ঢাকা, সোমবার, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৮ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

খুলনায় সস্তায় চামড়া বিক্রি

মুহাম্মদ নূরুজ্জামান : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৮-১৪ ৯:৪৯:২৮ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৮-১৪ ৯:৪৯:২৮ এএম

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা :  ‘‘গরুর ছয়টি চামড়া ৭০০ টাকা এবং ছাগলের সাতটি চামড়া ১০০ টাকায় বিক্রি করেছি। এতে চামড়া সংগ্রহের পারিশ্রমিক এবং বহনের ভাড়াও ওঠেনি।’’

হতাশ হয়ে কথাগুলো বলছিলেন খুলনার জিরোপয়েন্ট সংলগ্ন মাদানীনগর মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মাওলানা মো. কামাল হোসেন।

তিনি বলেন, মাদ্রাসার এতিমখানা ও লিল্লাহ বোডিংয়ের জন্য কোরবানির পশুর চামড়া আয়ের অন্যতম মাধ্যম। চামড়া বিক্রির অর্থে এতিম ছাত্রদের প্রায় পুরো বছরের খাবারের সংস্থান হয়। এবার চামড়ার মূল্য না থাকায় বড় সংকটের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

খুলনার লবণচরার আহমদিয়া এতিমখানা ও মাদ্রাসার শিক্ষক মো.  রফিকুল ইসলাম বলেন, শেখপাড়া বাজারে চামড়ার দাম নেই। এখানে গরুর পাঁচটি ও ছাগলের একটি চামড়া নিয়ে এসেছিলেন। দাম দিয়েছে মাত্র ৪৫০ টাকা। যাতে রিকশা ভাড়াও ওঠে না।

খুলনাঞ্চলে ছাগলের চামড়ার দামই ছিল না। ছাগলের প্রতিটি চামড়া ৫-১০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। আবার অনেক ব্যবসায়ী ছাগলের চামড়া কিনতেই চাননি। যে কারণে অনেকেই ছাগলের চামড়া নদীতে ফেলে দিয়েছেন।

খুলনাঞ্চলে কাঁচা চামড়া কেনা-বেচার সব চেয়ে বড় বাজার শেখপাড়া চামড়াপট্টি ঘুরে দেখা গেছে, এবার পথে পথে মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ীদের তৎপরতা ছিল না। খোদ ব্যবসায়ীদের মধ্যেও চামড়া কেনার আগ্রহ ছিল না। চামড়া বিক্রি করতে গিয়ে দরদামের সুযোগ পাননি বিক্রেতারা। যে দাম দিচ্ছেন, সেই দামেই চামড়া রেখে যাচ্ছেন তারা।

খুলনার শেখপাড়া চামড়াপট্টির ইয়াসিন লেদারের মো. আবু জাফর বলেন, ‘‘আমার এবার চামড়া কেনার আগ্রহ ছিল না। দোকান খোলা তাই লোকজন চামড়া নিয়ে আসছেন, দেখার পর যাকে যে দাম বলছি, টাকা নিয়ে চামড়া রেখে চলে যাচ্ছেন।’’

তিনি জানান, এবার গরুর বড় চামড়া ৪০০ টাকা দর দিয়েছেন। ছোট গরুর চামড়া ১০০ টাকায়ও কিনেছেন।

আমান লেদারের মো. মুন্না বলেন, তারা ঢাকার ট্যানারিতে চামড়া দিয়ে থাকেন। সেখানে ৪৭ লাখ টাকা বকেয়া রয়েছে। এবার মাত্র ২০ ভাগ টাকা দিয়েছে। যা দায়-দেনা পরিশোধেই চলে গেছে। এবার মাত্র ৬০০ পিস চামড়া কিনেছেন।

 

রাইজিংবিডি/খুলনা/১৪ আগস্ট ২০১৯/মুহাম্মদ নূরুজ্জামান/বকুল

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন