ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ ভাদ্র ১৪২৪, ২৪ আগস্ট ২০১৭
Risingbd
শোকাবহ অগাস্ট
সর্বশেষ:

এরশাদের স্বপ্ন নতুন জোট

মোহাম্মদ নঈমুদ্দীন : রাইজিংবিডি ডট কম
প্রকাশ: ২০১৭-০৩-০৭ ৮:১৭:৩৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৩-২২ ১:২৫:০২ পিএম

মুহাম্মদ নঈমুদ্দীন : নতুন নতুন স্বপ্ন দেখতে ভালোবাসেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। দীর্ঘদিন ধরে স্বপ্ন দেখছেন তিনি ক্ষমতায় যাবেন। কখনও বলেন ১৫১ আসন, আবার কখনও ৩০০ আসন জিতে ক্ষমতায় যেতে চান সাবেক এই  রাষ্ট্রপতি।

জানা গেছে, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ এবার নতুন স্বপ্নে বিভোর। আগামী সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জাতীয় পার্টির নেতৃত্বে একটি শক্তিশালী রাজনৈতিক জোট করবেন তিনি।

নেতারা বলছেন, নতুন এই জোট ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপি জোটের বিকল্প হবে। এই জোটের মাধ্যমে নির্বাচন করে তিনি ক্ষমতায় যেতে চান। তবে নতুন জোট গঠন করে এরশাদের ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন পুরণ হবে কি না হয়তো সময় বলে দেবে।

এ প্রসঙ্গে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন খান রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘স্বপ্ন হবে কেন? আমাদের পার্টির চেয়ারম্যান চাইলে নতুন জোট গঠন করে ক্ষমতায় যাওয়া সম্ভব।’

তিনি বলেন, দেশের উন্নয়নের রূপকার হলেন এরশাদ। রাষ্ট্রপতি হিসেবে তিনিই সফল। ফলে তার দ্বারা কোনো কিছুই অসম্ভব নয়। জনগণ আস্থা রাখলে অবশ্যই তিনি সফল হবেন।

জাপা সূত্র জানায়, আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে বেশ কিছুদিন ধরে এইচ এম এরশাদ জাতীয় পার্টির নেতৃত্বে একটি শক্তিশালী রাজনৈতিক জোট গঠনে তৎপরতা শুরু করেন। মনে মনে তিনি সম্ভাব্য জোটের নামও ঠিক করে রেখেছেন। বাকী দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে সেই নাম ফাইনাল করবেন।

রাজনীতিতে নতুন একটি জোট গঠনের প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ও বিএনপির জোটের ওপর মানুষের আর আস্থা নেই। বরং তারা পল্লীবন্ধু এরশাদের দিকে তাকিয়ে আছে। জনগণ চায় এরশাদের নেতৃত্বে একটি বিকল্প রাজনৈতিক জোট হোক।’

তিনি আরো বলেন, ‘জাতীয় পার্টি দেশ ও মানুষের জন্যই রাজনীতি করে। ৯ বছর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থেকে এটি প্রমাণ হয়েছে। আর দেশের ওই সময়ের উন্নয়ন, সফলতার যে কৃতিত্ব তার একমাত্র দাবিদার আমাদের পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তাই দেশে বর্তমান যে পরিস্থিতি তাতে এরশাদের কোনো বিকল্প নেই। তার নেতৃত্বে নতুনজোট ক্ষমতায় যাবে।’

দলটির সূত্র জানায়, আগামী নির্বাচনের আগেই জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যন এরশাদ রাজনৈতিক জোট গঠন করতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি জোটের বাইরে ডান, বাম ও ইসলামী ঘরানার রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলাপ-আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি আলোচনা করছেন দুই জোটে যুক্ত দলগুলোর সঙ্গেও।

মঙ্গলবার দুপুরেও বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে বৈঠক করেন সাবেক এ রাষ্ট্রপতি।

