ঢাকা, শুক্রবার, ২ কার্তিক ১৪২৬, ১৮ অক্টোবর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

বাংলাদেশের সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জ

আবু হোসেন পরাগ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৯-০৭ ১০:০০:০৩ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৯-০৭ ৯:৫৮:০৬ পিএম

আবু হোসেন পরাগ: চট্টগ্রাম টেস্টে চারশ রানের লিড নেওয়ার পথে রয়েছে আফগানিস্তান।

বাংলাদেশের হতাশার দিন

শেষ দুই উইকেটে বড় কিছুর আশা নিয়ে তৃতীয় দিন শুরু করেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু ১১ রানে ২ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ অলআউট হয়ে যায় ২০৫ রানেই। আফগানিস্তান প্রথম ইনিংসে পায় ১৩৭ রানের লিড।

দ্বিতীয় ইনিংসে প্রথম চার বলে ২ উইকেট তুলে নিয়ে শুরুটা দারুণ করেছিলেন সাকিব আল হাসান। কিন্তু ভালো শুরুটা ধরে রাখতে পারেনি স্বাগতিকরা। ইব্রাহিম জাদরান ও আসগর আফগান শুধুই হতাশ করেছে বাংলাদেশকে।

মাত্র ১৩ রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস করেছেন অভিষিক্ত ইব্রাহিম। প্রথম ইনিংসে ৯২ রানের এবার ৫০ করেছেন আসগর। ৩৪ রানে অপরাজিত আছেন আফসার জাজাই। দিন শেষে আফগানিস্তানের লিড ৩৭৪ রানের, হাতে এখনো ২ উইকেট। ম্যাচ বাঁচাতে শেষ দুই দিনে অবিশ্বাস্য কিছুই করে দেখাতে হবে বাংলাদেশকে।

তৃতীয় দিন শেষে

আফগানিস্তান ১ম ইনিংস: ৩৪২ ও ২য় ইনিংস: ৮৩.৪ ওভারে ২৩৭/৮

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ২০৫।

আগেই শেষ দিনের খেলা

আলোকস্বল্পতায় নির্ধারিত সময়ের মিনিট বিশেক আগেই শেষ হয়েছে তৃতীয় দিনের খেলা। চতুর্থ দিনের খেলা শুরু হবে নির্ধারিত সময়ের ২০ মিনিট আগে।

সাকিবের আরেকটি

ইনিংসে নিজের তৃতীয় উইকেট নিয়েছেন সাকিব আল হাসান। তার বলে ফিরেছেন কাইস আহমেদ।

বাঁহাতি স্পিনারের বলে ডিফেন্স করতে গিয়ে এলবিডব্লিউ হয়েছেন কাইস। রিভিউ নিয়েও রক্ষা হয়নি তার।

কাইস ১৪ রানে ফেরার সময় আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৮ উইকেটে ২৩৫ রান। লিড ৩৭২ রানের। আফসার জাজাইয়ের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন ইয়ামিন আহমাদজাই।

তাইজুলের দ্বিতীয় শিকার রশিদ

ঝোড়ো ব্যাটিং করা রশিদ খানকে ফিরিয়ে ইনিংসে নিজের দ্বিতীয় উইকেট নিয়েছেন তাইজুল ইসলাম।

তাইজুলের ওভারপিচ ধরনের বলে ডাউন দ্য উইকেটে এসে ড্রাইভ করতে চেয়েছিলেন রশিদ। টার্ন করে তার ব্যাট ফাঁকি দিয়ে বল আঘাত করে স্টাম্পে।

২২ বলে ৬ চারে রশিদ ২৪ করে ফেরার সময় আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৭ উইকেটে ২১০ রান। লিড ৩৪৫ রানের। আফসার জাজাইয়ের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন কাইস আহমেদ।

এক ওভারে পাঁচ বাউন্ডারি

অফ স্পিনার নাঈম হাসানের এক ওভারে পাঁচটি চার মেরেছেন আফগান অধিনায়ক রশিদ খান। এর মধ্যে চারটি টানা চার বলে!

ইনিংসের ৭১তম ওভার। অফ স্টাম্পের বাইরের প্রথম বলটা কাভার ড্রাইভে সীমানাছাড়া করেন রশিদ। এক বল পর আবার কাভার ড্রাইভে টানা দুই চার। পঞ্চম বলে ডাউন দ্য উইকেটে এসে মিড অফের ওপর দিয়ে চার। আর শেষ বলে সুইপ করে চার মারেন ফাইন লেগ দিয়ে।

এই ওভারে আফগানিস্তান পেরিয়েছে দলীয় দুইশ। ৭১ ওভার শেষে আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২০৫ রান। লিড ৩৪২ রানের। রশিদ ২৪ ও আফসার জাজাই ১৬ রানে অপরাজিত আছেন।

নবীকে ফিরিয়ে মিরাজের প্রতিশোধ

মেহেদী হাসান মিরাজের আগের বল স্লগ সুইপে ছক্কায় উড়িয়েছিলেন মোহাম্মদ নবী। পরের বলে তাকে ফিরিয়ে প্রতিশোধ নেন অফ স্পিনার।

এবার সুইপ করেছিলেন নবী। ধরা পড়েন স্কয়ার লেগে মুমিনুল হকের হাতে।

নবী ৮ রানে ফেরার সময় আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১৮০। লিড ৩১৭ রানের। আফসার জাজাইয়ের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন অধিনায়ক রশিদ খান।

ইব্রাহিমকে থামালেন নাঈম

মাত্র ১৩ রানের জন্য অভিষেকে সেঞ্চুরি মিস করেছেন ইব্রাহিম জাদরান। তাকে ফিরিয়েছেন নাঈম হাসান।

অফ স্পিনারকে ডাউন দ্য উইকেটে এসে ছক্কায় উড়াতে চেয়েছিলেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান। লং অনে ধরা পড়েন মুমিনুল হকের ব্যাটে।

২০৮ বলে ৬ চার ও ৪ ছক্কায় ৮৭ রানের ইনিংসটি সাজান ইব্রাহিম। তখন আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১৭১ রান। লিড ৩০৮ রানের। ১৪ রানে ব্যাটিং করা আফসার জাজাইয়ের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন মোহাম্মদ নবী।

আফগানিস্তানের লিড তিনশ

চা বিরতির পর তিনশ পেরিয়েছে আফগানিস্তানের লিড। দলের লিড বাড়াচ্ছেন ইব্রাহিম জাদরান ও আফসার জাজাই।

চা বিরতির আগে তিনশর কাছে আফগানিস্তানের লিড

ইব্রাহিম জাদরানের ব্যাটে বাড়ছে আফগানিস্তানের লিড। চা বিরতির সময় দ্বিতীয় ইনিংসে ৬০ ওভারে আফগানদের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১৫৬ রান। লিড ২৯৩ রানের। ইব্রাহিম ৮২ ও আফসার জাজাই ৪ রানে অপরাজিত আছেন।

তাইজুলের শিকার আসগর

ওভারের প্রথম বলেই উইকেট পেতে পারতেন। তবে তাইজুল ইসলামের বলে শর্ট লেগে ইব্রাহিম জাদরানের ক্যাচটা নিতে পারেননি সাদমান ইসলাম।

শেষ বলে ঠিকই উইকেট পেয়েছেন তাইজুল। বাঁহাতি স্পিনারের বলে ফিরেছেন আসগর আফগান। ভেঙেছে ১০৮ রানের চতুর্থ উইকেট জুটি।

তাইজুলের লেগ স্টাম্পের ওপরের বল ফ্লিক করতে চেয়েছিলেন আসগর। বল তার ব্যাট ছুঁয়ে প্যাডে লেগে ক্যাচ যায় লেগ স্লিপে সাকিব আল হাসানের হাতে।

১০৮ বলে ৪ চার ও ২ ছক্কায় ৫০ রান করেন আসগর। তখন ৫১ ওভারে আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১৩৬ রান। লিড ২৭৩ রানের। ৬৬ রানে অপরাজিত আছেন ইব্রাহিম জাদরান। তার সঙ্গী হয়েছেন আফসার জাজাই।

আসগরের ফিফটি, জুটির সেঞ্চুরি

ইব্রাহিম জাদরান ও আসগর আফগানের ব্যাটে বাড়ছে আফগানিস্তানের লিড। প্রথম ইনিংসে ৯২ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে ফিফটি তুলে নিয়েছেন আসগর। ১০০ বলে ফিফটি করতে ৪টি চারের পাশাপাশি ২টি ছক্কা হাঁকান ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ছুঁয়েছে তাদের চতুর্থ উইকেট জুটির শতরানও, ১৮২ বলে।

৪৮ ওভার শেষে আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১৩৫ রান। লিড ২৭২ রানের। ইব্রাহিম ৬৫ ও আসগর ৫০ রানে অপরাজিত আছেন।

অভিষেকে ইব্রাহিমের ফিফটি

প্রথম ইনিংসে উইকেটে থিতু হয়ে বড় রান পাননি। তবে দ্বিতীয় ইনিংসে ফিফটি তুলে নিয়েছেন অভিষিক্ত ইব্রাহিম জাদরান। ১১৭ বলে পঞ্চাশ স্পর্শ করতে ৪টি চারের পাশাপাশি ২টি ছক্কা হাঁকান ১৭ বছর বয়সি ব্যাটসম্যান।

আফগানিস্তানের লিড দুইশ

নাঈম হাসানকে সুইপ করে স্কয়ার লেগ দিয়ে চার হাঁকালেন আসগর আফগান। এই চারে ১৯৯ থেকে আফগানিস্তানের লিড ছাড়িয়ে গেল দুইশ।

২৯ ওভার শেষে আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ৬৬ রান। লিড ২০৩ রানের। ইব্রাহিম জাদরান ২৭ ও আসগর ২৩ রানে অপরাজিত আছেন।  

দুইশর কাছে আফগানিস্তানের লিড

তৃতীয় দিনের লাঞ্চের আগে আফগানিস্তানের ৩ উইকেট তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ। তবে আফগানিস্তানের লিড দুইশ ছোঁয়ার খুব কাছেই রয়েছে। লাঞ্চ বিরতির সময় দ্বিতীয় ইনিংসে আফগানিস্তানের সংগ্রহ ২৬ ওভারে ৩ উইকেটে ৫৬ রান। লিড ১৯৩ রানের। ইব্রাহিম জাদরান ২৪ ও আসগর আফগান ১৬ রানে অপরাজিত আছেন।

নাঈমের শিকার হাশমতউল্লাহ

পানি পানের বিরতির পর প্রথম ওভারেই উইকেট পেয়েছেন নাঈম হাসান। হাশমতউল্লাহ শাহিদিকে ফিরিয়ে ২৪ রানের দ্বিতীয় উইকেট জুটি ভেঙেছেন তরুণ অফ স্পিনার।

নাঈমের মিডল ও অফে পড়া বলটা ডিফেন্স করতে চেয়েছিলেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। বল টার্ন করে তার ব্যাটে চুমু খেয়ে উইকেটকিপারের প্যাডে লেগে জমা হয় স্লিপে সৌম্য সরকারের হাতে।

হাশমতউল্লাহ ১২ রানে ফেরার সময় আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ২৮ রান। ইব্রাহিম জাদরানের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন আসগর আফগান।

দুই বলে দুই উইকেট সাকিবের

দ্বিতীয় ইনিংসের প্রথম ওভারে পরপর দুই বলে দুই উইকেট নিয়েছেন সাকিব আল হাসান।

প্রথম বলে সাকিবকে চার মেরে শুরু করেছিলেন ইহসানউল্লাহ জানাত। এক বল পরই তাকে ফিরিয়ে প্রতিশোধ নেন সাকিব।

অফ স্টাম্প থেকে ভেতরে ঢোকা বল ডিফেন্স করতে চেয়েছিলেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান। তার ব্যাট ফাঁকি দিয়ে বল আঘাত করে প্যাডে। এলবিডব্লিউয়ের জোরালো আবেদনে আঙুল তুলে দেন আম্পায়ার।

পরের বলে আরো বড় উইকেট পান সাকিব। বাঁহাতি স্পিনার এবার ফিরিয়ে দেন প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান রহমত শাহকে। সাকিবকে ক্যাচ প্র্যাকটিস করিয়ে ফেরেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

প্রথম চার বলে ৪ রানেই নেই আফগানিস্তানের ২ উইকেট। ইব্রাহিম জাদরানের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন হাশমতউল্লাহ শাহিদি।

