ঢাকা, রবিবার, ২ পৌষ ১৪২৫, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

‘আমার জীবনের প্রথম ও সেরা পুরস্কার’

জাকির হুসাইন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০১-০১ ৫:৪৮:০৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০১-০১ ৭:৩৫:৩৩ পিএম
কামরুন্নাহার নাজনীন এবং তার স্বামীর হাতে লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার তুলে দিচ্ছেন ওয়ালটন গ্রুপের অপারেটিভ ডিরেক্টর এফ এম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন) এবং ভাষানটেক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাব্বির

নিজস্ব প্রতিবেদক : ‘বাসায় ওয়ালটনেরই একটি টিভি ছিল। তবে সেটি বক্স (সিআরটি) টেলিভিশন। টিভিটি অনেক আগের হলেও সার্ভিস ভালো ছিল। শুধু যুগের সাথে তাল মেলাতে নতুন করে একটি ওয়ালটন এলইডি টিভি কিনি। আর তাতেই পেয়েছি ১ লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার। এটা আমার জীবনের প্রথম ও সেরা পুরস্কার।’

কথাগুলো কামরুন্নাহার নাজনীনের। গত বুধবার (২৭ ডিসেম্বর) রাজধানীর কচুক্ষেত ওয়ালটন প্লাজা থেকে ২৪ ইঞ্চি এলইডি টিভি কিনে ১ লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার পান কামরুন্নাহার নাজনীন।

কামরুন্নাহার নাজনীনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাদের বাড়ি ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায়। স্বামীর চাকরির সুবাদে থাকেন ঢাকার দক্ষিণ কাফরুলে। স্বামী মো. হারুন পেশায় বায়োক্যামিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। দুই মেয়েসহ চার সদস্যের পরিবার তাদের।

রাইজিংবিডিকে তিনি বলেন, ‘বাসার পাশে কচুক্ষেত ওয়ালটন প্লাজা। সেখান থেকে নিয়মিত কেনাকাটা করি। এ কারণে প্লাজার ম্যানেজার কুলসুম পারভীন আমার খুব পরিচিত হয়ে গেছেন। তাই গত ২৭ ডিসেম্বর স্বামী কর্মস্থলে থাকায় আমি একাই ওই প্লাজাতে যাই। প্লাজাতে তখন প্রচুর ভিড় ছিল। আমি আমার মতো টিভি গ্যালারিতে গিয়ে ২৪ ইঞ্চির এলইডি টিভিটি পছন্দ করি। যার দাম ১৪ হাজার ৫০০ টাকা। মূল্য পরিশোধ করলে আমার মোবাইল নাম্বারসহ মেমো করেন তারা।’

কামরুন্নাহার নাজনীন বলেন, ‘সবকিছু শেষে আমার ক্রয়কৃত টিভিটি নিয়ে যখন বাসার উদ্দেশ্যে রওনা দেব, ঠিক তখন পেছন থেকে কুলসুম আপা আমাকে ডাক দেন। কাছে গিয়ে কারণ জানতে চাইলে তিনি আমাকে অবিশ্বাস্য একটি কথা বলেন। যা কেউ কোনো দিন বিশ্বাস করবে না। আমিও করিনি। কুলসুম আপা বলেন, আমি নাকি লাকি ওম্যান। ওয়ালটন টিভি কিনে ১ লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার পেয়েছি। আপনিই বলেন, এটা কি বিশ্বাসযোগ্য কোনো কথা? আগে-পিছে কিছুই জানি না। হঠাৎ করে এক লাখ টাকার উপহারের খবর। আমি তখন গোলকধাধাঁয় পড়ে যাই।’

কামরুন্নাহার নাজনীন জানান, তখন প্লাজা ম্যানেজার কুলসুম পারভীন তাকে বিষয়টি বুঝিয়ে বলেন। তিনি জানান, ওয়ালটনের ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন ক্যাম্পেইন চলছে। ওয়ালটন পণ্য ক্রয়ে ২০০ থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত ক্যাশ ভাউচার পাওয়ার সম্ভাবনা আছে। অসংখ্য ভাগ্যবান ক্রেতার মধ্যে নাজনীনও একজন। তিনি নাজনীনকে তার মোবাইলে কোনো এসএমএস গেছে কি না, তা দেখতে বলেন।

কামরুন্নাহার নাজনীন বলেন, ‘ব্যাগ থেকে মোবাইল বের করে মেসেজটি ওপেন করে দেখি তাতে ১ লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার লেখা। তারপরও আমার বিশ্বাস হয় না। সাথে সাথে আমার স্বামীকে ফোন করে জানালে তিনিও বিশ্বাস করেননি। সাহেব বলেন, পুরস্কার বা উপহার কিছুই দরকার নেই। কেনা টিভিটি নিয়ে বাসায় চলে যাও।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমার বিশ্বাস না হলে কী হবে। লাখ টাকা উপহারের খবর ওই প্লাজাসহ আশপাশে ছড়িয়ে পড়ে। আমি তাদের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে বাসায় আসি। বাসায় গিয়ে বিষয়টি আসলে কী, তা নিয়ে স্বামী-স্ত্রী দুজন মিলে পরামর্শ করি। তখন আমার বড় মেয়ে (এবার জেএসসিতে গোল্ডেন এ প্লাস পেয়েছে) এসে বলে বিষয়টি সত্য। পেপারে ও টিভিতে এ বিষয়ে সে বিজ্ঞাপন ও সংবাদ দেখেছে।’

