ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ মাঘ ১৪২৬, ২৩ জানুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

তৃতীয় রাউন্ডে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় ওয়ালটনের

আব্দুল্লাহ এম রুবেল : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৮-০১-২০ ৫:১১:২০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০১-২১ ৯:০০:৪১ এএম
অনুশীলনে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনের খেলোয়াড়রা (ছবি : রকিবুল ইসলাম মতি)

আব্দুল্লাহ এম রুবেল : ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) ষষ্ঠ আসরের তৃতীয় রাউন্ডের খেলা শুরু হচ্ছে রোববার থেকে। খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে এই রাউন্ডে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন মুখোমুখি হবে ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোনের।

লিগের প্রথম দুই রাউন্ড শেষে খুব একটা ভালো অবস্থানে নেই টুর্নামেন্টের সাবেক চ্যাম্পিয়ন ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন। তবে তৃতীয় রাউন্ডে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন ওয়ালটনের অধিনায়ক মোশাররফ হোসেন রুবেল। শনিবার সকালে অনুশীলন শেষে রাইজিংবিডির সাথে আলাপকালে তিনি একথা বলেন।

 



ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন এদিন সকাল ১০টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত আবু নাসের সেটডিয়ামে অনুশীলন করে। একই সময়ে অনুশীলন করে ইসলামী ব্যাংকের ক্রিকেটাররাও।

অনুশীলন শেষে ওয়ালটনের অধিনায়ন বলেন, ‘মূলত প্রথম ম্যাচের কারণেই আমরা একটু পিছিয়ে পড়েছি। ওই ম্যাচে যতটা পয়েন্ট নেওয়া দরকার ছিল, ততটা নিতে পারিনি। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে আমরা ভালো কামব্যাক করেছি। মোটামুটি একটি ভালো আত্মবিশ্বাস জন্মে গেছে, এটা যদি আমরা ধরে রাখতে পারি, তাহলে এ ম্যাচে আমরা জিতব। এ ম্যাচে জিতলে পয়েন্টে টপের দিকে চলে যাবে।’

প্রথম ম্যাচের পর নিজেদের অনেকটা সুধরে নিয়েছেন জানিয়ে ওয়ালটন অধিনায়ক বলেন, ‘প্রথম ম্যাচে আমাদের মূল সমস্যাটা ছিল ব্যাটিংয়ে। তবে যেহেতু আমরা শেষ ম্যাচে ভালো ব্যাটিং করেছি, ওটা ধরে রাখাটাই আমাদের চ্যালেঞ্জ হবে। বোর্ডে যদি একটা ভালো স্কোর দিতে পারে আমাদের ব্যাটসম্যানরা, তাহলে আমরাই ম্যাচে ডোমিনেট করব। ফুল পয়েন্ট না পেলেও ম্যক্সিমাম পয়েন্টই আমরা নিতে পারব সেই আত্মবিশ্বাস আছে।’

 



উইকেট দেখে ওয়ালটন অধিনায়কের মনে হয়েছে খুলনার উইকেটে স্পিনাররা বেশি সুবিধা পাবে। এটা নিয়ে তিনি বলেন, ‘খুলনার উইকেটে প্রায় ঘাষ থাকে। তবে এই উইকেট দেখে একেবারেই ঘাষ নেই মনে হয়েছে। প্রথমদিকে ব্যাটিং সহায়ক হবে, তবে পরের দিকে স্পিনই কাজ করবে। সেক্ষেত্রে স্পিনারদের উপরেই ম্যাচটা নির্ভর করছে।’

নিজেদের পরিকল্পনা নিয়ে বলেন, ‘আমাদের ব্যাটিং লাইন-আপ শক্তিশালী আছে। এখন স্পিন ডিপান্টমেন্টকে একটু স্ট্রং করতে হবে। আমরা এখনও টিম মিটিং করিনি। তবে সেক্ষেত্রে আামাদের একজন স্পিনার বেশি খেলতে পারে।’ 

 



প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের মান বাড়াতে মিডিয়াকে আরও সহায়তা করার আশাবাদি করেছেন তিনি। বলেছেন, ‘এখানেও অনেক কষ্ট করে পারফর্ম করতে হয়। তুষার ইমরান বা আব্দুর রাজ্জাকরা অনেক পরিশ্রম করে মাইলফলকে পৌঁছেছেন। কিন্তু তাদের পারফরমেন্স অনেক সময় ঢাকা পড়ে যায়। তবে রাজ্জাক ও তুষার ইয়ং ক্রিকেটারদের জন্য একটা মানদন্ড সেট করে গেলো। যারা ন্যাশনাল টিমে নেই বা ন্যাশনালে টিমে নক করছে তাদের জন্য এ ধরনের মাইলফলক থেকে অনেক কিছু শেখার আছে।’



রাইজিংবিডি/খুলনা/২০ জানুয়ারি ২০১৮/রুবেল/আমিনুল