জানা যায়, রাজধানীর বনানী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ রাজনৈতিক দলগুলোর শীর্ষ নেতাদের কাছে আগামী নির্বাচনের আগে জোট গঠনের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেন। এ সময় এরশাদের সঙ্গে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দলের মহাসচিব এবিএম রুহুল আমীন হাওলাদার এমপি, বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান সেকেন্দার আলী মনি, আমজনতা পার্টির চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ বেনজীর আহম্মেদ, গণতান্ত্রিক ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসেন, আওয়ামী পার্টির চেয়ারম্যান মো. গোলাম মোস্তফা সরকার, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিভ পার্টির চেয়ারম্যান শেখ মোস্তাফিজুর রহমান, বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক আন্দোলন পার্টির চেয়ারম্যান এ আর এম জাফরুল্লাহ চৌধুরী, ইসলামী ডেমোক্রেটিভ পার্টির চেয়ারম্যান ডা. সেলিম রেজা, কৃষক শ্রমিক পার্টির চেয়ারম্যান লায়ন সালাম মাহমুদ, ইউনাইটেড মুসলিম লীগ পার্টির ড. মো. নিছার উদ্দিন, গণ অধিকার পার্টির চেয়ারম্যান হোসেন মোল্লা, তফশিল ফেডারশনের চেয়ারম্যান দুলাল সাহা।

দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ঢাকা মহানগর উত্তর সভাপতি এস এম ফয়সল চিশতী জানান, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নেতৃত্বে শিগগিরই একটি শক্তিশালী রাজনৈতিক জোট গঠিত হতে যাচ্ছে। জোটে অনেক শক্তিশালী রাজনৈতিক দলকে দেখা যাবে। অনেকেই জোটে আসতে আগ্রহী। আলাপ-আলোচনা শেষ পর্যায়ে, যে কোনো সময় পার্টির চেয়ারম্যান রাজনৈতিক জোটের নাম ঘোষণা দেবেন।

জানা গেছে, জাতীয় পার্টির নেতৃত্বে রাজনৈতিক জোট গঠনে সমন্বয়ের দায়িত্ব পালন করছেন দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভরায়। তাকে সহযোগিতা করছেন দলটির কেন্দ্রীয় নেতা এস এম মুশফিকুর রহমান। তারাই রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে তাদের বাইরে দলের অনেকেই এরশাদকে সহযোগিতা করছেন।

জাতীয় মহিলা পার্টির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অনন্যা হোসেন মৌসুমী জানান, পার্টির চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে যে রাজনৈতিক জোট গঠিত হচ্ছে তা আগামী নির্বাচনে চমক দেখাবে।

তিনি আরো জানান, জাতীয় পার্টির নেতৃত্বাধীন জোটে এখন পর্যন্ত যেসব রাজনৈতিক দলযুক্ত হচ্ছে তাদের মধ্যে বাংলাদেশ লেবার পার্টি, আমজনতা পার্টি, গণতান্ত্রিক ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি, আওয়ামী পার্টি, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিভ পার্টি, বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক আন্দোলন, ইসলামী ডেমোক্রেটিভ পার্টি, কৃষক শ্রমিক পার্টি, ইউনাইটেড মুসলিম লীগ, গণ অধিকার পার্টি, তফসিল ফেডারেশন, জাতীয় হিন্দু লীগ, সচেতন হিন্দু পার্টি, বাংলাদেশ পিপলস ডেমোক্রেটিক পাটি (বিপিডিপি) এবং ইসলামী গণ আন্দোলনসহ প্রায় পনেরটি দল চূড়ান্ত। আরো অনেক দলের সঙ্গে কথাবার্তা চলছে।

এরশাদের নেতৃত্বে নতুনজোট গঠনেও চমক থাকছে বলে জানান এই নেত্রী।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/৭ মার্চ ২০১৭/নঈমুদ্দীন/সাইফ

Walton Laptop