কামরুন্নাহার নাজনীন বলেন, ‘মেয়ের কথায় আমাদের বিশ্বাস হয়। অবশেষে ৩১ ডিসেম্বর স্বামীকে সাথে নিয়ে ওয়ালটন প্লাজায় যাই। আমাদের যাওয়ার খবরে আগে থেকে প্লাজাকে সাজিয়ে রাখ হয়েছিল। আয়োজনও ছিল বেশ। ওয়ালটনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও এসেছিলেন। তাদের উপস্থিতিতেই আমাদের পছন্দের পণ্য হ্যান্ডওভার করেন।’

লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার দিয়ে কী কী কিনেছেন, তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বাসায় মোটামুটি সব পণ্যই আছে। জাস্ট টিভিটি পরিবর্তন করার উদ্দেশ্যে নতুন টিভি কিনে যেহেতু লাখ টাকা পেয়েছি, তাই ৫৯ হাজার ৪০০ টাকা দিয়ে ওয়ালটনের সবচেয়ে বড় সাইজের (৩৩ সিএফটি) ফ্রিজ, ৩৫ হাজার ৫৫০ টাকা দিয়ে একটি ল্যাপটপ এবং ৬ হাজার ৪০০ টাকা দিয়ে একটি ওভেন নিয়েছি। এতে ১ হাজার ৩৫০ টাকা বেশি লাগে। যা নগদ পরিশোধ করেছি।’

ওয়ালটন পণ্যের দাম, মান ও গুণাগুণ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘ওয়ালটন পণ্য খুবই ভালো। তাছাড়া এটা আমাদের দেশীয় পণ্য। আমার পরিচিত অনেকেই ওয়ালটন পণ্য ব্যবহার করে। তাদের সবাই ওয়ালটন পণ্য ভালো বলে জানিয়েছে।’

কামরুন্নাহার নাজনীন বলেন, ‘ওয়ালটনের নতুন এই অফার খুবই সময়োপযোগী ও ভালো বলে মনে করছি। এতে কোম্পানির প্রচারের সঙ্গে সঙ্গে বিক্রি আরো বাড়ছে। এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়ায় কর্তৃপক্ষকে আমি অনেক ধন্যবাদ জানাই।’

 

ওয়ালটনের লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচারে কেনা পণ্য নিয়ে উচ্ছ্বসিত কামরুন্নাহার নাজনীন এবং তার পরিবার


তিনি আরো বলেন, ‘পুরস্কার পাওয়ার পরও আমার বিশ্বাস হচ্ছিল না যে মাত্র সাড়ে ১৪ হাজার টাকায় কেনা টিভিতেই ১ লাখ টাকার পুরস্কার পেয়েছি। কারণ, আমি ও আমার সাহেব এর আগে কোনো দিন লটারি বা এ জাতীয় কিছু পাইনি। আজ পেলাম। সত্যিই কি ভাগ্য আমাদের! যা কখনো আশা করিনি, কল্পনাও করিনি, আজ তাই পেলাম। অপ্রত্যাশিত এই পাওয়ার মজাই আলাদা। আসলে প্ল্যানিং মাস্টার তো আল্লাহ। তিনি কার জন্য কী প্ল্যান করেন তা আমরা বলতে পারি না। এ খবর শুনে আমার সকল আত্মীয়-স্বজনও দারুণ খুশি।’

কচুক্ষেত ওয়ালটন প্লাজার ম্যানেজার কুলসুম পারভীন বলেন, ‘আমি গত ৫ বছর ধরে এ প্লাজায় কর্মরত। এখানে অনেক স্কুল-কলেজ রয়েছে। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে গার্ডিয়ান হিসেবে তাদের মায়েরা বেশি থাকেন। সময় পেলেই তারা আমার এই প্লাজাতে আসেন। বিশেষ করে, গৃহস্থালী পণ্য কেনার আগে সবাই একবার হলেও আমার এখানে আসেন। ফলে তাদের বেশিরভাগ আমার পরিচিত। তাদের মধ্যে কামরুন্নাহার নাজনীনও একজন। টিভি কিনে লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার পাওয়ার খবর তিনি বিশ্বাসই করতে পারছিলেন না। তার স্বামীও ভেবেছিলেন, এটা ভুয়া। তাদেরকে বিশ্বাস করাতে আমাদের বেশ কষ্টই হয়েছে।’

তিনি জানান, গত ৩১ ডিসেম্বর এক আনন্দঘন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে কামরুন্নাহার নাজনীন এবং তার স্বামীর হাতে লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচারে কেনা পণ্য তুলে দেওয়া হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন গ্রুপের অপারেটিভ ডিরেক্টর এফ এম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন), ভাষানটেক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাব্বির, মুক্তিযোদ্ধা হামিদুর রহমান ঝন্টুসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

উল্লেখ্য, ক্রেতাদের দোরগোড়ায় অনলাইনে দ্রুত ও সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবা দিতে ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম চালু করেছে ওয়ালটন। এই কার্যক্রমে ক্রেতাদের অংশগ্রহণকে উদ্বুদ্ধ করতে প্রতিদিন দেওয়া হচ্ছে নিশ্চিত ক্যাশ ভাউচার। ওয়ালটন প্লাজা এবং পরিবেশক শোরুম থেকে ১০ হাজার টাকা বা তার বেশি মূল্যের পণ্য কিনে ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন করে সর্বনিম্ন ২০০ থেকে সর্বোচ্চ ১ লাখ টাকার ক্যাশ ভাউচার পাচ্ছেন ক্রেতারা। ক্যাশ ভাউচার পাওয়ার এই সুযোগ থাকবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

 



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১ জানুয়ারি ২০১৮/অগাস্টিন সুজন/রফিক

Walton Laptop
 
     
Marcel
Walton AC