ঢাকা, বুধবার, ৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ অক্টোবর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

গণ-অভ্যুত্থানে শহীদ মতিউরের বাসায় যাচ্ছেন বাণিজ্যমন্ত্রী

মোহাম্মদ নঈমুদ্দীন : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৭-০১-২৪ ১:২৯:১৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০১-২৪ ১:২৯:১৬ পিএম

সচিবালয় প্রতিবেদক : ২৪ জানুয়ারি, আজ ঐতিহাসিক গণ-অভ্যুত্থান দিবস। ১৯৬৯ সালের এই দিনে রাজধানী ঢাকায় সচিবালয়ের সামনে রাজপথে শহীদ হন নবকুমার ইনস্টিটিউটের নবম শ্রেণির ছাত্র মতিউর রহমান। শহীদ হন আরো একজন।

সেই বীর শহীদ মতিউর রহমানের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে বুধবার তার বয়োবৃদ্ধ পিতাকে রাজধানীর উত্তরা বাসায় দেখতে যাচ্ছেন উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থানের নেতৃত্ব দানকারী বর্তমান সরকারের বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তিনি সেখানে গিয়ে শহীদ মতিউরের বৃদ্ধ পিতা ও পরিবারের অন্যান্যের খোঁজখবর নেবেন।

১৯৬৯ এর গণ-অভ্যুত্থানের অন্যতম নায়ক শহীদ মতিউরের পিতার নাম আজহার উদ্দিন মল্লিক। মতিউরের মা বেঁচে নেই। সরকার শহীদ মতিউরের পিতাকে রাজধানীর উত্তরায় এক হাজার এক টাকায় একটি প্লট বরাদ্দ দেয়। নগদ টাকা দেয় প্রায় ৭০ লাখ টাকা। সরকারের দেওয়া প্লটে তিনি এখন বসবাস করেন। তিনি এখন বয়সের ভারে এতটাই ন্যুব্জ যে চলাফেরা করতে পারেন না। তার বয়স ৯৬ এর ওপরে।

এ প্রসঙ্গে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘গণ-অভ্যুত্থানে শহীদ বীর মতিউরের স্মৃতির প্রতি সন্মান জানাতে বুধবার সকাল ১০টায় আমি তার বৃদ্ধ পিতাকে দেখতে যাব।’

তিনি আরো বলেন, ‘১৯৬৯ সালের ১৭ জানুয়ারি  বঙ্গবন্ধুর মুক্তির জন্য আমরা আন্দোলন শুরু করি। ২০ জানুয়ারি বীর আসাদ শহীদ হন। ২১ তারিখ হরতাল পালন করলাম। লাখো লোকের সামনে শোক কর্মসূচি দিয়েছিলাম, ২২ তারিখ কালো ব্যাজ ধারণ, ২৩ তারিখ মশাল মিছিল। ২৩ তারিখ ঘরে ঘরে কালো পতাকা উত্তলিত হয়েছিল। ২৪ জানুয়ারি গণ-অভ্যুত্থান হয়েছিল।’

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘বাংলাদেশের ইতিহাসে ২৪ জানুয়ারি গণ-অভ্যুত্থান হয়েছিল। সেখানে পাকিস্তানের লৌহমানব আইয়ুব খান বলতে বাধ্য হয়েছিল- ‘আমি আর নির্বাচন করব না’।

তিনি আরো বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর মুক্তি এবং সামরিক শাসন উৎখাতের দাবিতে ১৯৬৯ সালের ২৪ জানুয়ারি কারফিউ ভঙ্গ করে রাজনীতিবিদ, ছাত্র-শিক্ষক, জনতা মিছিল বের করে। মিছিলে পুলিশের গুলিতে শহীদ হন নবম শ্রেণির ছাত্র মতিউর রহমান। প্রতিবাদে সংগ্রামী জনতা সেদিন সচিবালয়ের দেয়াল ভেঙে আগুন ধরিয়ে দেয়। বিক্ষুব্ধ জনগণ আইয়ুব-মোনায়েম চক্রের দালাল, মন্ত্রী, এমপিদের বাড়িতে এবং তাদের মুখপত্র হিসেবে পরিচিত তৎকালীন দৈনিক পাকিস্তান ও পাকিস্তান মর্নিং নিউজে আগুন লাগিয়ে দেয়। জনগণ আইয়ুব গেটের নাম পরিবর্তন করে আসাদ গেট নামকরণ করে।’

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পরবর্তী সময়ে এই গণ-অভ্যুত্থানের পথ বেয়ে রক্তাক্ত সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে মহান স্বাধীনতা অর্জন করে বাঙালি জাতি।’



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৪ জানুয়ারি ২০১৭/নঈমুদ্দীন/সাইফুল

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন