ঢাকা, মঙ্গলবার, ১০ আশ্বিন ১৪২৫, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

‘আন্দোলনটা আরো আগে হওয়া উচিৎ ছিল’

আমিনুল ই শান্ত : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৬-১২-০১ ৮:২৪:৩১ এএম     ||     আপডেট: ২০১৬-১২-০১ ৮:২৪:৩১ এএম

আমিনুল ই শান্ত : ফেডারেশন অব টেলিভিশন প্রফেশনাল অর্গানাইজেশন (এফটিপিও)। দেশের টেলিভিশন মিডিয়ার শিল্পী ও কলাকুশলীদের সম্মিলিত একটি প্লাটফর্ম। ‘শিল্পে বাঁচি, শিল্প বাঁচাই’- এই স্লোগান নিয়ে পাঁচ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে মাঠে নেমেছে এই সংগঠনটি।

 

গতকাল বুধবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মিলিত হয় শত শত টেলিভিশন শিল্পী ও কলাকুশলী। এ অন্দোলন নিয়ে নিজের ভাবনার কথা জানিয়েছেন অভিনেতা শতাব্দী ওয়াদুদ।   

 

এ প্রসঙ্গে রাইজিংবিডিকে শতাব্দী ওয়াদুদ বলেন, ‘আমার হিসেব মতে, এই আন্দোলনটা আরো আগে হওয়া উচিৎ ছিল। এ বিষয়ে আমাদের উপলদ্ধি হয়েছে অনেক পরে। তারপরও যে আমরা সবাই একত্রিত হতে পেরেছি এটা আমার কাছে বড় প্রাপ্তি। কারণ আমরা কারো মৃত্যুদিন ছাড়া একত্রিত হতে পারি না। কর্মব্যস্ততার জন্য খুশির দিনে একত্রিত হতে পারি না। এখন আমরা একটি ক্রান্তিকালে পৌঁছে গেছি। বিশ্বায়নের যুগে বিদেশি চ্যানেল থাকবে কিন্তু আমরা নিজেদের জায়গা তো হারাতে পারি না।’

 

‘আমাদের হাজার বছরের ইতিহাস আছে। নাটক, গান, কবিতা রয়েছে। এই সমস্ত সমস্যা নিয়ে একত্রিত হয়েছি একটি দিক নির্দেশনার আশায়। দেখুন- আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে অনেক টাকা ইনভেস্ট হচ্ছে কিন্তু আমরা এখনো একটি ইন্ডাস্ট্রি হতে পারিনি। যেমনটা বিএফডিসি হয়েছে। এটা না হওয়ার কারণ হলো যাদের টাকা আছে তারাই হয়ে যাচ্ছেন প্রডিউসার। কিন্তু তার মধ্যে কি কোনো আর্টস আছে? তার কোনো প্রস্তুতি আছে? অনেক অভিনেতাও রয়েছে যাদের কোনো প্রস্তুতি নেই অথচ তারা অভিনেতা হয়ে গেছে। আসলে এই জায়গা আমাদের পাল্টাতে হবে। আমাদের পূর্ববর্তীরা একটা প্ল্যাটফর্ম রেখে গেছেন দেখে আমরা কাজ করতে পারছি। কিন্তু পরবর্তীদের জন্য আমরা কি রেখে যাচ্ছি? কিছু রেখে যেতে পারছি না। এজন্য আমাদের তাদের কাছে গালি খেতে হবে। আমি এই গালিটা খেতে চাই না। আমার মনে হয় এই আন্দোলনের মাধ্যমে তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।’ বলেন, শতাব্দী ওয়াদুদ।

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/১ ডিসেম্বর ২০১৬/শান্ত

Walton Laptop
 
     
Walton