ঢাকা, শনিবার, ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৬ জুন ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

কাট্টলী বিলে এবার অতিথি পাখির দেখা নেই

রেজাউল করিম : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৭-০১-১৯ ৩:২৫:৫১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০১-১৯ ৩:২৫:৫১ পিএম
রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদের কাট্টলী বিল

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম : পর্যটন শহর রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদের কাট্টলী বিলে এ বছর দেখা মিলছে না অতিথি পাখিদের।

দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম এই কৃত্রিম হ্রদের কাট্টলী বিল শীতকালীন অতিথি পাখিদের অভয়াশ্রম। পর্যটকরা হ্রদের বুকে নৌ ভ্রমণে এলে পাখিদের দেখা পেতো সহজেই। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর পাখি তেমন একটা দেখা যাচ্ছে না।

লংগদুর কাট্টলী বিলে একসময় দেশি-বিদেশি নানা জাতের পাখি আসতো। পাখিদের কলতানে মুখর ছিল দশ কিলোমিটার প্রশস্ত এ  বিল। হরহামেশাই দেখা মিলতো পানকৌড়ি, সরালি, শামুকভাঙ্গা, শামুকখোল, বেগুনি কালেম, কানি বক, ধলা বক, রাঙা বক, বালি হাঁস, বৈদর, ডাহুক আরো অনেক পাখির।

শিকারীদের উৎপাত জেলেদের নৌকা আর অহরহ নৌযানের চলাচলই পাখিদের না আসার কারণ বলে মনে করছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। কাট্টলী বিলের পূর্বপ্রান্তের ঘনমোড় গ্রামের বাসিন্দা আমির হোসেন বলেন, ‘আমি ত্রিশ বছরের অধিক সময় এ এলাকায় বসবাস করছি। আগের তুলনায় এ বছর পাখি নেই বললেই চলে। আগে বিলের মাঝে অনেক পাখি আসতো। বিলের পশ্চিম প্রান্তের লোকজন বিষটোপ দিয়ে, রাতের আঁধারে লাইট দিয়ে পাখি শিকারে মত্ত হয়। এ কারণেই পাখিরা এখন আর আসছে না।

কাট্টলী বাজারের ব্যবসায়ী হুমায়ুন রশীদ বলেন, ‘হঠাৎ করেই এ বছর পাখিদের আনাগোনা কম দেখা যাচ্ছে। হয়তো আরো কিছুদিন সময় লাগতে পারে পাখিদের আসতে। শিকারিদের উৎপাত কমাতে হবে। প্রায় সময় শিকারীদের পাখি ধরে বিক্রি করতে দেখা যায়।’

এলাকার পরিবেশবাদী সচেতন মহলের দাবি,  পাখিদের আনাগোনা বাড়াতে এ বিলে নিরাপদ আশ্রয় নিশ্চিত করতে হবে।

কারো নেতিবাচক আচরণে পাখিরা যেন বিলটিকে কোনভাবেই অনিরাপদ মনে না করে, সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে।



রাইজিংবিডি/চট্টগ্রাম/১৯ জানুয়ারি ২০১৭/রেজাউল করিম/টিপু