ‘আমাদের কয়েকটি গাছ রয়েছে। প্রতিবছর সবকটি গাছে শজনে ধরে। নিজেদের খাবারের পর বিক্রি করে ভাল টাকা পাওয়া যায়।’

তিনি জানান, মৌসুম শেষে গাছের কিছু কিছু ডাল কেটে দিতে হয়। এতে নতুন ডালে বেশি ফলন হয়।

বাহুবলের পুটিজুরী পাহাড়ের কালিগজিয়া পুঞ্জির বাসিন্দারা জানান, তাদের বাড়ি বাড়ি শজনে গাছ রয়েছে। এ বছর গাছে শজনের ফলনও ভাল হয়েছে। তাই  নিজেরা খাওয়ার পাশাপাশি  তারা শজনে বিক্রিও করছেন।

তারা জানান, শজনে চাষে কোনো খরচ নেই। বরং বিক্রি করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন তারা।

শায়েস্তাগঞ্জ পুরান বাজারের পাইকারি ক্রেতা মোতাব্বির হোসেন বলেন, ‘গ্রামে এখনও কিছু কিছু বাড়িতে শজনের চাষ হয়। তবে বেশি চাষ হচ্ছে পাহাড়ে। তাই আমরা পাহাড় থেকে শজনে ক্রয় করে বাজারে খুচরা ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করছি। এতে ভাল লাভ হচ্ছে, ক্রেতারাও বিষমুক্ত শজনে খেতে পারছেন।’

ক্রেতা অলি মিয়া বলেন, ‘এক আঁটি শজনে ৪০ টাকা দিয়ে ক্রয় করেছি। এ সবজি খেয়ে স্বাদ পাওয়া যায়।’

আরেক ক্রেতা সুজন চৌধুরী বলেন, ‘সজনে খেতে হলে শুকনো শিমের বীজ ও শুঁটকীর প্রয়োজন। সঙ্গে মাছ দিলে আরও ভাল স্বাদ পাওয়া যায়।’

হবিগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. ফজলুর রহমান বলেন, পাহাড়ে প্রায় প্রতি বাড়িতেই শজনের চাষ হচ্ছে। সবজিটির পুষ্টিগুণও ভাল। তাই আমরা এই সবজিচাষে চাষিদের উৎসাহ প্রদান করছি। 



রাইজিংবিডি/হবিগঞ্জ/২৮ মার্চ ২০১৭/মামুন চৌধুরী/টিপু/রুহুল

Walton Laptop