ঢাকা, সোমবার, ৪ কার্তিক ১৪২৬, ২১ অক্টোবর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

ক্ষোভে ফুঁসছেন সালমান ভক্তরা

মামুন খান : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৯-০৫ ১০:৪১:০১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৯-০৬ ৮:২১:৪৯ এএম

মামুন খান : কোটি ভক্তের হৃদয়কে দু’ধার তলোয়ারে এফোঁড় ওফোঁড় করে অকালে চিরবিদায় নিয়েছিলেন সালমান শাহ। বিনোদন পিপাসুদের মনে তিনি ‘অমর নায়ক’। যে কারণে মৃত্যুর ২৩ বছর পরও ভক্তদের হৃদয়ে তিনি বিরাজমান।

৬ সেপ্টেম্বর তার মৃত্যু দিবস। প্রতি বছরই এই দিনটা তার ভক্তরা তাকে বিশেষভাবে স্মরণ করেন। নব্বই দশকের গোড়ার দিকে বাংলা সিনেমায় ধূমকেতুর মতো আবির্ভাব হয়েছিলো সালমানের। কেয়ামত থেকে কেয়ামত সিনেমার মাধ‌্যমে সালমানের প্রথম রুপালি পর্দাভিষেক দর্শক মনে ব‌্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। এরপর থেকেই তিনি তরুণ-তরুণীর আইডলে পরিণত হন।

শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন থেকে সালমান শাহ হয়ে যাওয়া মাত্র ২৪ বছর বয়সী এ তারকা ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে যান। তার অস্বাভাবিক মৃত‌্যুর রহস‌্য এখনও উদঘাটিত হয়নি। যা নিয়ে ক্ষোভ রয়েছে সালমান ভক্তদের।

কয়েকজন সালমান ভক্ত বলেন, তিনি আত্মহত্যা করেননি, তাকে খুন করা হয়েছে। কিন্তু ২৩ বছরেও এর কোন সুরাহা হয়নি। বারবার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ দিলেও তা আলোর মুখ দেখেনি।

তারা এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

গত ১ সেপ্টেম্বর মামলার তারিখ ধার্য ছিল। এদিন ঢাকার নিম্ন আদালতে ভীড় করেন সালমান ভক্তরা। এ সময় তারা সালমান শাহর খুনীদের বিচারের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন।

সালমান ভক্তদের কয়েকজনের সঙ্গে এ প্রতিবেদকের কথা হয়। বিচার না পাওয়ায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন তারা।

সালমান ভক্ত টিয়া রাইজিংবিডিকে জানান, প্রতিটা ধার্য তারিখে আমরা সবাই আদালতে উপস্থিত হই। আমরা বিচারের অপেক্ষায় আছি। সালমান শাহকে হত্যার ঘটনা আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়া হলো। আওয়ামী লীগ সরকার তখন ক্ষমতায় ছিল। প্রধানমন্ত্রী নীলা মাকে (সালমান শাহর মা) কথা দিয়েছিলেন সালমান শাহ হত্যার বিচার করবেন। এখনো আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আছে। আমারও আমাদের প্রিয় নায়ককে হত‌্যার সঠিক বিচারের অপেক্ষায় আছি। সালমান শাহ একটা ব্র্যান্ড, জাতীয় সম্পদ। বাংলাদেশের জাতীয় সম্পদকে যদি বাংলাদেশ সরকার মূল্যায়ন না করে তাহলে কে করবে? আমরা কাদের কাছে বিচার চাইবো?

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ, সালমান শাহ হত্যার বিচার করবেন। আপনিও একজন মা, আরেক মায়ের কষ্টটা ভাল করেই বুঝতে পারবেন। আমরা অন্যের সন্তান, আর আমরাও সন্তানের মা হয়েছি, এ কষ্ট আমরা বুঝি।

ময়মনসিংহ থেকে আসা রাজ মাহমুদ মেঘলা বলেন, এদেশে অনেক হত্যার বিচার হয়েছে, হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু সালমান শাহ হত্যা মামলার রহস্য আজও উদঘাটন হলো না। আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রত্যেক ধার্য তারিখে আদালতে হাজির হই। অনেকে অনেক দূর-দূরান্ত থেকে আসি, আমরা সেই কষ্টের কথা বলতে চাই না। আমরা সালমান শাহ হত্যার বিচার চাই। জড়িত অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

সিলেট থেকে আসা মো. মামুন বলেন, ছোট থেকেই সালমান শাহর ভক্ত ছিলাম, উনার ছবি দেখতাম। এখনও পিবিআই প্রতিবেদন জমা দেয় নাই। পিবিআই-এর কাছে আকুল আবেদন, মামলাটির প্রতিবেদন জমা দেন এবং এটি হত্যা মামলায় রূপান্তরিত করেন। আপনারা সালমান ভক্তদের মনের আক্ষেপ, অনুভূতিটা একটু বোঝার চেষ্টা করেন।

অন‌্য একটি মামলায় হাজিরা দিতে এসেছিলেন জহিরুল নামের এক ব্যক্তি। সালমান শাহ হত্যার বিচারের দাবিতে ব্যানার দেখে তিনিও দাঁড়িয়ে যান মানববন্ধনে। তিনি বলেন, স্বেচ্ছায় এসে এখানে দাঁড়িয়েছি। আমাদের মনের মাঝে এখনো সালমান শাহ আছেন।

হবিগঞ্জ থেকে আসা বাদশা বলেন, অনেক হত্যার বিচার হচ্ছে, সালমান শাহ হত্যার বিচার হবে না কেন? সরকারের কাছে আমরা সালমান শাহ হত্যার বিচার চাই।


রাইজিংবিডি/ঢাকা/৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯/মামুন খান/নবীন হোসেন

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন