ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

নতুন সংকটে বুয়েট!

আবু বকর ইয়ামিন : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১০-২৮ ৩:২৪:২৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১০-২৯ ৩:৪৪:৩৯ পিএম

এবার উপাচার্যের (ভিসি) পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষক সমিতির নেতারা।

আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ইতি ঘটলেও  ভিসি অধ্যাপক সাইফুল ইসলামের পদত্যাগের দাবিকে সামনে এনে গ্রান্ড মিটিংয়ের মাধ‌্যমে সিদ্ধান্ত নিয়ে শিক্ষকরা নতুন কর্মসূচি দেবেন বলে জানা গেছে।

বুয়েটের শিক্ষার্থীরা বলছেন, আবরার হত্যা মামলার অভিযোগপত্র দাখিল ও সেখানে অভিযুক্তদের বুয়েট থেকে স্থায়ী বহিষ্কার না করা পর্যন্ত তারা ক্লাস-পরীক্ষাসহ একাডেমিক কার্যক্রমগুলোতে অংশ নেবেন না৷ তবে এ দাবিতে তারা বুয়েটের একাডেমি ও প্রশাসনিক কোনো কার্যক্রমে বাধা সৃষ্টি করবেন না। একই ইস্যুতে শিক্ষার্থীরা আগেই কোন ধরনের আন্দোলন করবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন।

এ কারণে বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম চললেও, একাডেমিক ভবনগুলোর তালা খোলা রাখা হলেও শিক্ষার্থীদের অনুপস্থিতিতে সেখানে শুনশান অবস্থা বিদ্যমান।

তবে ১৯ অক্টোবর বুয়েটের বিভিন্ন বর্ষের অভ্যন্তরীণ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও আবরার হত্যার পর উদ্ভূত পরিস্থিতিতে পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হয়নি৷ এসব পরীক্ষা নিতে নতুন সময়সূচি ঘোষণা করার কথা ভাবছে বুয়েট কর্তৃপক্ষ৷

এদিকে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন শেষ হলেও ভিসির পদত্যাগ দাবি তোলা হচ্ছে শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে। যদিও আবরার ফাহাদের জানাযায় অনুপস্থিতসহ ক্যাম্পাসে না আসায় ভিসির পদত্যাগের দাবি প্রথমদিকে তুলেও শিক্ষার্থীদের আন্দোলন শুরু দুই দিন পরে ভিসি আন্দোলনকারীদের মাঝে উপস্থিত ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে উন্মুক্ত আলোচনায় বসার পর তাঁর পদত্যাগের দাবি বাতিল করা হয়।

জানা গেছে, বর্তমানে ভিসির পদত্যাগের দাবি তুলেছেন সিনিয়র শিক্ষকরা। প্রশাসনিক অদক্ষতার কারণে দফায় দফায় বুয়েটের পরিস্থিতি অস্থির হয়ে উঠছে। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নানা ধরনের অসন্তোষ ও অভিযোগও রয়েছে। এ কারণে শিক্ষকরা ভিসির পদত্যাগের দাবিতে নতুনভাবে আন্দোলন গড়ে তোলার চেষ্টা করছেন বলে একাধিক শিক্ষকের কাছে জানা গেছে। আবার বুয়েট শিক্ষক সমিতির একাধিক সদস্য জানান, শিক্ষক সমিতির একাধিক সিনিয়র শিক্ষক পরবর্তী ভিসি হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। তার মধ্যে শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ কে এম মাসুদ, সাধারণ সম্পাদক ড. মোস্তফা আলী ও ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক মিজানুর রহমান প্রথম সারিতে রয়েছেন। এ কারণে তারা বর্তমান ভিসির পদত্যাগ দাবি তুলে নতুন আন্দোলন সূচনা করার চেষ্টা চালাচ্ছেন।

ভিসির নানা ধরনের অনিয়ম ও অযোগ্যতা তুলে ধরে আন্দোলনে শিক্ষার্থীদের যুক্ত করার চেষ্টা করা হবে বলেও জানা গেছে। সেভাবে  আন্দোলন গড়ে তোলা সম্ভব না হলে শিক্ষকরা ক্লাসে না যাওয়ার ঘোষণা দিবেন। বুয়েট ক্যাম্পাসে সমিতির নেতাদের  বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি ভিসির পদত্যাগের যুক্তি নিয়ে সরকারের বিভিন্ন মহলের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে। 

এ বিষয়ে বুয়েট শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক এ কে এম মাসুদের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে আমরা অটল। এজন্য প্রয়োজনে নতুনভাবে আন্দোলন গড়ে তোলা হতে পারে। আমরা অদক্ষ ও অযোগ্য ব্যক্তির অধীনে থাকতে চাই না।’ তাঁর (ভিসির) কারণে বুয়েটের পরিস্থিতি অস্থির হয়ে উঠছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, ‘শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে যোগাযোগ শুরু করা হয়েছে। উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করে আমরা তাকে পদত্যাগের আহ্বান জানিয়েছি, যদিও তিনি পদত্যাগের ইচ্ছা পোষণ করেন না৷’

ভিসি পদত্যাগ না করা পর্যন্ত শিক্ষকরা ক্লাস বর্জন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তবে ক্ষমতায় বসার জন্য জন্য বুয়েটের পরিস্থিতি সুন্দর ও শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে তারা এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানান।

গত ৬ অক্টোবর বুয়েটের শেরেবাংলা হলে তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করেন বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের একদল নেতা-কর্মী। এরপর আবরার হত্যার বিচারসহ বিভিন্ন দাবিতে শিক্ষার্থীদের টানা আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে ১১ অক্টোবর বুয়েট ক্যাম্পাসে সাংগঠনিক ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন বুয়েটের উপাচার্য সাইফুল ইসলাম।

শিক্ষার্থীরা তাদের সব দাবির বাস্তবায়নে দৃশ্যমান পদক্ষেপ ও দ্রুত বাস্তবায়নযোগ্য কয়েকটি দাবি বাস্তবায়নের শর্তে ১৪ অক্টোবর ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে আন্দোলন শিথিল করেন। পরে সব দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাসে ১৬ অক্টোবর বুয়েট মিলনায়তনে গণশপথের মধ্য দিয়ে মাঠের আন্দোলনে ইতি টানেন শিক্ষার্থীরা। তবে মামলার অভিযোগপত্র এলে সে অনুযায়ী অভিযুক্তদের বহিষ্কার না করা পর্যন্ত একাডেমিক অসহযোগ অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন।

 

ঢাকা/ইয়ামিন/সাজেদ

     
 
রাইজিংবিডি স্পেশাল ভিডিও