২০৫ রানে থামল বাংলাদেশ

নাঈম হাসানের বিদায়ে শেষ হয়েছে বাংলাদেশের ইনিংস। তাকে এলবিডব্লিউ করে ইনিংসে পাঁচ উইকেট পূর্ণ করেছেন রশিদ খান।

তৃতীয় দিনে বাংলাদেশ টিকেছে মাত্র ১৩ মিনিট। স্কোরবোর্ডে যোগ করতে পেরেছে মাত্র ১১ রান। মোসাদ্দেক হোসেন ৮২ বলে একটি চার ও দুটি ছক্কায় ৪৮ রানে অপরাজিত ছিলেন।

প্রথম ইনিংসে আফগানিস্তানের ৩৪২ রানের জবাবে ২০৫ রানে অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ। আফগানিস্তান পেয়েছে ১৩৭ রানের লিড।

আফগান লেগ স্পিনার রশিদ খান ৫৫ রানে নিয়েছেন ৫ উইকেট। ৫৬ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন অফ স্পিনার মোহাম্মদ নবী।

বাংলাদেশের দুইশ

তাইজুল ইসলামের বিদায়ের পর দলীয় দুইশ রান পূর্ণ করেছে বাংলাদেশ। রশিদ খানের বলে নাঈম হাসানের চারে বাংলাদেশের দুইশ পূর্ণ হয় ৬৮ ওভার ৫ বলে।

বাজে শটে আউট তাইজুল

তৃতীয় দিনের তৃতীয় বলেই বাজে এক শটে আউট হয়ে ফিরেছেন তাইজুল ইসলাম। তাকে ফিরিয়েছেন মোহাম্মদ নবী।

নবীর বলটা ছিল অফ স্টাম্পের ওপর। তাইজুল গিয়েছিলেন স্লগ সুইপ করতে। বাঁহাতি ব্যাটসম্যান বলের লাইন মিস করে হন বোল্ড।

আগের দিনের ১৪ রানেই ফিরেছেন তাইজুল। তখন ৬৭ ওভার ৩ বলে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৯ উইকেটে ১৯৪ রান। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে মোসাদ্দেক হোসেনের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন নাঈম হাসান।  

মোসাদ্দেক-তাইজুলের লড়াই

রশিদ খানের জাদুকরী বোলিংয়ে দেড়শর আগে ৮ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছিল বাংলাদেশ। সেখান থেকে প্রতিরোধ গড়েন মোসাদ্দেক হোসেন ও তাইজুল ইসলাম। নবম উইকেটে ৪৮ রানের জুটিতে অবিচ্ছিন্ন থেকে দ্বিতীয় দিন শেষ করেন তারা। মোসাদ্দেক ৭৪ বলে ৪৪ ও তাইজুল ৫৫ বলে ১৪ রান নিয়ে আজ তৃতীয় দিন শুরু করেছেন। আফগানিস্তানের থেকে ১৪৮ রানে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ।

দ্বিতীয় দিন শেষে

আফগানিস্তান ১ম ইনিংস: ১১৭ ওভারে ৩৪২ (ইব্রাহিম ২১, ইহসানউল্লাহ ৯, রহমত ১০২, হাশমতউল্লাহ ১৪, আসগর ৯২, নবী ০, আফসার ৪১, রশিদ ৫১, কাইস ৯, ইয়ামিন ০, জহির ০*; তাইজুল ৪/১১৬, সাকিব ২/৬৪, মিরাজ ১/৭৩, নাঈম ২/৪৩, মাহমুদউল্লাহ ১/৯, সৌম্য ০/২৬, মুমিনুল ০/৯, মোসাদ্দেক ০/১)

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ৬৭ ওভারে ১৯৪/৮ (সাদমান ০, সৌম্য ১৭, লিটন ৩৩, মুমিনুল ৫২, সাকিব ১১, মুশফিক ০, মাহমুদউল্লাহ ৭, মোসাদ্দেক ৪৪*, মিরাজ ১১, তাইজুল ১৪*; ইয়ামিন ১/২১, নবী ২/৫৩, জহির ০/৪৬, রশিদ ৪/৪৭, কাইস ১/২২)।

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯/পরাগ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন