ঢাকা, শুক্রবার, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২২ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

ওয়ালটন প্লাজার ফ্রিজ বিক্রির লক্ষ্য অর্জনের সাফল্য উদযাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১০-০৩ ৪:৫৩:৩২ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১০-০৪ ১২:৫৮:৫৮ পিএম

বাংলাদেশে এখন ফ্রিজ মানেই ওয়ালটন। টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া, সবখানেই ওয়ালটন ফ্রিজের জয়জয়কার।

সাশ্রয়ী দাম, উচ্চ মান, সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবা, ডিজিটাল ক্যাম্পেইনে দেয়া বিশেষ সুবিধা- সব মিলিয়ে ক্রেতাদের কাছে হটকেক ওয়ালটন ফ্রিজ। দেশে এখন ফ্রিজের একচেটিয়া বাজার ওয়ালটনের।

চলতি বছর দেশের বাজারে ২০ লাখ ফ্রিজ বিক্রির লক্ষ‌্য নির্ধারণ করেছে ওয়ালটন। যার নাম দেয়া হয়েছে ‘১৯শে ২০’। এর মধ্যে ওয়ালটনের নিজস্ব সেলস নেটওয়ার্ক ওয়ালটন প্লাজা অ‌্যান্ড ডেভেলপমেন্ট বিভাগের লক্ষ‌্য ছিল ৫ লাখ ৫০ হাজার ফ্রিজ বিক্রি। কিন্তু বছর শেষ হওয়ার ৩ মাস আগেই তারা বিক্রয় লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। এবার নতুন করে আরো ৫০ হাজার ফ্রিজ বিক্রির লক্ষ‌্য নির্ধারণ করেছে ওয়ালটন প্লাজা অ‌্যান্ড ডেভেলপমেন্ট বিভাগ।

ওয়ালটন প্লাজার ফ্রিজ বিক্রির লক্ষ্য অর্জনের এ সাফল্য উদযাপন করেছে প্রতিষ্ঠানটি। বুধবার (২ অক্টোবর, ২০১৯) রাজধানী বসুন্ধরায় ওয়ালটন করপোরেট অফিসে আয়োজিত ওই অনুষ্ঠানে কাটা হয় বিশাল আকারের কেক। সারা দেশে ৩৩০টি ওয়ালটন প্লাজার সঙ্গে মিল রেখে ওই কেকটির ওজন ছিল ৩৩০ পাউন্ড।

অনুষ্ঠানে কেক কেটে ফ্রিজ বিক্রির সাফল্য উদযাপনে প্রাণ সঞ্চার করেন ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এম আশরাফুল আলম, পরিচালক এস এম মাহবুবুল আলম এবং এস এম মঞ্জুরুল আলম।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটনের নির্বাহী পরিচালক ইভা রিজওয়ানা, এমদাদুল হক সরকার, নজরুল ইসলাম সরকার, এস এম জাহিদ হাসান, হুমায়ুন কবীর, নির্বাহী পরিচালক এবং ওয়ালটন রেফ্রিজারেটরের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) গোলাম মুর্শেদ, নির্বাহী পরিচালক মো. রায়হান, আমিন খান ও ড. সাখাওয়াত হোসেন, ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর শাহজাদা সেলিম, ডেপুটি অপারেটিভ ডিরেক্টর মফিজুর রহমান, অ্যাডিশনাল অপারেটিভ ডিরেক্টর খোন্দকার শাহরিয়ার মুরশিদ, অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর এবং ফ্রিজের প্রোডাক্ট ম্যানেজার শহীদুজ্জামান রানা প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে এস এম আশরাফুল আলম বলেন, ক্রেতারা ওয়ালটন পণ্যের প্রতি আস্থা রেখেছেন বলেই এ সাফল্য এসেছে। এ বছর আমরা ফ্রিজের উৎপাদন খরচ প্রায় ১০ শতাংশ কমিয়ে এনেছি। উৎপাদনের পরিমাণ বেড়েছে বলে মাথাপিছু উৎপাদন খরচ কমে এসেছে। আর এর সুফল পাচ্ছেন ক্রেতারা। তারা আরো সাশ্রয়ী মূল্যে দেশে তৈরি উচ্চ মানের ওয়ালটন ফ্রিজ কিনতে পারছেন।

নির্ধারিত সময়ের আগেই লক্ষ্য অর্জনের জন্য তিনি বিক্রয়কর্মীদের নিরলস প্রচেষ্টাকে সাধুবাদ জানান।

এস এম মাহবুবুল আলম বলেন, শুধু পণ্য বিক্রিই নয়, বিক্রয়োত্তর সেবা প্রদানেও ওয়ালটন সবার শীর্ষে। আইএসও সনদপ্রাপ্ত সার্ভিস ম্যানেজমেন্টের আওতায় দেশব্যাপী বিস্তৃত ৭০টিরও বেশি সার্ভিস সেন্টারের মাধ্যমে ক্রেতাদের দ্রুত ও সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবা দিচ্ছে ওয়ালটন।

ওয়ালটন প্লাজা সেলস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট বিভাগের প্রধান মোহাম্মাদ রায়হান ফ্রিজ বিক্রির এ অভাবনীয় সাফল্যের জন্য বিক্রয়কর্মীদের ধন্যবাদ জানান। অচিরেই বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ব্র্যান্ডের কাতারে আসবে ওয়ালটন, এ আশা ব্যক্ত করেন তিনি।

 

ঢাকা/অগাস্টিন সুজন/রফিক

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন