ঢাকা, শুক্রবার, ২ কার্তিক ১৪২৬, ১৮ অক্টোবর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

আলোচিত ডিসির বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি

মোহাম্মদ নঈমুদ্দীন : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৮-২৫ ১০:৫১:৫৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৮-২৫ ১০:৫১:৫৩ পিএম

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : নারী অফিস সহকারীর সঙ্গে আপত্তিকর মেলামেশার ভিডিও প্রকাশের ঘটনায় ওএসডি হওয়া ডিসি আহমেদ কবীরের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

রোববার পাঁচ সদস্যের এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিকে আগামী ১০ কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্ম সচিব (জেলা ও মাঠ প্রশাসন অধিশাখা) মুশফিকুর রহমানকে। সদস্য সচিব করা হয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের মাঠ প্রশাসন শৃঙ্খলা অধিশাখার উপ-সচিবকে। কমিটিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনারের একজন প্রতিনিধি, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) একজন প্রতিনিধি সদস্য হিসেবে থাকবেন। সদস্যরা কেউই উপ-সচিব পদমর্যাদার নিচে হতে পারবে না।

এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (জেলা ও মাঠপ্রশাসন অনুবিভাগ) আ. গাফফার খান বলেন, পাঁচ সদস্যের কমিটিকে প্রকাশিত ভিডিওটির সঠিকতা যাচাই করে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে। কমিটি প্রয়োজনে সরেজমিন পরিদর্শন করবে এবং ভিডিওটির সঠিকতা যাচাইয়ের বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের মতামত নেবে।

ওএসডি হওয়া ডিসি আহমেদ কবীরের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

দুপুরে সচিবালয়ে তিনি বলেন, জেলায় একজন ডিসি অনুকরণীয় ব্যক্তি। তার কাছ থেকে এ রকম অনৈতিক কর্মকাণ্ড কাম্য নয়। তদন্তের মাধ্যমে তার বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। অবশ্যই উদাহরণ সৃষ্টি করার মতো শাস্তি তার হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের চাকরির বিধানে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ রয়েছে। সেটিই হবে।

আহমেদ কবীরকে দেয়া শুদ্ধাচার পদক ফিরিয়ে নেয়ার কথাও জানান প্রতিমন্ত্রী।

নারী অফিস সহকারীর সঙ্গে আপত্তিকর মেলামেশার ভিডিও প্রকাশের ঘটনায় জামালপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) আহমেদ কবীরকে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ও এসডি) করা হয়েছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত আদেশ জারি করা হয়।

সম্প্রতি জামালপুরের ডিসির একটি আপত্তিকর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। ভিডিওটিতে ডিসি আহমেদ কবীরের সঙ্গে তার অফিসের এক নারী কর্মীকে অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখা যায়। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে খন্দকার সোহেল আহমেদ নামের একটি ফেসবুক আইডি থেকে ভিডিওটি পোস্ট করা হয়।

এরপর থেকেই আলোচনায় আছেন জামালপুরের আলোচিত জেলা প্রশাসক (ডিসি) আহমেদ কবীর। ওই ঘটনায় জামালপুরসহ সারা দেশের মানুষের মাঝে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার দাবি ওঠে। বিষয়টি সরকারের নজরে আসলে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া হয় জামালপুরের আলোচিত জেলা প্রশাসক (ডিসি) আহমেদ কবীরকে।


রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৫ আগস্ট ২০১৯/নঈমুদ্দীন/রফিক

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন